২০১৪ সালের সেরা ১০ টি স্যামসাং ফোন

Share

আপনার লাইফস্টাইল যেমনই হোক না কেন, আপনি নিশ্চয়ই পরিবারের সাথে যোগাযোগ রক্ষা থেকে শুরু করে ভালো ছবি এবং অ্যাপস, সবকিছুতেই আপনার মোবাইল ডিভাইসটির উপর নির্ভরশীল যা আপনার জীবন যাপন সহজ করে তুলেছে। একটি ব্র্যান্ড আলাদা করার পর-যেমন আপনার ক্ষেত্রে, স্যামসাং, যেহেতু আপনি আইফোনের মোহ কাটিয়ে উঠতে পেরেছেন- আপনার পরবর্তী কাজ হচ্ছে কেনার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পূর্বে বিভিন্ন মডেলের ফোন যাচাই বাছাই করে দেখা বা আপনার ২০১৪ সালের স্যামসাংটির মূল্য ঠিক করা যাতে আপনি বিক্রি করতে পারেন। ২১০৪ সালের সেরা ১০ টি স্যামসাং ফোনের বিবরণ আপনার কাজে আসবে। আপনার লক্ষ্য পূরণের জন্য আপনি কোনো খুচরা বিক্রেতার কাছে যান বা সঠিক ফোনটি কিনতে বা ভালো ক্রেতা খুঁজতে Bikroy.com-এর মতো অনলাইনে বেচাকেনার ওয়েবসাইটে যান, তখন ভালো করে খোঁজ খবর নিয়ে নিন যাতে পরে আপনার সিদ্ধান্তের জন্য আপনাকে পস্তাতে না হয়। ২০১৪ সালের সেরা স্যামসাং মডেল বাছাই করার আগে এই চারটি বিষয় বিবেচনা করুন:
১. ডিজাইন. মানুষ ২৪/৭ স্মার্টফোন ব্যবহার করে, তাই ডিজাইন সিদ্ধান্ত গ্রহনের ক্ষেত্রে একটি বড় ভুমিকা রাখে। ওজন, স্ক্রিন সাইজ, বাটন সাইজ এবং এর চেহারা- বিশেষ করে যাদের আঙুল কিছুটা মোটা, যাদের ছোট লেখা দেখতে চশমা পড়তে হয় এবং যারা পকেট ছাড়া জামাকাপড় কেনেন তাঁদের। আপনি ক্রয় বা বিক্রয় যাই করুন না কেন ডিজাইনের উপর অনেক কিছু নির্ভর করে।
২. ক্যামেরা. মেগাপিক্সেল কতটা গুরুত্বপূর্ণ? অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আপনি কি ছবি বা ভিডিও শেয়ার করেন? ব্লুটুথ বা সামাজিক যোগাযোগের সাইট ব্যবহার করেন? ক্যামেরার লেন্স ক্যামেরার সামনে বা পেছনে যেখানেই থাকুক না কেন তাতে কি কিছু যায় আসে? আপনি যদি আপনার স্যামসাং ফোনটি বিক্রি করতে যান তবে এগুলোর গুরুত্ব রয়েছে: কথাবার্তা বলার জন্য সামনের দিকে মুখ করা ক্যামেরা ভালো, তাই সেটি আপনার বিজ্ঞাপনে উল্লেখ করুন।
৩. অপারেটিং সিস্টেম. অনেক ফিচার, যেমন -অ্যালার্ম ঘড়ি, মুভি প্লেয়ার, গেমিং এপিসেন্টার, এম পি থ্রি প্লেয়ার, শিডিউলার, ফ্ল্যাশলাইট, নোটবুক, স্কেচপ্যাড এবং আরও অনেক কিছু সমৃদ্ধ স্যামসাংয়ের কোনো মডেল খুঁজছেন, নাকি বিক্রি করবেন? আপনার বিক্রির বিজ্ঞাপনে সেরকমটি বলে দিন বা আপনার বাজেটের মধ্যে সবচেয়ে বেশী ফিচারসমৃদ্ধ ফোন খুঁজে নিন। আন্ড্রয়েড নাকি উইন্ডোজ তাও ঠিক করে দিন।
৪. ব্যাটারি। গুরুত্বপূর্ণ আলাপ বা অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারের মাঝখানে ব্যাটারির চার্জ শেষ হয়ে যাওয়ার ঘটনা কার ক্ষেত্রে না ঘটেছে? ক্রয় বা বিক্রয় যাই করুন না কেন দীর্ঘ ব্যাটারি লাইফ এবং চার্জিং স্পিড বেশী হলে তা ফোনটি বিক্রি বা মার্কেটিংয়ের জন্য আরও বেশী পয়েন্ট যোগ করবে, কারণ সবসময় পাওয়ার কর্ড লাগিয়ে রাখতে কেউই চায় না।
এখন রয়েছে কিছু স্যামসাং মোবাইল ফোনের রিভিউ:
অ্যাটিভ সে (ATIV SE)। ২০১৪ সালের এই স্যামসাং ডিভাইসটি এই ধরণের ডিভাইসের মধ্যে প্রথম নয়, কিন্তু এটি সবচেয়ে শক্তিশালী। উন্নত কোয়াড-কোর প্রসেসিং, পেছনের দিকে মুখ করা লেন্স সমৃদ্ধ ফুল ক্যামেরা ডিসপ্লে, ১০৮০ পিক্সেলে ভিডিও করার ক্ষমতা, এবং ডুয়াল রেকর্ডিংয়ের জন্য দ্বিতীয় (সামনের দিকে মুখ করা) আরেকটি ক্যামেরা রয়েছে যা আপনাকে ভিডিও প্রোডাকশন তারকা বানাতে এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে। আপনি যদি অ্যাটিভ সে (ATIV SE) বিক্রি করেন তবে আপনার বিজ্ঞাপনের জায়গাটি এর ২৩ ঘণ্টার টক টাইমের কথা প্রচারের জন্য ব্যবহার করবেন, যার পুরোটাই ২৬০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার আওয়ার ব্যাটারির অবদান। অল্প সময়েই এর আবেদন নষ্ট হয়ে যাবে না।
গ্যালাক্সি আলফা। আলফা কুকুরের মতো, এই স্যামসাং ফোন স্পিডের ক্ষেত্রে সবার থেকে এগিয়ে: ২০১৪ সালের সবচেয়ে বেশীস্পিডের ফোন এটি: এর স্পিড ৩০০ এম বি পি এস পর্যন্ত। এর একটি পাওয়ার সেভিং মোড রয়েছে যা ১৮৬০ মিলি অ্যাম্পিয়ার আওয়ার ব্যাটারির লাইফ আরও দীর্ঘায়িত করবে, তাই কথার মাঝখানে ফোন বন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কম। এর পাতলা প্লাস্টিকের আবরণ শক্ত ধাতব আবরণ দিয়ে প্রতিস্থাপিত হয়েছে। এর সীমাবদ্ধতার মধ্যে রয়েছে এর মাইক্রো এস ডি কার্ড স্লটের অভাব, কিন্তু আপনি যদি বিক্রি করার কথা ভাবেন তবে এর ২ জিবি র‍্যাম ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে পারে।
গ্যালাক্সি এস ৩ নিও। আপনি কি আপনার ব্যবসার জন্য স্মার্ট ফোনের উপর নির্ভর করতে চান? তবে এস ৪ না কিনে আপনি এস ৩ নিও কিনতে পারেন, কারণ এই ডিভাইসটির এম ডি এম (MDM) সিস্টেম ডাটা সিকিউরিটির জন্য ভালো। গোলযোগপুর্ণ জায়গায় আপনার যদি ব্যবসায়িক কথাবার্তা চালিয়ে যেতে সমস্যা হয় তবে এই ফোনটি আপনাকে কিনতে হবে। পিসি-ষ্ট্যাণ্ডার্ড অ্যাপস এতে আগে থেকে ইন্সটল করা থাকে; স্যামসাং এস ভয়েস ফিচার কলের পর কল করার কাজটি সহজ করে দেবে। রিভিউয়ারদের মতে বর্তমানে সবচেয়ে দ্রুতগতি সম্পন্ন অ্যানড্রয়েড ফোন এটি, আপনি যদি তা বিক্রি করেন তবে আপনার বিজ্ঞাপনটি ব্যবসায়িক বিজ্ঞাপনের পাশে দেবেন যাতে করে তা ক্রেতাদের নজরে পড়ে।
গ্যালাক্সি নোট ৩। আপনি কি মনে প্রাণে ট্যাবলেট পছন্দ করেন? তবে ২০১৪ নোট ৩ বাছাই করুন। আপনি কি ২০১৫ এর জন্য আপনারটি বিক্রি করে দেবেন? ট্যাবলেটের আপগ্রেডেড প্রসেসরের (২.৩০ গিগাহার্জ), ৮ থেকে ১৩ মেগাপিক্সেলে উন্নীত ক্যামেরা এবং ১০৮০ এইচ ডি পিক্সেলের একটি হালকা কিন্তু বড় ডিসপ্লের কথা উল্লখ করে এর অন্যান্য ফিচারগুলো তুলে ধরুন। নোট ২ থেকে নোট ৩ এর ব্যাপক উন্নতি করা হয়েছে।, তাই আপনি যদি স্মার্ট ফোন কিনতে চান তবে ২০১৫ সালের নতুন মডেল আসার সাথে সাথেই ২০১৪ মডেলগুলো সেরা ডিলে কিনে ফেলুন।
গ্যালাক্সি নোট ৪। উচ্চ রেজ্যুলেশনের ছবির জন্য সুপার-চার্জড ৫.৭ ইঞ্চি এইচ ডি স্ক্রিন সমৃদ্ধ স্যামসাংয়ের টেকসই কোনো মডেল খুঁজছেন? হয়ত এই নোটটিই আপনার ভাগ্যে আছে। আপনি ২৪/৭ ফোনে থাকলে ২.৭ গিগাহার্জ ইঞ্জিন সবসময় আপনাকে ভালো স্পিড দেবে এবং ব্যাটারির দ্রুত চার্জিং ক্ষমতা একে এগিয়ে রাখবে যদি আপনি গ্যালাক্সি নোট ৪-এর মালিক হন এবং তা বিক্রি করতে চান। এর ফ্রন্ট ও ব্যাক ক্যামেরা একে আরও সমৃদ্ধ করেছে এবং এর ব্যাটারির আলট্রা সেভিং ফিচারও রয়েছে।
গ্যালাক্সি এস ৫ স্পোর্ট। আসলে, আপনি যদি এমন একটি স্মার্ট ফোন খুঁজে থাকেন যা আপনার রুচিশীল ব্যক্তিজীবনের পরিচয় বহন করে তবে আপনি সেটি পাবেন স্যামসাং এস ৫ স্পোর্ট মডেলে। ডিভাইসটি আপনার লকারে না রেখে আপনার পছন্দের কাজ করুন। ম্যাপ মাই ফিটনেস অ্যাপটি আপনার নতুন বন্ধু হতে পারে, কারণ এটি হয়ে উঠতে পারে আপনার ব্যক্তিগত প্রশিক্ষক। ১৬ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা দিয়ে আপনি আপনার ব্যায়ামের ছবি তুলতে পারবেন। আপনি যদি স্যামসাংয়ের স্পোর্টি ফোন বিক্রি করতে চান, তবে এর বিজ্ঞাপনে উল্লখ করবেন যে এই ফোনটি আপনাকে সুস্থ সবল রাখতে সহায়তা করেছে!
গ্যালাক্সি এস ৫ অ্যাক্টিভ। এস ৫ অ্যাক্টিভ-এর অবস্থান উপরে উল্লেখিত স্পোর্টের চাইতে একটু উপরে। যারা খেলাধুলা, ফিটনেস ও স্বাস্থ্যরক্ষার ব্যাপারে সচেতন তাঁদের জন্য তৈরি করা এই ফোনে অ্যাডভেঞ্চার বান্ধব অ্যাপস যেমন, কম্পাস, ম্যাপ এবং ডিরেকশনাল ইন্সট্রাকশন সবকিছু স্বয়ংক্রিয়ভাবে চালু হয়, তাই আপনি সহজে হারিয়ে যেতে পারবেন না! এই ফোনের বিজ্ঞাপনটি আপনি ফিটনেস সরঞ্জামের অংশে দেবেন যাতে অনেক বেশী ক্রেতা আগ্রহী হন।
গ্যালাক্সি কে জুম। আপনি যদি ২০১৪ সালের কোনো গ্যালাক্সি ফোন খুঁজে থাকেন যার ক্যামেরা যে কোনো যোগাযোগ মাধ্যমের মতো হবে, তবে এটিই হতে পারে আপনার প্রথম পছন্দ। ২০.৭ মেগাপিক্সেল বি এস আই (BSI) ক্যামেরা সাধারণ স্মার্টফোনের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ শক্তিশালী এবং এতে দুইটি মাইক্রোপ্রসেসর রয়েছে। সমালোচকরা বলেন যে জেনন ফ্ল্যাশ এবং আই এস পি চিপ অন্যান্য অ্যানড্রয়েড ফোনের চাইতে ভালো এবং স্পষ্ট ক্লোজ আপ ছবি তোলার জন্য এর ১০X অপটিক্যাল জুম রয়েছে। আপনি বিক্রি করলে ফ্যাশন সচেতন মহিলাদের গ্যালাক্সি কে কিনতে পরামর্শ দিন; এই ফোনটি এতটাই পাতলা যে আঁটসাঁট পোশাকেওফোনের আকার বোঝা যায় না।
গ্যালাক্সি এস ৫। যদি কোনো মোবাইলের “ফ্ল্যাগশিপ” থাকতে পারে তবে এস ৫ তার যোগ্য। আলট্রা পাওয়ার সেভিং মোডে এটি ফিচার বন্ধ করার জন্য সাদা কালো হয়ে যায়, দ্রুততর ক্যামেরা অটোফোকাস, ১৬ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং তামাটে, ইলেকট্রিক ব্লু, চকচকে সাদা, এবং কাঠ কয়লার মতো সম্পুর্ণ ভিন্ন ধরনের রঙের এই স্যামসাং মডেলটি শক্তিশালী এবং আধুনিক, কিন্তু আপনি যদি এর সম্পর্কে কোনো গুজব শুনে থাকেন এবং সেজন্য আপনার এস ৫ টি বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেন, কারণ আপনি হয়তো এমন গুজব শুনছেন যে স্যামসাং তার এস ৬ আবার শুরু থকে তৈরি করছে, কিন্তু তারপরও এই সেটটি অত্যন্ত ভালো মানের।
গুস্তো ৩। আপনি যদি শব্দটির সাথে পরিচিত না হন তবে জেনে রাখুন, “গুস্তো” এর অর্থ আনন্দ, সুখ, এবং উদ্দীপনা এবং আপনার প্রিয় কেনাবেচার ওয়েবসাইট Bikroy.com-এ মোবাইল ফোনের বিক্রি বিভাগে আপনি এই ফোনটি দেখে এরকমটাই অনুভব করবেন। গুস্তো ১ এবং ২ আশানুরূপ ছিল না, কিন্তু এটি তার ওয়ান-টাচ স্পিকারফোন, ফ্লিপ লিড, ১-ইঞ্চি ডিসপ্লে এবং ১.৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা দিয়ে ক্রেতাদের আশা পূরণ করতে সক্ষম হয়েছে। আপনি কি কোনো গুস্তো ৩ বিক্রি করছেন? আপনি উল্লেখ করতে ভুলে যাবেন না যে, পারফর্মেন্সের দিক থেকে গুস্তো ৩ তার পূর্বসূরিদের ছাড়িয়ে গিয়েছে এবং আপনি খুব শীঘ্রই এর নতুন মালিক খুঁজে পাবেন-এতো তাড়াতাড়ি যে এই লেখাটি আরেকবার রিভিউ করে দেখবেন সেটির পরিবর্তে কোন স্যামসাং ফোনটি আপনি কিনতে পারেন!

সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

Comments

comments