কীভাবে বাংলাদেশে পরিবেশ-বান্ধব বাড়ী বানাবেন

Share

বাংলাদেশে আপনার পরিবেশ-বান্ধব বাড়ী বানানোর অর্থ হলো একটি জয়ী-জয়ী অবস্থায় চলে যাওয়া। আপনার ক্ষেত্রে, আপনি বিদ্যুতের বিল বাঁচাতে পারবেন, যা প্রতি মাসের শেষে চমৎকার কিছু কেনাকাটা করার জন্য ব্যয় করতে পারবেন। তবে, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যে বিষয়টি তা হলো, পরিবেশ-বান্ধব বাড়ী বানানোর মাধ্যমে আপনি আপনার পরিবেশের সুরক্ষা করতে পারবেন। পরিবেশ-বান্ধব বাড়ী বানাতে খুব বেশি বিনিয়োগের প্রয়োজন হয় না, কিন্তু এটি এমন একটি জিনিস যার জন্য আপনাকে বেশ সচেতন হতে হবে। বাংলাদেশ আপনার পরিবেশ-বান্ধব বাড়ী বানানোর জন্য কিছু পরামর্শ এখানে দেয়া হলো।

পরিবেশ-বান্ধব রং দ্বারা আপনার বাড়ীর বাইরের দিকটি রং করুন

আপনি যদি আপনার বাড়ীর বাইরের দিকটি পরিপাটি করতে চান, তবে সার্বিক দিকটি সম্পন্ন করার জন্য আপনি পরিবেশ-বান্ধব রং ব্যবহার করতে পারেন। পরিবেশ-বান্ধব রং ব্যবহার করা বেশ সহজ, এবং এটি পরিবেশের জন্যও ভালো। যখন আপনি পরিবেশ-বান্ধব রং খুঁজবেন, তখন এমন রং খুঁজবেন যা উদ্বায়ী জৈব যৌগ (VOC) মুক্ত। তার পরিবর্তে শূন্য-VOC সমৃদ্ধ রং ব্যবহার করুন এবং এর মাধ্যমে আপনি পরিবেশের উপকার করতে পারবেন।

আপনার তৈজসপত্র পরিবর্তন করুন

সম্ভবত আপনার বাসার তৈজসপত্র হলো সবচেয়ে বড় ক্ষেত্র যা অর্থ বাঁচানোর সাথে পরিবেশের সুরক্ষার জন্য আপনি পরিবর্তন করতে পারেন। রান্নাঘরে, অন্যান্য চুলার পরিবর্তে আপনি মাইক্রোওয়েভ ওভেন ব্যবহার করতে পারেন, যা বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী। অধিকন্তু, আপনি অধিক বিশুদ্ধ পানির জন্য পানি শোধক (ওয়াটার পিউরিফায়ার) ব্যবহার করতে পারেন। আপনি একটি নতুন রেফ্রিজারেটরও ইন্সটল করতে পারেন, যা আপনার খাবার তদারকির কাজে ব্যবহার করা যাবে, এবং আপনি এর তাপমাত্রা প্রয়োজনমাফিক সমন্বয় করে নিতে পারেন। রেফ্রিজারেটর বা রান্নাঘরের অন্যান্য তৈজসপত্রে বিনিয়োগ ব্যয়বহুল হতে পারে, তবে দীর্ঘ-মেয়াদে তার মূল্য উঠে আসবে, কারণ তখন থেকেই আপনার অর্থ বেঁচে যাওয়া শুরু হবে।

আপনার পানির ব্যবহার তদারকি করুন

আপনি যখন গ্লাসে পানি নেবেন, গোসল করবেন, কাপড়-চোপড় ধৌত করবেন, বা বাসায় অন্য কিছু করবেন যার জন্য পানি দরকার হবে, তখন পানি ব্যবহারে অনেক বেশি সাশ্রয়ী হবেন। যদি প্রতি মাসে আপনি প্রচুর পরিমাণ পানি ব্যবহার করেন, তবে এটি কেবল পরিবেশের জন্যই খারাপ না, বরং এর জন্য আপনাকে অনেক বেশি অর্থ ব্যয় করতে হবে। তার পরিবর্তে, এমন যন্ত্রপাতি এবং পানি শোধক ব্যবহার করুন যা আপনার পানির ব্যবহার তদারকি করতে পারবে।

আকস্মিকভাবে তাপমাত্রা পরিবর্তন থেকে বিরত থাকুন

এটি তীব্র গরম বা শীত যাই হোক না কেনো, আপনার বাসার তাপমাত্রা আকস্মিকভাবে কমানো থেকে বিরত থাকা গুরুত্বপূর্ণ। যখন বাসা বা এপার্টমেন্টের ভেতরের তাপমাত্রা একটি আরামদায়ক অবস্থায় নিয়ে আসার প্রয়োজন হয়, তখন আপনি যদি থার্মোস্ট্যাটটিকে স্পর্শ না করেন, তবে এই অবস্থায় নিয়ে আসতে তাকে অনেক কাজ করতে হয়। তার পরিবর্তে, সবকিছু সারা বছর একটি সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসতে আপনার সর্বোচ্চ চেষ্টা করুন এবং আপনি প্রতি মাসে দেখতে পাবেন যে আপনার বিদ্যুৎ বিল কমে আসছে।

আপনার বিদ্যুৎ বাল্বগুলো পরিবর্তন করুন

আপনার বাসাকে অনেক বেশি পরিবেশ-বান্ধব করার সবচেয়ে সহজ উপায় হলো বিদ্যুৎ বাল্বগুলো পরিবর্তন করা। বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী বাল্বে পরিবর্তন করার মাধ্যমে কেবল অল্প বিদ্যুতই ব্যবহার হবে না, বরং সেগুলো বেশি দিন টিকবেও। এর অর্থ হলো, আপনি স্বল্প-মেয়াদ এবং দীর্ঘ-মেয়াদে অর্থ বাঁচাতে পারবেন।

মেঝের জন্য বাঁশ ব্যবহার করুন

আপনি যদি আপনার বাসার মেঝে পরিবর্তন করতে ইচ্ছুক হোন, তবে মেঝের জন্য হার্ডউড ব্যবহার করা একটি চমৎকার পদ্ধতি। তবে কাঠের সার-অংশ বা ওক কাঠ ব্যবহার অনেক বেশি ব্যয়বহুল, এবং পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর। তার পরিবর্তে, বাঁশ একটি চমৎকার বিকল্প, যা দেখতে চমৎকার এবং আপনার বাসা যতদিন থাকবে এটিও ততদিন টিকবে। এবং যেহেতু বাঁশ বড় গাছের তুলনায় অনেক তাড়াতাড়ি বৃদ্ধি পায়, তাই পরিবেশের উপর আপনার ক্ষতিকর প্রভাবও অনেক কমে আসবে।

আপনার বাগানকে অনেক বেশি সবুজ করুন

আপনার বাড়ীর চারপাশ অনেক বেশি পরিবেশ-বান্ধব করতে পারলে তা আপনার বাড়ীর ভেতরের জিনিসের মতোই পরিবেশের জন্য উপকারী হবে। উদাহরণস্বরূপ, সবুজ ঘাস সমৃদ্ধ একটি চমৎকার লন সার্বিকভাবে একটি শীতল তাপমাত্রা দেবে। উপরন্তু, আপনি বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী পানি ছিটানোর ব্যবস্থা করতে পারেন যা প্রতিবার অনেক বেশি পানি ব্যবহার না করেই আপনার ঘাসগুলোকে সবুজ রাখতে সহায়তা করবে।

প্লাস্টিকের ব্যবহার কমিয়ে দিন

বাসার তৈজসপত্র না কিনে প্লাস্টিকের থালাবাসন এবং কাপ কেনা অনেক বেশি সহজ, কিন্তু তা পরিবেশের জন্য ভালো নয়। যদিও কিছুটা ব্যয়বহুল, তথাপি ফ্ল্যাটওয়ার এবং সিলভারের জিনিসপত্র ব্যবহার করুন, যা বিভিন্ন সময় পুনব্যবহার করা যাবে। প্লাস্টিক ছুড়ে ফেলে দেয়া সহজ, তবে পরিবেশের পক্ষে তা নষ্ট করা অনেক বেশি কষ্টকর।

পরিষ্কার করার জন্য পরিবেশ-বান্ধব পণ্য ব্যবহার করুন

যখন আপনার বাসার বা এপার্টমেন্টের মেঝে, কাউন্টারের উপরের অংশ, মাইক্রোওয়েব ওভেন, রেফ্রিজারেটর, বা অন্য কোনো তৈজসপত্র পরিষ্কার করবেন, তখন অবশ্যই পরিবেশ-বান্ধব জিনিস ব্যবহার করুন। এই পণ্যগুলোর মাধ্যমে আপনার রান্নাঘরের তৈজসপত্র ব্যবহার করা যেমন নিরাপদ, তেমনি এগুলো পরিবেশের জন্যও কম ক্ষতিকর। যদিও পরিবেশ-বান্ধব এসব পণ্য কিছুটা ব্যয়বহুল, তবে পরিবেশের উপর একটি দীর্ঘস্থায়ী ইতিবাচক প্রভাবের জন্য এটি অবশ্যই অনেক বেশি ভালো।

অল্প কাগজ ব্যবহার করুন

চূড়ান্তভাবে, যেসকল বাসা এবং এপার্টমেন্টে অল্প কাগজ ব্যবহার করা হয়, সেগুলো অনেক বেশি অর্থ সাশ্রয় করতে পারে এবং পরিবেশকেও সহায়তা করতে পারে। আপনি হয়তো এমন একটি পরিবারে বাস করছেন যেখানে একে অন্যের জন্য নোট রাখতে কাগজ ব্যবহার করেন এবং অবশেষে এই কাগজগুলো সারা বাসায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখেন; এটি একদিকে যেমন খরচ বাড়ায়, তেমনি পরিবেশের জন্যও ক্ষতিকর। তার পরিবর্তে, যেহেতু আমরা প্রযুক্তির যুগে বাস করছি, তাই আপনার সন্তানকে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস মনে করিয়ে দেয়ার জন্য ইমেইল বা ক্ষুদে বার্তা পাঠাতে পারেন। এটি কেবল আপনার কাগজ সাশ্রয়ই করবে না, বরং তা প্রতি মাসে আবর্জনা সরানোর খরচও কমিয়ে আনবে।

বাংলাদেশে আপনার বাসা সবুজভাবে তৈরি করা এবং পরিবেশ-বান্ধব হিসেবে গড়ে তোলা সকলের জন্যই মঙ্গলজনক। আপনি এবং আপনার পরিবারের জন্য আপনি অনেক বেশি আরামদায়ক পরিবেশ নিশ্চিত করতে পারবেন, এবং তার পাশাপাশি প্রতিমাসে বিভিন্ন খাতে অনেক বেশি খরচ বাঁচাতে পারবেন। তবে, আপনি আপনার পরিবেশ এবং চারপাশের বিভিন্ন বস্তুর উপর একটি ইতিবাচক প্রভাব রাখতে পারাও সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। যদি আপনি পরিবেশ-বান্ধব হতে চান, তবে আপনার বাসা বা এপার্টমেন্টের জন্য এই তালিকায় বর্ণিত বিকল্পগুলো বিবেচনা করতে পারেন।

সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

Comments

comments