নৌকা চালাতে নিরাপত্তা বিষয়ক টিপস

Share

নৌকা চালানো অনেক আনন্দদায়ক হতে পারে। স্বাস্থ্যের জন্যেও এটা অনেক ভালো। যাই হোক পানিতে নামার আগে নিরাপত্তার জন্য কিছু বিষয় আছে যা আপনার অবশ্যই অনুসরন করতে হবে।  বাংলাদেশে অতিরিক্ত নৌকা এবং সরু যাতায়াত ব্যবস্থা হওয়ায় নৌকা চালাতে নিরাপত্তা টিপস এবং প্রটোকল সাথে রাখাটা খুবই জরুরী। মনে রাখতে হবে যে বেপরোয়াভাবে নৌকা চালানো মারাতœক দুর্ঘটনা এবং জখমের কারন হতে পারে।

গুণটানা নৌকা ব্যবহার করুনঃ

নির্ভরযোগ্য কোনো গুণটানা নৌকা অনেক সুবিধাজনক হতে পারে। বিভিন্ন কারনে নৌকা অকার্যকর হতে পারে। এমন কি আপনি যদি পেশাদার নৌকাচালকও হন যে নৌকার বেশিরভাগ টেকনিক্যাল সমস্যাগুলোই বুঝতে পারেন তারপরও হয়তো আপনি সবসময় সমস্যা তাৎক্ষনিকভাবে নাও বুঝতে পারেন। এরকম আরো অনেক ঘটনা ঘটতে পারে যেখানে গুণটানা নৌকা সুবিধাজনক হবে। উদাহরণস্বরূপ, আপনার জ্বালানি ফুরিয়ে যেতে পারে। নির্ভরযোগ্য কোন গুণটানা নৌকা আপনাকে ২৪ ঘন্টাই নিরাপত্তা দিবে উপযুক্ত পারিশ্রমিক এ। এর সাথে আপনি জরুরী অবস্থায় আপনি রোডসাইটে বিভিন্ন সেবা দিতে ব্যাবস্থ্ওা পাবেন।

লাইফ জ্যাকেট সাপোর্টঃ
লাইফ জ্যাকেট ছাড়া কখনোই নৌকায় উঠা উচিৎ না। হিসাব অনুযায়ী , ২০১২ তে ডুবে যাওয়া নৌকা চালাকদের ভেতর ৮৫ শতাংশর’ই ডুবে যাওয়ার কারন ছিল লাইফ জ্যাকেট ব্যাবহার না করা। আপনার সাথে যদি শিশুরাও থাকে তাহলে নিশ্চিত হয়ে নিন তাদের জ্যাকেটগুলো ঠিকমতো পড়ানো হয়েছে।  ম্যানুয়ালের নির্দেশনা অনুযায়ী সঠিকভাবে জ্যাকেট পড়ার নিয়ম শিখে নিন।

সিপিআর- (কার্ডিয় পালমোনারি রিসাসিটেশন) শিখে নিনঃ
কার্ডিয় পালমোনারি রিসাসিটেশন হল অত্যন্ত কার্যকরী জীবন বাঁচানোর প্রক্রিয়া, যা প্রত্যেক নৌকা চালকদের দক্ষতার সাখে করা শিখতে হয়। ইন্টারনেটে সঠিকভাবে সিপিআর পরিচালনা করার অনেক তথ্য রয়েছে। মনে রাখবেন সময়মতো সিপিআর করতে পারলে জীবন বাঁচানো সম্ভব।

আবহাওয়া সমপর্কে নিয়মিত আপডেট রাখাঃ
পেশাগত নৌকাচালকরা সবসময় আবহাওয়া সম্পর্কে আপডেটেড থাকে। আবহাওয়ার সাথে সাথে আকাশের অবস্থা এবং বাতাসের গতিবিধি সম্পর্কে জেনে রাখাটাও অনেক সহায়ক। আবহাওয়া সম্পর্কে তাৎক্ষনিক আপডেট দেওয়ার জন্য অনেক ধরনের যন্ত্র পাওয়া যায়। কালো মেঘ আর প্রবল বাতাস শুরু হলে নৌকা নিয়ে না বের হওয়াই ভালো।

সাধারন জ্ঞান দিয়ে সবকিচু বিচার করাঃ
নিরাপত্তার জন্য মূল যে বিষয়গুলো সেগুলো মনে রাখতে হবে।  অনুমোদিত গতির অতিরিক্ত গতিতে কখনোই নৌকা চালানো উচিৎ না।  বড় জাহাজ থেকে নিরাপদ দূরত্বে থাকতে হবে। নেভিগেশনাল সাহায্যের প্রতি সম্মান দেখাতে হবে। যেমন, বয়া; আপনার সেফটির জন্যই তারা রয়েছে।

টিম তৈরি করাঃ
ভালোভাবে নৌকা চালাতে আপনি নৌকা চালানোর ব্যাপারে উৎসাহিদের গ্রুপের সাথে যোগ দিতে পারেন। এর ফলে শুধুমাত্র উল্লেখযোগ্য পরিমানে টাকা বাচঁবে তাই  নয়  সেই সাথে আপনার যাত্রা হবে নিরাপদ আর আনন্দদায়ক। আপনি সেই সাথে সাহায্য করার মতো লোকও পাচ্ছেন যাদের সাথে দ্বায়িত্বও ভাগাভাগি করতে পারবেন। একজন  সহকারী ক্যাপ্টেনও সাথে নিন যিনি আপনার বিশ্রামের সময়ে নৌকা চালাতে পারবে।

একটি ফ্লোট পরিকল্পনা করুনঃ
নৌকায় ভ্রমনের সময়, যাত্রী সংখ্যা, নৌকার রেজিস্ট্রেমন নম্বর, স্কিপারের ফোন নম্বর, যোগাযোগের সরঞ্জামাদিসহ একটি ফ্লোট পরিকল্পনা করুন।

আপনার ফ্লোট পরিকল্পনা শেয়ার করুনঃ
আপনার ফ্লোট পরিকল্পনা কোনো বন্ধু অথবা পরিবারের সাথে শেয়ার করুন। আপনি অনলাইনে সোস্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেও আপনার পরিকল্পনা শেয়ার করতে পারবেন। এর ফলে আপনি অন্যান্য নৌকা ভ্রমনকারীদের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন এবং আপনার অভিজ্ঞতা তাদের সাথে শেয়া করতে পারবেন।

সাতারে দক্ষ হনঃ
আপনি যদি সাতারু হয়ে থাকেন, তাহলে সম্ভবত আপনি অনেক বেশি ব্যস্ত। পেশাদার নৌকা চালকরা সাধারনত অনেক ভালো সাতারুও হয়ে থাকে, তারা তাদের সেই সাতারের দক্ষতার উপর বিশ্বাস রাখে এবং বিপদে নিজেকে এবং অন্যদের উদ্ধার করতে পারে।

বোটিং  কোর্সে সাইন আপ করুনঃ
নৌকা চালানোর কোর্স হচ্ছে দ্রুততম মাধ্যম যার সাহায্যে আপনি নৌকা চালানোর মৌলিক বিষয় গুলোর সাথে নিজেকে গুছিয়ে নিতে পারবেন এবং একজন পেশাগত নৌকাচালকের মতো হতে পারবেন। পানিতে নিরাপদ থাকতে ব্যবহৃত সরঞ্জামাদির ব্যাপারে এটি আপনাকে নির্দেশনা দিবে। এছাড়াও আপনি অনলাইন বোট সেইফটি কোর্সে সাইন আপ করতে পারেন।

আপনার ফেরি পরীক্ষা করে নিনঃ
ভালোভাবে পরীক্ষা করা ফেরি অনেক সুবিধাজনক। ফেরি চেক-আপ এর চার্জ  নির্ভর করবে আপনার স্থানীয় এলাকার উপর। নৌযান এর চেক-আপে সাধারনত সেটির বাহ্যিক অবস্থা, মোটর এবং ব্যাটারি ঠিক আছে কি না এগুলোই দেখে।

মানসম্পন্ন ফেরি খুঁজে বের করুনঃ
এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি কেনার সময় একটু সর্তক না হোন তবে দেখা যাবে পরবর্তিতে অনেক সমস্যায় পড়তে হচ্ছে এবং আপনার ভ্রমনের আনন্দে ব্যাঘাত ঘটছে। নৌকার বিজ্ঞাপনগুলোতে বিক্রির জন্য বিভিন্ন ধরনের নৌকা দেখতে পারেন। আপনার কি ধরনের নৌকা প্রয়োজন সে ব্যাপারে নিশ্চিত হোন। উদাহরণস্বরুপ আপনার যদি মাছ ধরার নৌকা প্রয়োজন হয় তবে তাহলে আপনি এ ধরনের  নৌকা দেখতে পারেন। একইভাবে, কোনো দাড় টানা নৌকা যদি বেশি উপযোগী হয় তবে আপনি এটাও ঠিক করতে পারেন কেনার জন্য। বিজ্ঞাপনে বিভিন্ন ধরনের নৌকা দেখে নিন। দাম এবং মানের সাথে মিলে এমন নৌকা বাছাই করুন। ভালোভাবে এটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নিন। আপনি যদি এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ না হোন তবে আপনার সাথে এমন কাউকে নিন।  রেজিস্ট্রেশনের কাগজ-পত্র পরীক্ষা করে নিন এবং সেইসাথে এর মালিকের হিস্টরি ও জেনে নিন। ভালো হয় যদি আপনি ভালোভাবে রক্ষনা-বেক্ষন করা হয়েছে  এবং এর আগে শুধুমাত্র একজন মালিকের কাছে ছিল এমন নৌকা খোঁজ করা।

বাচ্চাদের সাথে নিয়ে নৌকা চালানোঃ
বাচ্চাদের সাথে নিয়ে নৌকা চালানোটা অনেক বেশি আনন্দের হতে পারে। তাদেরকে নিরাপদ রাখতে আপনাকে কিছু অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। বাচ্চাদের নৌকা চালানোর ব্যাপরে বিভিন্ন প্রয়োজনীয় শিক্ষা দিন এবয় তাদেরকে বিভিন্ন দায়িত্ব ভাগ করে দিন। সূর্য় থেকে বাচ্চাদের সুরক্ষা দিতে কিছু জায়গা রাখুন। তাদেরকে বাঁশি দিন এবং কোনো ধরনের সাহায্যের জন্য সেটি বাজানোর জন্য বলুন।

প্রি-ডিপার্চার চেকলিস্টঃ
সেইফটি ইন্সট্রাকশনের ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নাই। সেই সাথে সবসময় সর্ম্পূন নিরাপত্তা ব্যবস্থার বিষয়গুলো মনে রাখাও কঠিন ।  দ্বিধা দূর করতে এবং পানিতে পড়ে যাওয়া থেকে বিরত থাকতে নিয়ম-কানুন এবং সতর্কতা সম্বলিত একটি চেকলিস্ট তৈরি করুন। এটি নৌকা ভ্রমনের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

নিজস্ব ভাসমান সরঞ্জামঃ
প্রত্যেক যাত্রীকে একটি ভেসে খাতার সরঞ্জাম সাখে রাখা উচিত যেটি স্থানীয় কোস্ট গার্ড দ্বারা অনুমোদিত। আপনার সাথে ভ্রমনে বের হওয়া অন্যান্য যাত্রীদেরও এটি কিভাবে ব্যবহার করতে হয় তা শিখান।

সাউন্ড প্রডিউসিং সরঞ্জামঃ
এটি অন্যান্য নৌযানকে আপনার অবস্থান সম্পর্কে সতর্ক করবে। আপনার যদি নিজস্ব হর্ন না থাকে তবে পোর্টেবল হর্ন্ও নিতে পারে।
লাইট

আপনার নৌকার নেভিগেশন লাইট চেক করুন। অতিরিক্ত ব্যাটারির সাথে একটি ফ্লাসলাইটও নিয়ে নিন।

সর্তকতামূলক সিগন্যালঃ
সর্তকতামূলক সিগন্যাল যেমন মশাল সাথে নিন। এটি কিভাবে ব্যবহার করতে হয় আপনাকে সেট্ওি অবশ্যই জানতে হবে। অন্যান্যদেরও এটির ব্যবহার করে দেখান।

টুলবক্সঃ
নৌকার টুলবক্সে প্রয়েজনীয় সব সরঞ্জাম আছে নাকি সে ব্যাপরে নিশ্চিত হন। অন্যান্য অতিরিক্ত জিনিস যেমন বালব ফিল্টার এবং প্লাগও সাথে রাখুন।

জ্বালানিঃ
ট্যাঙ্ক পুরোপুরি ভরে নিন। কুল্যান্ট এবং ইঞ্জিন নিয়মিত চেক করুন।

অগ্নি নির্বাপকঃ
নৌকায় অগ্নি নির্বাপক রাখুন। সবাইকে এটি কিভাবে ব্যবহার করতে হয় সেটি শেখান।

নোঙরঃ
অন্তত একটি নোঙর সাথে রাখুন যা সঠিক স্থানে ঝুলানো থাকে।

কাগজপত্রঃ
ভ্রমনের আগে প্রয়োজনীয় সব ধরনের কাগজ যেমন, নৌকার কাগজপত্র, মাছ ধরার অনুমোদন এবং রেড্ওি লাইসেন্স সাথে নিন।

সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

Comments

comments