বাংলাদেশের শীর্ষ ৫ সনি মোবাইল ফোন

Share

সনি অনেকদিন ধরেই ভোগ্য ইলেকট্রনিক পণ্য নির্মাতাদের মধ্যে অন্যতম হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে, এবং বাংলাদেশি ক্রেতাদের কাছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটির মোবাইল ফোনের গ্রহণযোগ্যতা বিশ্বের সেরা চাঞ্চল্যকর ঘটনাগুলোর মধ্যে একটি। যদিও কিছু কিছু সনি ফোন অনেক দামী, তবে চমৎকার প্রযুক্তি এবং ৩জি সংযোগ উপভোগ করা, আকর্ষণীয় ছবি তোলা, কিংবা বন্ধুবান্ধব ও পরিবারের সদ্যদেরকে দ্রুত খুদেবার্তা পাঠানো বা কল করার মত নজরকাড়া সব বৈশিষ্ট্য নিয়ে স্থানীয় ক্রেতাদের কাছে সুলভ এক্সপেরিয়া স্মার্টফোন বেশ ভাল অবস্থান রয়েছে।

১. সনি এক্সপেরিয়া ইউ (Sony Xperia U)
বাংলাদেশের মত দেশের সীমিত সামর্থ্যের ক্রেতাদের চাহিদা মেটাতেই নির্মাতাপ্রতিষ্ঠানটি সনি এক্সপেরিয়া ইউ তৈরী করেছে। একারণেই ফোনটি বড় পর্দা, ৪জি টেলিসংযোগ এবং অ্যান্ডরয়েড অপারেটিং সিস্টেমের অধিকতর উন্নত সংস্করণের প্রসেসর ডিজাইন- এসবের মত সব অপ্রয়োজনীয় অতিরিক্ত বৈশিষ্ট্যগুলো বাদ দিয়েছে। আইফোন-৫ এর আগের সকল আইফোনের মত ঠিক একইমাপের ৩.৫ ইঞ্চি পর্দা নিয়ে কম্প্যাক্ট সনি এক্সপেরিয়া ইউ স্মার্টফোনটি বাজারে এসেছে। ক্রেতাদেরকে ওয়েবসাইট লোড করার জন্য এবং উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন মিডিয়াতে যুক্ত হওয়ার জন্য ডিভাইসটির রয়েছে ইউএমটিএস ৩জি ব্যান্ড কানেকটিভিটি যা বর্তমানে বাংলাদেশের মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলি ব্যবহার করে।
এক্সপেরিয়া ইউ অ্যান্ডরয়েড ২.৩ জিঞ্জারব্রেড সহ এসেছে, যা প্রকৃতপক্ষে অ্যান্ডরয়েড মোবাইল অপারেটিং সিস্টেমের সাম্প্রতিক সংস্করণও নয়। তাছাড়াও, ৩জি নেটওয়ার্কের আওতায় সক্রিয় করা মাত্রি ক্রেতারা ইচ্ছা করলে ফোনটিকে অ্যান্ডরয়েড ৪.০ আইসক্রিম স্যান্ডউইচেও উন্নীত করতে পারবেন। সঙ্গে থাকা ৮ জিবি অভ্যন্তরীণ মেমোরিতে মোবাইল এপ্লিকেশন, ছবি ও ভিডিও রাখার জন্য প্রচুর জায়গা পাওয়া যাবে আর ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার সাহায্যে ছবি আর ভিডিওর তুলনামূলক উচ্চমান নিশ্চিত করা হয়েছে।

২. সনি এক্সপেরিয়া সি (Sony Xperia C)
সনি এক্সপেরিয়া সি হচ্ছে পুর্বে উল্লিখিত এক্সপেরিয়া ইউ ফোন এর উপর চিন্তাভাবনা করে বের করা ব্যপক উন্নত এক সংস্করণ আর এটা আক্ষরিক অর্থেই একটি স্মার্টফোন। এক্সপেরিয়া সি তে পূর্ণ ৫ ইঞ্চির উন্নত পর্দা সংযোজিত হয়েছে। সেটা প্রায় স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট এর মতো বড় এবং এর অর্থ হলো স্মার্টফোন অ্যাপ্লিকেশন এবং ট্যাবলেট স্টাইল অ্যাপস উভয়ের জন্যই ব্যবহার করা যেতে পারে, যা আরো বিস্তৃত ব্যবহারের সুবিধা দিতে পারে। ফোনটিতে অ্যান্ডরয়েড ৪.০ ভার্সন রয়েছে, যার কোডনেম হলো “আইসক্রিম স্যান্ডউইচ”। বাংলাদেশ জুড়ে সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করার জন্য ২জি এজ নেটওয়ার্ক এবং ৩জি এইচএসডিপিএ নেটওয়ার্ক, যে কোনো এক ধরনের সিগন্যাল থাকলেই হলো, উভয়টিইতেই ফোনটি সংযুক্ত হতে পারে।
এক্সপেরিয়া সি’র ক্যামেরাকে এক্সপেরিয়া ইউ এর ক্যামেরা থেকে লক্ষ্যণীয় রকমের উন্নত করা হয়েছে, যেখানে রয়েছে ৮-মেগাপিক্সেল ক্যামেরা, যা গাতনুগতিক মোবাইলের ছবিগুলোর চাইতে অধিক টেক্সচার এবং উজ্জ্বলতর রঙ প্রদর্শন করে। ভিডিও গ্রহণের সময় কম্পনজনিত বিভ্রম দূর করার জন্য এর বিল্টইন স্থিতি বজায়কারক যন্ত্রাংশ সহ, বিল্টইন ক্যামেরার ভিডিও যন্ত্রাংশগুলো ১০৮০পি বৈশিষ্টপূর্ণ এইচডি ভিডিও সমর্থন করে। ৪.০ ব্লুটুথ সমর্থন করার মাধ্যমে অল্প-শক্তি খরচ করেই এই ফোনটি নিকটস্থ যন্ত্রাংশের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে পারে, যা বিল্টইন ব্যাটারির আয়ু বাড়ায়।

৩. সনি এক্সপেরিয়া জে (Sony Xperia J)
যেসব ক্রেতা ৩.৫ ইঞ্চি আর ৫ ইঞ্চি পর্দার মাঝামাঝি একটি নিখুঁত সমন্বয় খুঁজছেন তাদের জন্য এক্সপেরিয় জে হলো একটি আদর্শ মডেল। এই স্মার্টফোনটির রয়েছে ৪-ইঞ্চি পর্দা, যা নেক্সাস এস আর আইফোন ৫ এর সমান মাপের। বাংলাদেশের ক্রেতাদের কাছে লভ্য সব ধরনের মোবাইল-নেটওয়ার্কের সাথে সমন্বয় সাধন করার জন্য ডিভাইসটি ভিন্ন ভিন্ন দুইটি মডেলের একটিতে ২জি এজ এবং অন্যটিতে ৩জি এইচএসডিপিএ কম্প্যাটিবিলিটির বৈশিষ্ট্য ধারণ করে। চমৎকার মানসম্পন্ন ছবির জন্য এটাতে ৫-মেগাপিক্সেল ক্যামেরা রয়েছে এবং এতে ভিজিএ রেজুলেশনে ভিডিও ধারণ করা যায়।
একটিভেশনের সময় এক্সপেরিয়া জে ফোনটি অ্যান্ডরয়েড ৪.০.৪, এবং আইসক্রিম স্যান্ডউইচ ঘরানার আংশিক বৈশিষ্ট্য ধারণ করে, যদিও ৩জি ডাটা নেটওয়ার্কে অথবা তারহীন ইন্টারনেট সিগন্যালের আওতায় ক্রেতারা ফোনটিকে অ্যান্ডরয়েড ৪.১ জেলিবিন এ উন্নীত করতে পারবেন। ফোনটি সনির টাইমস্পেস ইন্টারফেস ব্যবহার করে এবং এতে ব্রাভিয়া ডিসপ্লে বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা প্রতিটি এপ্লিকেশনের রঙ এবং টেক্সচারকে বৃদ্ধি করে। এর ব্লুটুথ সংযোগ আদর্শমানের যাতে প্রয়োজনের সময় সহজেই গাড়ী, ল্যাপটপ কিংবা অন্যান্য ফোনের সাথে সংযু্ক্ত করা যায়।

৪. সনি এক্সপেরিয়া জেডআর (Sony Xperia ZR)
যদিও অনেক ক্রেতাই তাদের সামর্থের মধ্যে স্মার্ট ফোন খোজেঁন, তারপরও বাজারে চলতি সর্বশেষ বৈশিষ্ট্যযুক্ত এবং পরবর্তী প্রজন্মের সাথে সংযোগ পাওয়ার মতো হাই-এন্ড মডেলেরও কিছু চাহিদা অবশ্যই রয়েছে। এসব ক্ষেত্রেই বাংলাদেশের ক্রেতাদের জন্য হাই-এন্ড সনি এক্সপেরিয়া সত্যিই আশাতীত রকমের হয়েছে। দারুণ উদ্ভাবনী এই স্মার্টফোনটিতে বিশাল সংখ্যক রেডিও ব্যান্ড সংযুক্ত আছে, যা উপলভ্য ২জি সিগনাল, ৩জি এইচএসডিপিএ নেটওয়ার্ক এবং নেক্সট-জেনারেশন ৪জি টেল ডাটা সিগন্যাল গ্রহণ করে। এর অর্থ হলো, একটি আদর্শ স্থানে, ফোনটি এই নিবন্ধে উল্লিখিত মডেলগুলোর যে কোনোটির চাইতে অধিকতর দ্রুত গতিতে ডাটা ডাউনলোড ও আপলোড করতে পারে।
৪জি টেল ডাটা নেটওয়ার্ক গ্রহণক্ষমতার পাশাপাশি এক্সপেরিয়া জেডআর-এ রয়েছে অ্যান্ডরয়েড ভার্সন ৪.১, কোডনেম “জেলিবিন”। অ্যান্ডরয়েড ৪.১ ব্লুটুথ ও নিকটস্থ সংযোগ সমর্থন করে, উভয়টিই জেডআর স্মার্টফোনের আদর্শ বৈশিষ্ট্য। ডিভাইসটিতে যুক্ত আছে ১৩.১-মেগাপিক্সেলের চমৎকার ফটোগ্রাফিক ক্যামেরা যা একটি ছবিকে পূর্ণমাপে দ্বিগুণ দেখাতে পারে, সাথে ১০৮০পি এইচডি ভিডিও ক্যামেরাও আছে। এটার ৪.৫৫ ইঞ্চি ডিসপ্লেটি সহজে এপ্লিকেশন ব্যবহারের সুবিধা প্রদান করে, যা ৮জিবি ইন্টারনাল ফ্লাস মেমোরিতে সংরক্ষণ করা যেতে পারে। এতে সংযুক্ত ২জিবি র‌্যাম, যে কোনো অ্যাপ্লিকেশনকেই দ্রুত চালাতে পারে।

৫. সনি এক্সপেরিয়া জেড১ (Sony Xperia Z1)
এখনো পর্যন্ত যে মডেলটির কথা বলা হয় নি তা হলো সনির সর্বসাম্প্রতিক সেরা উপহার, এক্সপেরিয়া জেড১। এটি আসলে সেইসব লোকদের জন্য যারা সর্বসাম্প্রতিক এবং সেরা প্রযুক্তি চান, এবং কোম্পানীর সেরা জিনিসটাই পেতে ইচ্ছুক। জেড১ অ্যাপস, ছবি, ভিডিও কিংবা অন্যান্য ফাইল রাখার জন্য ১৬জিবি জায়গাসহ এ নিবন্ধের আগের চারটি মডেলের সবকয়টির চাইতে দ্বিগুণ স্টোরেজ দেয়। ৫ ইঞ্চি মাপের পর্দাটিতে উচ্চ ঘনত্বের-পিক্সেলের রেজুলেশন রয়েছে, যা টেক্সট পড়াকে এবং অ্যাপ্লিকেশন চালানোকে সহজতর করেছে। এতে সংযুক্ত ২০-মেগাপিক্সলের ক্যামেরাটি বাজারে প্রচলিত যেকোনো নির্মাতাদের ক্যামেরাগুলোর মধ্যে অন্যতম।
উপযুক্ত সিগন্যাল উপলভ্য থাকলে এক্সপেরিয়া জেডআর এর মতই, জেড১ ২জি, ৩জি এবং ৪জি টেল নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত হতে সক্ষম। এটা অ্যান্ডরয়েড ৪.১ “জেলিবিন” এর সাহায্যে চলে কিন্তু এটা সক্রিয় হওয়ার পর এবং মোবাইল অথবা তারহীন ইন্টারনেট সংযোগ-এর যে কোনো একটি পাওয়ার পর অপারেটিং সিস্টেমের সর্বশেষ সংস্করণে উন্নীত করানো যেতে পারে। একটি দ্রুতগতির প্রসেসর ও কয়েক গিগাবাইটের কম্প্যাক্ট র‌্যাম এর সাহায্যে এর শক্তিশালী কর্মক্ষমতাকে বৃদ্ধি করা হয়েছে।

বাংলাদেশের সকল স্তরের ক্রেতার জন্য দারুণ সব সনি স্মার্টফোন
যেসব ক্রেতা সনির পণ্য পছন্দ করেন এবং সর্বশেষ অ্যান্ডরয়েড অপারেটিং সিস্টেমটি চান, বাংলাদেশে তাঁদের জন্য বাছাই করার মত চমৎকার সব বিকল্প রয়েছে। ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে এক্সপেরিয়া ইউ সহ অপেক্ষাকৃত ছোট আর পাতলা আকৃতির অথবা হাই-এন্ড জেড১ ও জেডআর মডেল, যা-ই হোক না কেন মোবাইল ফোন ক্রেতারা তাঁদের নিজ নিজ প্রয়োজন, বৈশিষ্ট্য ও দামের মধ্যে উপযুক্ত সঠিক সনি মোবাইল ফোনটি সহজেই খুজেঁ পেতে পারেন।

সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

Comments

comments