ইয়ামাহা মোটরবাইক : এ বছরের সেরা মডেলগুলো

এ বছরের সেরা ইয়ামাহা মোটরবাইক মডেলগুলো
Share

প্রায় ৬০ বছরেরও আগে যাত্রা শুরু করা ইয়ামাহা এখন মোটরবাইকের জগতে অন্যতম বিখ্যাত একটি ব্র্যান্ড। বাংলাদেশে হোন্ডা ও সুজুকির পাশাপাশি জনপ্রিয় মোটরবাইকগুলোর তালিকায় ইয়ামাহার অবস্থান বেশ উপরে। গ্রাহক চাহিদা মেটাতে তারা তাদের কালেকশনের বাইকগুলোর আরো নতুন, স্টাইলিশ ও আধুনিক  ভার্সন বের করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে অবিরাম।

আজকে আমরা দেখব ২০১৯ সালে মার্কেট কাঁপানো কিছু লেটেস্ট ও জনপ্রিয় ইয়ামাহা মোটরবাইক ও তাদের স্পেসিফিকেশন।

আজকের স্পেশাল মডেলগুলোর নাম নিচে উল্লেখ করা হলো-

  • ইয়ামাহা ওয়াইজেডএফ আর১৫ ভি৩ ডুয়াল এবিএস
  • ইয়ামাহা এমটি-১৫
  • ইয়ামাহা জাবরে ১৫০
  • ইয়ামাহা এফজেডএস এফআই ভি৩ এবিএস
  • ইয়ামাহা ফেজার এফআই ভি২
  • ইয়ামাহা এফজেডএস এফআই রিয়ার ডিস্ক
  • ইয়ামাহা এসজেড আরআর ভি২
  • ইয়ামাহা রে জেডআর
  • ইয়ামাহা স্যালুটো এস ই

এবার দেখে নেয়া যাক এই মডেলগুলো আপনাদের জন্য কি কি স্পেসিফিকেশন নিয়ে অপেক্ষা করছেঃ

ইয়ামাহা ওয়াইজেডএফ আর১৫ ভি৩ ডুয়াল এবিএস

ইয়ামাহা ওয়াইজেডএফ আর১৫ ভি৩ ডুয়াল এবিএস

মূল স্পেসিফিকেশনঃ

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, এসওএইচসি, ৪ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৫৫ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১৪.২ কিলোওয়াট (১৯.৩ পিএস) @ ১০,০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১৪.৭ নিউটন-মিটার (N-m) (১.৫ কেজিএফ.এম) @ ৮৫০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৩০ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – লিকুইড কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – টিসিআই (ট্রানজিস্টর কন্ট্রোল ইগনিশন)
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক স্টার্ট
  • ট্রান্সমিশন – ৬ স্পিড
  • ক্লাচ – মাল্টি-ডিস্ক ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক ফর্ক টাইপ
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম (লিংক সাসপেনশন)
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট/ব্যাক) – হাইড্রোলিক সিঙ্গেল ডিস্ক (২৮২/২০০ মিমি)

এই বছর কয়েক মাস আগে রিলিজ হওয়া ওয়াইজেডএফ আর১৫ ভি৩ ইয়ামাহার ব্যবসা সফল আর১৫ সিরিজের তৃতীয় প্রজন্মের বাইক। ১৫০ সিসি বাইকের সারিতে এটিই সর্বপ্রথম মোটরবাইক, যাতে রয়েছে ডুয়াল চ্যানেল এবিএস। আর এর থেকেই আমরা পেয়েছি অত্যন্ত দরকারি এক নিরাপত্তা ফাংশন। এই এবিএস প্রযুক্তি রাইডারদের দিবে উচ্চতর নিয়ন্ত্রণের সাথে অসাধারণ পারফর্মেন্স। এমনকি স্পিড বাড়ানোর সময়ও চাকায় কোন রকম লক-আপ ছাড়াই এবিএস আপনাকে দিতে পারে একেবারে নিখুঁত ব্রেকিং।

আর১৫ সিরিজের এই মডেলটি দাপটের সাথে আপনাকে দিচ্ছে দারুণ রকমের সর্বোচ্চ স্পিড এবং ১৯.৩ পিএস এর দুর্দান্ত পাওয়ার। আর তাই ট্র্যাকে বাইক চালানোর অভিজ্ঞতা রাইডাররা পাচ্ছেন নিত্যদিনের রাস্তায়। বাইকটির দাম বাংলাদেশে বর্তমানে ধরা হয়েছে ৪,৮৫,০০০ টাকা।

ইয়ামাহা এমটি-১৫

ইয়ামাহা এমটি-১৫

মূল স্পেসিফিকেশনঃ

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, এসওএইচসি, ৪ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৫৫ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১৪.২ কিলোওয়াট (১৯.৩ পিএস)@ ১০,০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১৪.৭ নিউটন-মিটার (N-m) (১.৫ কেজিএফ.এম) @ ৮৫০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৪৮ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – লিকুইড কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – টিসিআই (ট্রানজিস্টর কন্ট্রোল ইগনিশন)
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক স্টার্ট
  • গিয়ার – ৬
  • ক্লাচ – মাল্টি-ডিস্ক ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক ফর্ক টাইপ
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম (লিংক সাসপেনশন)
  • ব্রেক (ফ্রন্ট) (এবিএস) – হাইড্রোলিক সিঙ্গেল ডিস্ক (২৮২ মিমি)
  • ব্রেক (ব্যাক) – হাইড্রোলিক সিঙ্গেল ডিস্ক (২২০ মিমি)

এমটি গোত্রের এক দারুণ অ্যাডভান্স প্রযুক্তির প্রগতিশীল বাইক ইয়ামাহা এমটি-১৫। ইতিহাসে এই প্রথম একটি হাই পারফর্মেন্স ভিভিএ সিস্টেম ফিচার করা হয়েছে এই বাইকটিতে, যা বেশ কম আরপিএম-এও আপনাদের দিবে উচ্চতর টর্ক বা ঘূর্ণন। মডেলটির চটপটে হ্যান্ডেলিং এবং হালকা ওজনের দুর্দান্ত বডি প্রত্যেক বার রাইডারদের জন্য এক চরম উত্তেজনাকর রাইডিং অভিজ্ঞতা দেয়ার জন্য প্রস্তুত।

এছাড়াও এ মডেলটি অফার করছে ‘এ এন্ড এস’ ক্লাচ সিস্টেম, যা আপনাকে গতি কমানোর সময় চাপের পরিবর্তন দিবে অনেক কম। এছাড়াও এতে রয়েছে একটি ফ্রন্ট ডিস্ক এবং বশ এন্টি-লক ব্রেকিং সিস্টেম (এবিএস)। তাই ভিন্ন ভিন্ন স্পিডে পাওয়া যাচ্ছে আরো ভালো স্থিতিশীলতা ও নিয়ন্ত্রণ, ফলে ব্রেকিং পারফর্মেন্স হয়ে গেছে আরো উন্নত।

বর্তমানে এমটি-১৫ এর বাজার মূল্য বাংলাদেশে ধরা হয়েছে ৪,৩৫,০০০ টাকা।

ইয়ামাহা জাবরে ১৫০ 

ইয়ামাহা জাবরে ১৫০

মূল স্পেসিফিকেশনঃ

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, সিঙ্গেল সিলিন্ডার, এসওএইচসি, ৪ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৪৯ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১৬.০৯ বিএইচপি @ ৮৫০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১৪.৩ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৭৫০০ আরপিএম
  • চূড়ান্ত গতি/ স্পিড – ১৩০ কি.মি. প্রতি ঘন্টা
  • মাইলেজ – ৪০ কি.মি. প্রতি লিটার (আনুমানিক)
  • কুলিং – লিকুইড কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – টিসিআই (ট্রানজিস্টর কন্ট্রোল ইগনিশন)
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক স্টার্ট
  • গিয়ার – ৬ স্পিড
  • ক্লাচ – মাল্টি-প্লেট টাইপ, ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – ৩৭ মিমি আপসাইড ডাউন (ইউএসডি) টেলেস্কোপিক ফর্ক
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম (শক অ্যাবজর্বার)
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট/ব্যাক) – হাইড্রোলিক সিঙ্গেল ডিস্ক

শুরুর দিকে জাবরে ১৫০ মডেলটি মূলত ইন্দোনেশিয়ান মার্কেটের কথা চিন্তা করে রিলিজ করা হয়। এম স্ল্যাজ মডেলের বাইকটির সাথে এর অনেক বেশি মিল। মডেল দু’টি দেখতে প্রায় হুবহু একই কিন্তু এগুলো ভিন্ন ভিন্ন নির্ধারিত এলাকায় পাওয়া যায়।

এই মডেলটিতে একটি ইউএসডি (আপসাইড ডাউন) সাসপেনশন ফিচার করা হয়েছে, যা স্থিতিশীলতা ও হ্যান্ডেলিং অর্থাৎ নিয়ন্ত্রণকে করেছে অনেক উন্নত। জাবরে ১৫০ এর সাথে যে অ্যালুমিনিয়াম রিয়ার আর্ম দেয়া হয়েছে, তা এর বলিষ্ঠ গড়ন এবং নিয়ন্ত্রণের পেছনে মুখ্য ভূমিকা পালন করে। এর ফলে আপনাদের রাইডিং অভিজ্ঞতা হবে আরো বেশি স্বাচ্ছন্দ্যময়।

জাবরে ১৫০ বাইকটির বর্তমান দাম বাংলাদেশে ৪,২০,০০০ টাকা।

ইয়ামাহা এফজেড এফআই ভি৩ এবিএস

ইয়ামাহা এফজেড এফআই ভি৩ এবিএস

মূল স্পেসিফিকেশনঃ

  • ইঞ্জিন টাইপ – সিঙ্গেল সিলিন্ডার
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৪৯ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১৩ বিএইচপি @ ৮০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১৩ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৬০০০ আরপিএম
  • চূড়ান্ত গতি/ স্পিড – ১৩০ কি.মি. প্রতি ঘন্টা
  • মাইলেজ – ৪৫ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – ফুয়েল ইনজেকশন
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক স্টার্ট
  • গিয়ার – ৫
  • ক্লাচ – মাল্টি-ডিস্ক টাইপ, ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক ফর্ক
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট/ব্যাক) – ডিস্ক (২৪২/১৩০ মিমি)

এফজেড এফআই ভি৩ বাইকটিতে অত্যাধুনিক ইয়ামাহা ব্লু কোর প্রযুক্তি নিয়ে আসা হয়েছে, যা রাইডারদের অফার করছে অতুলনীয় পারফর্মেন্স এবং দক্ষতা। এছাড়াও এতে ফিচার করা হয়েছে একদম নতুন ফুয়েল ইনজেকশন (এফআই) ইঞ্জিন, যাতে রয়েছে অ্যাডভান্সড সেন্সর এবং অ্যাকচুয়েটর। এগুলোর কাজ হচ্ছে ইঞ্জিনে হিসাব করে একদম পারফেক্ট পরিমাণ জ্বালানী প্রবেশ করানো। তাই এর পারফর্মেন্স এবং মাইলেজও এক কথায় দুর্দান্ত।

বাইকটির বর্তমান খুচরা মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ২,৯০,০০০ টাকা।

ইয়ামাহা ফেজার এফআই ভি২

ইয়ামাহা ফেজার এফআই ভি২

মূল স্পেসিফিকেশনঃ

  • ইঞ্জিন টাইপ – সিঙ্গেল সিলিন্ডার
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৪৯ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১২.৯ বিএইচপি @ ৮০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১২.৮ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৬০০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৫০ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – ফুয়েল ইনজেকশন
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – সেলফ স্টার্ট
  • গিয়ার – ৫
  • ক্লাচ – মাল্টি-ডিস্ক, ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক
  • ব্যাক সাসপেনশন – মনোক্রস
  • ব্রেক (ফ্রন্ট) – ডিস্ক (২৪২ মিমি)
  • ব্রেক (ব্যাক) – ড্রাম (১৩০ মিমি)

ফেজার এফআই ভি২ বাইকটিতে ইয়ামাহার এফজেড এবং এফজেডএস মডেল দু’টির সাথে মিল রয়েছে। পার্থক্য কেবল এর নতুন ফুয়েল ইনজেকশন প্রযুক্তি, যা মডেলটির পরিশোধন এবং জ্বালানী দক্ষতাকে বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণ।

হাফ ফেয়ারিং থাকায় সামগ্রিকভাবে এই মডেলটিতে একটি আকর্ষণীয় স্পোর্টি আমেজ রয়েছে। এটি এমন একটি ফিচার যা হেড উইন্ড অপসারণ করতে সাহায্য করে। এছাড়াও এর ঊর্ধ্বমুখী সিটিং সিস্টেম নিত্যদিনের ব্যবহারে নিয়ে আসে সর্বোচ্চ আরাম।

বর্তমান এই মোটরবাইকটির দাম বাংলাদেশে  মাত্র ২,৭১,০০০ টাকা।

ইয়ামাহা এফজেডএস এফআই রিয়ার ডিস্ক

ইয়ামাহা এফজেডএস এফআই রিয়ার ডিস্ক

মূল স্পেসিফিকেশনঃ

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, এসওএইচসি, ২ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৪৯ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১৯ বিএইচপি @ ৮০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১২.৮ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৬০০০ আরপিএম
  • চূড়ান্ত গতি/ স্পিড – ১০৯ কি.মি. প্রতি ঘন্টা
  • মাইলেজ – ৪৫ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – ফুয়েল ইনজেকশন
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – সেলফ স্টার্ট
  • গিয়ার – ৫
  • ক্লাচ – মাল্টি-ডিস্ক, ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক ফর্ক
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম
  • ব্রেক (ফ্রন্ট) – ডিস্ক ব্রেক (২৮২ মিমি)
  • ব্রেক (ব্যাক) – ডিস্ক ব্রেক (২২০ মিমি)

বাইকিং এর জগতে নতুন উচ্চতার চিহ্ন হিসেবে এফজেডএস এফআই মডেলটিতে ফিচার করা হয়েছে অত্যাধুনিক ইয়ামাহা ব্লু কোর প্রযুক্তি। একই সাথে এতে রাখা হয়েছে তাদের নতুন ফুয়েল ইনজেকশন সিস্টেম, যার নিখুঁত সেন্সর এবং অ্যাকচুয়েটর বাইকটিতে কার্যকর ভাবে জ্বালানী ব্যবহার সুনিশ্চিত করে।

আরো উন্নত ইঞ্জিন সেটিংস, ফ্রন্ট ডিস্ক এবং এবিএস প্রযুক্তি সাথে নিয়ে ইয়ামাহার এই মডেলটি এক চরম প্রতিক্রিয়াশীল রোডস্টার হয়ে উঠেছে। তাই যেকোনো স্পিডে এতে পাওয়া যাবে আরো ভালো স্থিতিশীলতা এবং নিয়ন্ত্রণ।

ইয়ামাহার মতে এই মডেলটি “নতুন যুগের মাচো স্ট্রিট ফাইটারের প্রতীক”। আর এর বর্তমান খুচরা মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ২,৬৫,০০০ টাকা।

ইয়ামাহা এসজেড আরআর ভি২

ইয়ামাহা এসজেড আরআর ভি২

মূল স্পেসিফিকেশনঃ

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, এসওএইচসি, ২ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৪৯ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১২.১ পিএস @ ৭৫০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১২.৮ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৬০০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৬৫ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – কার্বুরেটর
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক/ কিক স্টার্ট
  • গিয়ার – ৫ স্পিড
  • ক্লাচ – মাল্টি-ডিস্ক টাইপ, ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক ফর্ক
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট/ব্যাক) – হাইড্রোলিক ডিস্ক/ ড্রাম ব্রেক

পাওয়ার এবং স্টাইলিশ যাত্রী মোটরবাইকের ধারণাকে সম্পূর্ণ নতুন এক রূপ দিয়েছে ইয়ামাহা এসজেড আরআর ভি২। নতুন রং ও গ্রাফিক্সের সংযোজন এসজেড আরআর মডেলটিতে নতুন প্রাণ এনে দিয়েছে। এর ডিজাইনে যোগ করা হয়েছে একটি নতুন স্টাইলিশ এজ – যা আপনার প্রতিটি রাইডকে করে তুলবে নতুন ও উত্তেজনাকর অভিজ্ঞতা।

এই মডেলটিকে ইয়ামাহার নতুন প্রজন্মের ইঞ্জিন ডেভেলপমেন্ট আদর্শ নিয়ে তৈরি করা হয়েছে, যার নাম ইয়ামাহা ব্লু কোর কনসেপ্ট। জ্বালানী দক্ষতা আর পরিবেশের কথা মাথায় রেখে এই প্রযুক্তি আপনার রাইডিং অভিজ্ঞতাকে করবে আরো প্রিমিয়াম।

বর্তমানে এই বাইকটির দাম ধরা হয়েছে বাংলাদেশে মাত্র ১,৮৫,০০০ টাকা।

ইয়ামাহা রে জেডআর

ইয়ামাহা রে জেডআর

মূল স্পেসিফিকেশনঃ

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, এসওএইচসি, ২ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১১৩ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ৫.৩ কিলোওয়াট (৭.২ পিএস) @ ৭৫০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ৮.১ নিউটন-মিটার (N-m) (০.৮ কেজিএফ.এম) @ ৫০০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৬৬ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – সিডিআই (ক্যাপাসিটর ডিসচার্জ ইগনিশন)
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – কার্বুরেটর
  • ক্লাচ – ভি বেল্ট অটোমেটিক 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক ফর্ক
  • ব্যাক সাসপেনশন – ইউনিট সুইং
  • ব্রেক (ফ্রন্ট) – হাইড্রোলিক সিঙ্গেল ডিস্ক/ মেকানিক্যাল লিডিং ট্রেইলিং ড্রাম ব্রেক
  • ব্রেক (ব্যাক) – মেকানিক্যাল লিডিং ট্রেইলিং ড্রাম ব্রেক

নতুন রে জেডআর বাইকটি মার্কেটের ট্রেন্ড-শিকারী তরুণদের ঘিরে এবং তাদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে তৈরি করা হয়েছে। আর এর প্রধান ফোকাস হচ্ছে বাইকিং জগতের লেটেস্ট ফিচারগুলোকে এক বাইকে সংযোজন করা, ঠিক যেমনটা তরুণ গ্রাহকরা খুঁজছেন।

এর নতুন প্রগতিশীল ডিজাইনের পাশাপাশি রে জেডআর ফিচার করছে একটি ব্লু কোর ইঞ্জিন এবং কন্টিনিউয়াস ভ্যারিয়েবল ট্রান্সমিশন (সিভিটি) ইউনিট, যা রাইডারদের বাইক চালু করার সময় একটি মসৃণ ত্বরণ এবং পিক-আপ দিতে পারবে।

ইয়ামাহা রে জেডআর বাইকটির বর্তমান খুচরা মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ১,৫২,০০০ টাকা।

ইয়ামাহা স্যালুটো এস ই

ইয়ামাহা স্যালুটো এস ই

মূল স্পেসিফিকেশনঃ

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, এসওএইচসি, ২ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১২৫ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ৬.১ কিলোওয়াট (৮.৩ পিএস) @ ৭০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১০.১ নিউটন-মিটার (N-m) (১.০ কেজিএফ.এম) @ ৪৫০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৭৮ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – সিডিআই (ক্যাপাসিটর ডিসচার্জ ইগনিশন)
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক/ কিক স্টার্ট
  • গিয়ার – ৪
  • ক্লাচ – মাল্টি-ডিস্ক, ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক ফর্ক
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম
  • ব্রেক (ফ্রন্ট) – ২৪৫ মিমি ডিস্ক ব্রেক
  • ব্রেক (ব্যাক) – ড্রাম ব্রেক

বাজেট রেঞ্জের মধ্যে ইয়ামাহার স্যালুটো এস ই একটি দারুণ হালকা ওজনের বাইক। এতে ফিচার করা হয়েছে একটি ইউনিফাইড ব্রেকিং সিস্টেম (ইউবিএস), যা রিয়ার ব্রেকের স্বতঃস্ফূর্ত ব্যবহারের সাথে ফ্রন্ট ব্রেককে আংশিকভাবে ব্যবহার করে। ফলে একজন রাইডারের বাইক থামানোর ক্ষমতা বা স্টপিং পাওয়ার হয়ে যায় আরো উন্নত।

এছাড়াও এ মডেলটির জ্বালানী দক্ষতা অনেক বেশি, তাই কার্যকরভাবে জ্বালানী ব্যবহারের সাথে রাইডাররা পাবেন আরো বেশি মাইলেজ।

বাংলাদেশে বাইকটি এখন পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ১,৪৫,০০০ টাকায়।

তাহলে, কোন মডেলটি কিনবেন?

দিনশেষে আপনার সিদ্ধান্ত দু’টি জিনিসের উপর নির্ভর করবে – আপনার বাজেট এবং বাইকের ক্ষেত্রে আপনার চাহিদা। স্বাভাবিকভাবেই আপনি এমন একটি মোটরবাইক কিনতে চাইবেন, যেটা আপনার সব রকম চাহিদা পূরণ করতে পারবে, আবার আপনার সামর্থ্যের মধ্যেও থাকবে।

আপনার বাজেট যদি সীমিত থাকে এবং তুলনামূলক সাশ্রয়ী কোন অপশন খোঁজেন, তাহলে স্যালুটো এস ই আপনার জন্য একটি দারুণ অপশন। কেননা এটা একদিকে যেমন ট্রেন্ডি তেমনই একটি যথেষ্ট সাশ্রয়ী মূল্যের বাইক। এছাড়াও এই তালিকায় উল্লেখ করা মডেলগুলোর মধ্যে এটি সবচেয়ে সেরা মাইলেজও দিচ্ছে। অর্থাৎ বাইকটির জ্বালানী দক্ষতা অনেক বেশি এবং সব মিলিয়ে দীর্ঘমেয়াদে আপনার খরচ অনেক কমিয়ে সাশ্রয় করবে।

অন্যদিকে আপনি যদি একটি দামি উচ্চ সারির বাইক কিনতে চান, তাহলে ওয়াইজেডএফ আর ১৫ আপনার জন্য এক চমৎকার অপশন হবে। কেননা এই বাইকটি আজকের তালিকার অন্য যেকোনো বাইকের তুলনায় সবচেয়ে সেরা ফিচার অফার করছে।

এই সব বাইকের মধ্যে যেটাই আপনার পছন্দ হোক না কেন, পরিশেষে আপনি একটি সুপ্রতিষ্ঠিত ব্র্যান্ডের মানসম্মত মোটরবাইকের উপরই বিনিয়োগ করছেন। তাই দীর্ঘমেয়াদেও বাইকটি টিকবে নিশ্চিত, আর ভবিষ্যতেও লাভ আপনারই।

আজই ভিজিট করুন Bikroy.com, আর এই ইয়ামাহা বাইকগুলোর মধ্যে পছন্দ করার জন্য কয়েকটি খুঁজে নিন সহজেই। আমাদের শত শত মোটরবাইকের বিজ্ঞাপন ব্রাউজ করে দেখতে পারেন, যেখানে রয়েছে আমাদের বিশ্বস্ত বিক্রেতাদের পক্ষ থেকে দেশের সবগুলো সেরা ব্র্যান্ডের বাইক

তাহলে এতগুলো মডেলের মধ্যে আপনি কোন বাইকটি কিনতে আগ্রহী? জানান আমাদের কমেন্ট সেকশনে।

শপিং হোক আনন্দের!

সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

Comments

comments