ফ্যাশন, স্বাস্থ্য এবং সৌন্দর্য্য

অনেকে স্পর্শ করে এমন স্থানে কেন Sepnil ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে করা উচিত?

জীবাণু বা জীবাণুনাশক এই বিষয়গুলো সম্পর্কে আমরা কম-বেশি সকলেই হয়তো জানতাম, কিন্তু এসবের সাথে আমরা ততটা অভ্যস্ত ছিলাম তেমনটা বলা যাবে না। বর্তমান সময়ে সারা বিশ্ব যখন করোনা আক্রান্ত তখন কোয়ারেন্টাইন, লকডাউন বা সামাজিক দূরত্বের মতো নতুন কিছু বিষয় ছাড়াও জীবাণু এবং জীবাণুনাশক এর সাথে আমাদের নতুন করে অভ্যস্ততা তৈরি হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে আমাদের যখন ক্রমাগত একটা অদৃশ্য ভাইরাসের সাথে লড়ে টিকে থাকতে হচ্ছে তখন নিজের ও পরিবারের সূরক্ষার কথা চিন্তা করতে হবে সবার আগে। এজন্য নিজের এবং পারিপার্শ্বিক পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করতে প্রতিদিনের জীবনযাপনে হ্যান্ডওয়াশ, হ্যান্ড স্যানিটাইজার এর মতো নানা ডিজইনফেকট্যান্ট প্রোডাক্ট ব্যবহারের বিষয়ে বিশেষভাবে নজর দিতে হবে। ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতার জন্য আমরা যেমন হ্যান্ডওয়াশ বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করি তেমনি আমাদের আশপাশ জীবাণুমুক্ত করতে রয়েছে ডিসইনফেকট্যান্ট স্প্রে। ক্ষতিকারক রোগ সৃষ্টিকারী নানা জীবাণু বা ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া নির্মূলে আগে থেকেই হাসপাতালের মতো জায়গাতে এটি ব্যবহার হলেও বর্তমানে করোনা মহামারীর কারণে আমাদের চারপাশ ভাইরাসমুক্ত রাখতে সবারই এটি ব্যবহার করা উচিত। কিছু সতর্কতা মেনে সঠিকভাবে জীবাণুনাশক বা ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে ব্যবহার করে যদি আমাদের চারপাশ পরিষ্কার রাখা যায় তবে এই ভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি অনেকটাই কমিয়ে আনা সম্ভব। এর আগের আর্টিকেলগুলোতে আমরা হ্যান্ড-ওয়াশ এবং হ্যান্ডস্যানিটাইজার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি, আজ আমরা ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে কী এবং এটি কেন, কীভাবে কোথায় ব্যবহার করা উচিত তা নিয়ে আলোচনা করবো।

ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে কী?

ডিজইনফেকট্যান্ট হলো সংক্রামক শক্তিনাশক বা জীবাণুনাশক, যা কোভিড-১৯ এর মতো ক্ষতিকারক ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া নির্মূলে সহায়তা করে। এই মহামারিতে দীর্ঘ লকডাউন শেষে বিশ্ব যখন ধীরগতিতে স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে তখন ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে ব্যবহারের অপরিহার্যতা আমাদেরকে ভাইরাসের সাথে যুদ্ধে এগিয়ে রাখছে।

কেন ব্যবহার করবেন?

করোনা ভাইরাস মহামারীতে সারা বিশ্বের মানুষ এখনো বিপর্যস্ত। কিন্তু এই মুহুর্তে মানুষের মূল করনীয় এই ভয়াবহ ভাইরাসের সাথে লড়াই করে টিকে থাকা। আর এর জন্য আমাদের সবসময় সবধরণের হাইজিন বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। এক্ষেত্রে শুধু নিজেকে সুরক্ষিত রাখলেই চলবে না, আপনার আশেপাশের বহু ব্যবহৃত জিনিসপত্রও জীবাণুমুক্ত রাখতে হবে। এ কারণেই ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে ব্যবহার করতে হবে আপনাকে।

কোথায় ব্যবহার করবেন?

করোনা সংক্রমণের জন্য দায়ী ভাইরাস সার্স-কোভ-২ বিভিন্ন সারফেস বা পৃষ্ঠে ভিন্ন ভিন্ন সময়কাল অবধি বেঁচে থাকে। এ ভাইরাস প্লাস্টিকে ৫দিন, কাঠ এবং গ্লাসে ৪দিন, স্টেইনলেস স্টীলে ২দিন এবং সার্জিক্যাল গ্লাভস এবং পেপারে ৪ থেকে ৫দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। (তথ্য সূত্র- ডব্লিউএইচও) এছাড়াও গবেষণায় জানা গেছে এই ভাইরাস কাপড়ে দুই থেকে তিন দিন এবং কার্ডবোর্ডে প্রায় চব্বিশ ঘন্টা পর্যন্ত সক্রিয় থাকতে পারে। সুতরাং এরকম জিনিসপত্র ব্যবহারের ক্ষেত্রে বাড়তি সতর্কতা হিসেবে ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে ব্যবহার করে এসব জীবাণুমুক্ত করে নেয়া একান্ত প্রয়োজনীয়। তাছাড়াও অনেকে স্পর্শ করে এমন কোন কোন স্থানে ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে ব্যবহার করে আমরা নিজেদেরকে নিরাপদ রাখতে পারবো তা নিয়ে আলোচনা করা হলো-

  • বিভিন্ন সুইচ বা বাটন জীবাণুমুক্ত রাখতে

দৈনন্দিন জীবনে আমরা বিভিন্ন কাজে এমন অনেক সুইচ বা বাটন ব্যবহার করি যা অনেক মানুষের সংস্পর্শে আসে। যেমন- লিফটের সুইচ, এটিএম মেশিনের সুইচ, কর্মক্ষেত্রে এসি বা রিমোটের বাটন, কলিং বেলের সুইচ ইত্যাদি সবসময় অনেক মানুষ স্পর্শ করে থাকেন। সেক্ষেত্রে নিরাপদ থাকতে ব্যবহারের আগে ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে দিয়ে এগুলো জীবাণুমুক্ত করে নিতে হবে।

  • বিভিন্ন হাতল ভাইরাসমুক্ত রাখতে

অফিসে প্রতিদিন নানা কাজে অনেক মানুষ ব্যবহার করে এমন দরজার হাতল, গাড়ির দরজার হাতল, বা যেকোনো পাবলিক প্লেসেও বিভিন্ন দরজার হাতল স্পর্শ করার আগে ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে দিয়ে পরিষ্কার করে নেয়া উচিত।

  • ইলেক্ট্রনিক্স যন্ত্র, ল্যাপটপ, মোবাইল জীবাণুমুক্ত করতে

আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী মোবাইল ফোনটি আমরা বিভিন্ন জায়গাতেই রাখি। এতে করে মোবাইল ফোনটি ভাইরাসের সংস্পর্শে আসার প্রবল সম্ভাবনা থাকে। তাই নিয়মিতভাবে ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে ব্যবহার করে মোবাইল পরিষ্কার করতে হবে। এছাড়াও নিত্য ব্যবহার্য ল্যাপটপের কি-বোর্ড, টাচপ্যাড বা কম্পিউটারের মাউজ কি-বোর্ড এগুলোও নিয়মিত ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে দিয়ে ভাইরাসমুক্ত করে নেয়া দরকার। কারণ অফিসে বা অন্যান্য কাজের জায়গায় এসব জিনিস বহু মানু্ষ ব্যবহার করেন, তাই ভাইরাস থেকে দূরে থাকতে আমাদেরকে এসব পরিচ্ছন্নতার প্রতি অধিক সতর্ক থাকতে হবে।

  • পাবলিক টয়লেটের টয়লেট সিট এবং বেসিনের কল পরিষ্কার করতে

বিভিন্ন পাবলিক টয়লেটগুলো থেকে সংক্রামক জীবাণু ছড়ানোর আশংকা বেশি থাকে। অফিস, শপিং মল বা বাহিরে থাকলে আমাদের পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করতে হয়। তাই এসব স্থান থেকে বিভিন্ন রোগজীবাণু এবং ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি থাকে। এসব স্থানে টয়লেট ব্যবহারের আগে সঠিকভাবে ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে ব্যবহার করে টয়লেট সিট পরিষ্কার করে নিতে হবে। তাছাড়া এসব স্থানের বেসিনের কলও ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে দিয়ে জীবাণুমুক্ত করে নেয়া বেশ জরুরি। কেননা বারবার সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার পরও বেসিনের কল থেকে কিন্তু সংক্রমণের সম্ভাবনা থেকেই যায়।

  • অফিস এবং বাসার আসবাবপত্র ভাইরাসমুক্ত রাখতে

মহামারী কালে সর্বক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সতর্কতা মেনে চললে আপনি নিজেকে এবং আপনার আশেপাশের সবাইকে অনেকটাই সুরক্ষিত রাখতে পারবেন। এজন্য নিজ দায়িত্বে কর্মক্ষেত্রে আপনার নিজের ব্যক্তিগত জায়গাটুকু, আপনার ডেস্ক, চেয়ার, ফাইল ইত্যাদি নিয়ম করে প্রতিদিন ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে দিয়ে জীবাণুমুক্ত করুন। এছাড়া বাড়ির আসবাবপত্র, কার্পেট, এবং নিয়মিত স্পর্শ করা হয় এমন অন্যান্য বস্তুও প্রতিদিন ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে দিয়ে জীবাণুমুক্ত রাখলে অনেকটাই নিশ্চিন্ত এবং নিরাপদ থাকা যায়। কেননা এসময় কিছুটা বাড়তি সতর্কতা প্রত্যেকের জন্যই বেশ গুরুত্বপূর্ণ।

  • অন্যান্য ব্যবহার

কথায় আছে, নিরাময়ের চেয়ে সতর্কতাই ভালো। বর্তমান সময়ে তাই প্রত্যেকের উচিত সর্বোচ্চ সতর্কতার উপর সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া। আমরা কেউ যদি ঘরের বাইরে যাই তাহলেও ব্যবহারের ব্যাগ বা অন্যান্য বস্তু বহু মানুষ স্পর্শ করে এমন পৃষ্ঠের সংস্পর্শে আসার সম্ভাবনা থাকে। তাই বাসায় ফিরেই এসব জিনিস ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে দিয়ে পরিষ্কার করে নিলে অনেকটাই নিরাপদ থাকবেন আপনি এবং আপনার পরিবার। তাছাড়া মার্কেট বা দোকান থেকে কিনে আনা বিভিন্ন জিনিস যেমন, ক্যারি ব্যাগ বা প্লাস্টিক, কার্ডবোর্ডে প্যাক করা কিছু বা অন্য কোন জড় বস্তু যা অনেক মানুষ হয়তো স্পর্শ করে থাকতে পারে এমন জিনিসের ক্ষেত্রেও অতি অবশ্যই ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে দিয়ে জীবাণুমুক্ত করে নেয়ার বিষয়টি গুরুত্বের সাথে মেনে চলা উচিত।

কেন Sepnil disinfectant স্প্রে ব্যবহার করবেন?

ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে এর কাজ বিভিন্ন বস্তু জীবাণুমুক্ত করা, এই স্প্রে কোন জড় পদার্থের উপর স্প্রে করে দিলে, এটি সেখানে থাকা অণুজীবগুলোকে নিষ্ক্রিয় করে ফেলে। আর এ কাজে Sepnil disinfectant স্প্রে এর জুড়ি মেলা ভার। Sepnil disinfectant স্প্রে আপনার আশপাশ পরিষ্কার রাখতে আপনার সবসময়ের সঙ্গী হতে পারে। ৭০ ভাগ ইথাইল অ্যালকোহল, পারফিউম, বিউটেন এবং প্রোপেইন সহযোগে তৈরি এই রাসায়নিক দ্রবণ সহজে বিভিন্ন ক্ষতিকারক জীবাণু নিমিষেই অকার্যকর করে দিতে পারে। Sepnil disinfectant স্প্রে’র ৩০০ মিলি সুলভমূল্যে আপনি বিভিন্ন অনলাইন শপ বা মার্কেটপ্লেস থেকে কিনে নিতে পারবেন। সহজলভ্য এই স্প্রে আপনি নিশ্চিন্তে ব্যবহার করে নিজের এবং পরিবারের সুরক্ষা সুনিশ্চিত করতে পারবেন।

  • ব্যবহারবিধি

টয়লেট সিট, খালি কিচেন বিন, আসবাবপত্র, দরজার হাতল, বাইরে থেকে কিনে আনা বিভিন্ন জিনিস, ব্যাগ, চাবি বাচ্চাদের খেলনা, বা বহু ব্যবহৃত অন্যান্য বস্তু ইত্যাদির উপরে Sepnil disinfectant স্প্রে ব্যবহার করে সেগুলো ভাইরাসমুক্ত করা যাবে। Sepnil disinfectant স্প্রে ব্যবহারের আগে সেই নির্দিষ্ট জিনিস বা জায়গাটি কোন টিস্যু বা কাপড় দিয়ে মুছে নিতে হবে যাতে করে সেখানে কোন ধুলা বা ময়লা না থাকে। এরপর Sepnil disinfectant স্প্রে বোতলটি ওই নির্দিষ্ট জিনিস বা জায়গাটির উপর থেকে ছয় থেকে আট ইঞ্চি দূরত্বে রেখে তিন থেকে চার সেকেন্ড পর্যন্ত ওই সম্পূর্ণ স্থান বা বস্তু জুড়ে স্প্রে করতে হবে। তারপর এটিকে শুকানোর সময় দিন। পুরোপুরি শুকিয়ে যাওয়ার পর আপনার আর কোন সংক্রমণের ভয়ের কারণ নেই।

  • কার্যকারিতা

৭০ ভাগ অ্যালকোহলে তৈরি Sepnil disinfectant স্প্রে ৯৯.৯৯% জীবাণু বা ভাইরাস মেরে ফেলে। এই স্প্রে যে শুধু ঠাণ্ডা-সর্দি-কাশি বা ফ্লু জাতীয় রোগ কিংবা কোভিড-১৯ এর জীবাণু রোধেই কার্যকরী তাই নয়, এটি বিভিন্ন দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী জীবাণু ধ্বংস করে এবং দুর্গন্ধ ছড়াতে বাধা দেয়। এছাড়াও এই স্প্রে শুধুমাত্র দুর্গন্ধই দূর করে না, এর মধ্যেকার সুগন্ধি উপাদান বাতাসে খানিকটা সুবাসও ছড়িয়ে দেয়। এতোকিছু যখন আপনি এই একটি স্প্রেতেই পেয়ে যাচ্ছেন তখন আর কি চাই! সুতরাং Sepnil disinfectant স্প্রে এর কার্যকারিতা কতোটা তা নিশ্চয় আর বলার অপেক্ষা রাখে না। 

  • সুরক্ষা

নিজেদের এবং আশেপাশের সুরক্ষাই যেখানে মূলকথা, তখন কেবলমাত্র ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে ব্যবহার করে চারপাশের জীবাণুনাশ করলেই হবে না। কেননা, যেহেতু ডিজইনফেকট্যান্ট স্প্রে একধরণের রাসায়নিক সংমিশ্রণ তাই নিজেদের সুরক্ষা বিবেচনায় এটি ব্যবহারের ক্ষেত্রেও সতর্কতার প্রয়োজন রয়েছে। Sepnil disinfectant স্প্রে ব্যবহারের ক্ষেত্রে এর ব্যবহারবিধি জেনে সঠিকভাবে এটি ব্যবহার করতে হবে। Sepnil disinfectant স্প্রে যেকোনো জড় বস্তুতে ব্যবহার উপযোগী হলেও এটি কোনোভাবেই সরাসরি মানব দেহে বা বাতাসে প্রয়োগ করা যাবে না। যেহেতু এই স্প্রে এর রাসায়নিক মিশ্রণের বেশিরভাগই মূলত অ্যালকোহল তাই এটি মারাত্মক দাহ্য একটি মিশ্রণ। সুতরাং Sepnil disinfectant স্প্রে ব্যবহারের সময় আশেপাশে আগুনের উপস্থিতি বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। তা না হলে ঘটে যেতে পারে ভয়াবহ দূর্ঘটনা। এই স্প্রে প্রতিবার ব্যবহারের পর এটিকে ভালোভাবে শুকানোর সময় দিতে হবে। Sepnil disinfectant স্প্রে অতি অবশ্যই শিশুদের নাগালের বাইরে রাখতে হবে। এই স্প্রে আগুন, তাপ থেকে দূরে শীতল এবং নিরাপদ স্থানে সংরক্ষণ করতে হবে।

শেষকথা

তাহলে আপনি এই আর্টিকেল পড়ে বুঝতেই পারছেন যেকোনো রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণুর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে গেলে কেবল নিজের পরিচ্ছন্নতার দিকে নজর দিলেই হবে না। সর্বোপরি আমাদের চারপাশটাকেও সমান গুরুত্ব সহকারে জীবাণুমুক্ত রাখতে হবে। যে যেখানে যেই পরিস্থিতিতেই থাকুন না কেন, এসময় সুস্থতার কথা সবসময় মাথায় রাখা উচিত। ভাইরাসের সাথে এই যুদ্ধে আমাদেরকে জিতে ফিরতে হবে তা ভুলে গেলে চলবে না। তাই আপনার আশেপাশে ভাইরাস থাকতে পারে এমন স্থানগুলো নিয়মিত Sepnil disinfectant স্প্রে দিয়ে পরিষ্কার জীবাণুমুক্ত রাখুন। বিশেষ করে অনেকে স্পর্শ করে এমন স্থান বা বস্তু যা থেকে সর্বাধিক সংক্রমণের আশংকা থাকে এমন বিভিন্ন জায়গা বা জিনিস ব্যবহারের আগে সহজ সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে অবশ্যই Sepnil disinfectant স্প্রে দিয়ে জীবাণুমুক্ত করে নিন। ক্ষতিকারক জীবাণু ধ্বংসে অতীব কার্যকরী Sepnil disinfectant স্প্রে নিয়মিত ব্যবহার করে নিজে সুরক্ষিত থাকুন এবং আপনার চারপাশটাকেও সুরক্ষিত রাখুন।

Facebook Comments
সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

আরও দেখুন

অনুরূপ লেখা গুলো

Back to top button
Close
Close