যানবাহন

বাংলাদেশে লেটেস্ট সুজুকি মোটরবাইকগুলোর দাম

আশেপাশে যেদিকেই তাকাই, সেদিকেই এই বাইকগুলো চলছে। সকলের মুখে মুখে এই নাম শুনে আসছি কয়েক দশক ধরেই। ১১০ বছর বয়সী জাপানি ‘সুজুকি মোটর কর্পোরেশন’ যেদিন থেকে দেশের লোকাল মার্কেটে তাদের ফ্ল্যাগশিপ মোটরবাইকগুলো উন্মোচন করা শুরু করেছে, সেদিন থেকে বাংলাদেশে সুজুকি মোটরবাইক ব্যাপক হারে জনপ্রিয়তা লাভ করতে থাকে।

আপনি যদি মোটর রেসিং বা এই ধরণের স্পোর্টসের ভক্ত হন, তাহলে খুব সম্ভবত আপনি রেস ট্র্যাকগুলোতে কিছু স্পেশাল ধরণের বাইক দেখে থাকবেন। যেমন- হায়াবুসা এবং জিএসএক্স-আর এর মত বাইকগুলো তাদের সিগনেচার টিম ‘মোটোজিপি’ কিংবা ‘সুজুকি এক্সটার’-এর সাথে রেস করে থাকে। স্পোর্টস বাইকের ইন্ডাস্ট্রিতে বিশেষ সুনাম থাকার কারণে সুজুকি গ্রাহকদের মার্কেটেও তাদের শাখা বিস্তার করে সফলতা অর্জন করেছে। রেসিং বাইকের উচ্চতর প্রযুক্তির শক্তিশালী ফিচারের সাথে সাধারণ পথে চলাচলের উপযুক্ত বৈশিষ্ট্যের কম্বিনেশন ঘটিয়ে সুজুকি তাদের প্রিমিয়াম কোয়ালিটির মোটরবাইকের একটা ভালো সিরিজ আমাদেরকে উপহার দিয়েছে। 

আজকের এই প্রতিবেদনে আমরা বাংলাদেশে সুজুকি-এর লেটেস্ট কিছু মোটরবাইকের মডেল সম্পর্কে জানার চেষ্টা করব। এর থেকে আপনার জন্য কোন বাইকটি কেনা সেরা সিদ্ধান্ত হবে সে সম্পর্কে একটা ভালো ধারণাও আপনি পেয়ে যাবেন।

বর্তমানে সুজুকি গ্রাহকদের চাহিদা অনুযায়ী ৪টি প্রধান টাইপের মোটরবাইক বাজারে নিয়ে এসেছে। ক্যাটাগরি হিসেবে এই টাইপগুলো হচ্ছেঃ

  1. ক্রুজার – সুজুকি বাইকের দলভুক্ত একটি নতুন সিরিজ, যেখানে ক্লাসিক আমেরিকান স্টাইলের মোটরবাইক ফিচার করা হয়েছে।
  2. স্পোর্টস বাইক – যুক্তিতর্কের বিচারে তুলনামূলক অধিক জনপ্রিয় বাইক সিরিজ; সর্বোচ্চ পাওয়ার ও গতি দিতে পারে।
  3. স্কুটার – মোটরবাইকের জগতে বর্তমানে একটি ট্রেন্ডী বাইকের রেঞ্জ।
  4. নিত্যদিনের যাত্রী মোটরবাইক – তুলনামূলক বাজেট বান্ধব ও সাশ্রয়ী একটি বাইকের রেঞ্জ, যেগুলো আপনাদের দিবে উচ্চতর মাইলেজ।

ক্যাটাগরির ক্রম অনুযায়ী আজ আমরা ৮টি ভিন্ন ভিন্ন সুজুকি মোটরবাইকের মডেল ও তাদের স্পেসিফিকেশন সম্পর্কে জানবোঃ

সুজুকি ইন্ট্রুডার

সুজুকি ইন্ট্রুডার

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, ১ সিলিন্ডার, এসওএইচসি, ২ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৫৪.৯ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১৪.৮ পিএস @ ৮,০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১৪ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৬০০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৪৪ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – কার্বুরেটর
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক স্টার্ট
  • ট্রান্সমিশন – ৫ স্পিড, এমটি
  • ক্লাচ – মাল্টি প্লেট, ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট/ব্যাক) – ডিস্ক

এই ক্যাটাগরির মধ্যে এই মডেলটিই সুজুকি-এর সর্বপ্রথম বাইক। সুজুকি খুব সম্প্রতিই ক্রুজার রেঞ্জের বাইক তৈরি করা শুরু করেছে এবং প্রথম প্রোটোটাইপ হিসেবে ইন্ট্রুডার বাইকটির কথাই তাদের মাথায় আসে সবার আগে। এই আধুনিক ক্রুজার বাইকটিকে “সুজুকি-এর আন্তর্জাতিকভাবে ক্রুজার ঐতিহ্যে আত্মপ্রকাশ করার এক অনন্য উদাহরণ” হিসেবে অনেকে আখ্যায়িত করে থাকেন। এটি একটি দুর্দান্ত স্পোর্টি বাইক, যাতে রয়েছে এক অপরূপ বিলাসবহুল লুক এবং অনুভব। ১৫৫ সিসি বাইকের সারিতে অসামান্য পাওয়ার টু ওয়েট রেশিও এবং চটপটে হ্যান্ডলিং করার আরামদায়ক সুবিধার পাশাপাশি অসাধারণ জ্বালানী দক্ষতা নিয়ে সুজুকি-এর এই বাইকটি মানুষের পছন্দের তালিকায় অনেক এগিয়ে রয়েছে।

বর্তমানে বাইকটির বাজার মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ২,৭৫,০০০ টাকা।

সুজুকি জিক্সার এস এফ

সুজুকি জিক্সার এস এফ

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, ১ সিলিন্ডার, এসওএইচসি, ২ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৫৪.৯ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১৪.৮ পিএস @ ৮,০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১৪ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৬০০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৬৪ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – কার্বুরেটর
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক স্টার্ট
  • ট্রান্সমিশন – ৫ স্পিড, এমটি
  • ক্লাচ – মাল্টি প্লেট, ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম, মনো সাসপেনশন
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট/ব্যাক) – ডিস্ক

সম্ভবত ২০১৯ সালে সুজুকি-এর সবচেয়ে জনপ্রিয় বাইকের মডেল হচ্ছে এই জিক্সার এসএফ। লক্ষ্য করে দেখলে এই আইকনিক নীল আর হলুদ রঙা মোটরবাইকটি ঢাকা শহরের প্রায় সব জায়গায় সহজেই খুঁজে পাবেন।

সুজুকি-এর মোটোজিপি টিমের সাথে দারুণ মিল থাকার কারণে এই চমৎকার স্পোর্টস বাইকটিকে যথাযথ ভাবেই “সুজুকি-এর কিংবদন্তি রেসিং উত্তরাধিকারী” হিসেবে নামকরণ করা হয়েছে। কিন্তু শুধু তাই না – জিক্সার এসএফ বাইকটিকে মোটোজিপি টিমের ব্যবহার করা কিংবদন্তি মোটরবাইক গুলোর অনুরূপ উইন্ড-টানেলে তৈরি করা হয়েছে। এছাড়াও হায়াবুসা এবং জিএসএক্স-আর মডেলগুলোর মত ঠিক একই রকম কঠোর মান নিয়ন্ত্রণ প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে এই বাইকটিকে পরীক্ষা করা হয়েছে। আর ঠিক এজন্যই সুজুকি-এর স্পোর্টিং রেঞ্জের মধ্যে সেরা কোয়ালিটির বাইকগুলোর মধ্যে জিক্সার এসএফ বাইকটিও অন্যতম।

বর্তমানে এই বাইক মডেলটির বাজার মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ২,৫৯,৯৫০ টাকা।

সুজুকি জিক্সার ১৫৫ সিসি

সুজুকি জিক্সার ১৫৫ সিসি

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, ১ সিলিন্ডার, এসওএইচসি, ২ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৫৪.৯ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১৪.৮ পিএস @ ৮,০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১৪ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৬০০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৬৩.৫ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – কার্বুরেটর
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক স্টার্ট
  • ট্রান্সমিশন – ৫ স্পিড, এমটি
  • ক্লাচ – মাল্টি প্লেট, ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম, মনো সাসপেনশন
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট) – ডিস্ক
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ব্যাক) – ডিস্ক/ ড্রাম

সুজুকি জিক্সার ১৫৫ সিসি বাইকটিতে জিক্সার এসএফ -এর অনুরূপ মান বজায় রাখা হয়েছে। এই মডেলটিতে একই ধরণের শক্তিশালী ইঞ্জিন টাইপ রাখা হয়েছে এবং অন্যান্য কিংবদন্তি স্পোর্টস বাইকের মত একই স্টাইলে কঠোর মান নিয়ন্ত্রণ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে এই বাইকটি ডিজাইন করা হয়েছে। পার্থক্য হিসেবে এই মডেলটিতে রয়েছে সুজুকি-এর নতুন অ্যাডভান্সড রিয়ার ডিস্ক ব্রেক, যা এই বাইকটিতে যেকোনো ধরণের রাস্তা কিংবা এলাকায় চালানোর সময় উচ্চতর মানের আরাম ও স্থির ভারসাম্য নিশ্চিত করে। আর তাই জিক্সার এসএফ-এর তুলনায় জিক্সার ১৫৫ সিসি এক অধিকতর যাত্রী বান্ধব বিকল্প হিসেবে সুনাম অর্জন করে নিয়েছে।

বর্তমানে এই বাইক মডেলটির বাজার মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ২,০৯,৯৫০ টাকা।

সুজুকি জিএসএক্স-আর১৫০

সুজুকি জিএসএক্স-আর১৫০

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, ১ সিলিন্ডার, ডিওএইচসি, ৪ ভালভ
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১৪৯ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ১৮.৯ বিএইচপি @ ১০,৫০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১৪ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৯০০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৪৫ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – লিকুইড কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – ফুয়েল ইনজেকশন (এফআই)
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক স্টার্ট
  • ট্রান্সমিশন – ৬ স্পিড, কনস্ট্যান্ট মেশ
  • ক্লাচ – মাল্টি-ডিস্ক, ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক, কয়েল স্প্রিং, অয়েল ড্যাম্পড
  • ব্যাক সাসপেনশন – লিংক টাইপ, কয়েল স্প্রিং, অয়েল ড্যাম্পড 
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট/ব্যাক) – ডিস্ক

সুজুকি-এর জিএসএক্স-আর বাইকটি প্রায় ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে স্পোর্টস বাইকিং পারফরম্যান্সের এক অনন্য দৃষ্টান্ত হয়ে রয়েছে। এই সুপার স্পোর্টস বাইকটির ডিজাইনে জড়িত ইঞ্জিনিয়াররা তাদের সর্বোচ্চ মাত্রার শ্রম ও বুদ্ধি প্রয়োগ করেছে এবং তাদের লক্ষ্য ছিল মার্কেটে শুধুমাত্র সেরা কোয়ালিটির বাইক সরবরাহ করা। এই বাইকটি তুলনামূলক ভাবে বেশ হালকা ওজনের এবং এর ক্যাটাগরিতে সবচেয়ে সেরা পারফরম্যান্সের মোটরবাইক হিসেবে সুপরিচিত। অসাধারণ পাওয়ার টু ওয়েট রেশিও (ওজন অনুযায়ী শক্তির পরিমাণ) এবং ত্বরণ, একই সাথে অপ্রতিদ্বন্দ্বী জ্বালানী দক্ষতা এবং চটপটে হ্যান্ডেলিং -এর এক দুর্দান্ত কম্বিনেশন হচ্ছে সুজুকি-এর জিএসএক্স-আর বাইকটি।

বর্তমানে জিএসএক্স-আর১৫০ বাইকটির বাজার মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ৩,৫০,০০০ টাকা।

সুজুকি লেটস

সুজুকি লেটস

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, ১ সিলিন্ডার
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১১২.৮ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ৮.৭ বিএইচপি @ ৭,৫০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ৯.০ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৬,৫০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৬৩ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – কার্বুরেটর
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – সেলফ/ কিক স্টার্ট
  • গিয়ার – সিভিটি 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক, কয়েল স্প্রিং, অয়েল ড্যাম্পড
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম, কয়েল স্প্রিং, অয়েল ড্যাম্পড
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট/ব্যাক) – ড্রাম (১২০ মিমি)

সুজুকি লেটস হচ্ছে ১১০ সিসির একটি স্কুটার, যা এর সুযোগ সুবিধা ও রাইডিং স্বাছন্দ্যের জন্য সেরা এক বাহন। যাত্রাপথের জন্য এটি একটি পারফেক্ট স্কুটার, বিশেষ করে ঢাকা শহরের জনবহুল ব্যস্ত রাস্তায় এই বাইকের পারফরম্যান্স দুর্দান্ত। দেশে বাড়তে থাকা নারী মোটরবাইকারদের কথা মাথায় রেখে সুজুকি-এর লেটস সত্যিকার অর্থে মেয়েদের জন্য এক দারুণ রাইডের অপশন। উচ্চতর মানের ভারসাম্য এবং ব্যবহারের স্বাছন্দ্যের কারণে প্রচলিত দুই চাকার বাহনগুলোর তুলনায় এটি একটি অত্যন্ত আরামদায়ক বাইক।

বর্তমানে এই বাইক মডেলটির বাজার মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ১,৫০,০০০ টাকা।

সুজুকি অ্যাক্সেস ১২৫

সুজুকি অ্যাক্সেস ১২৫

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, ১ সিলিন্ডার, এসওএইচসি
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১২৪ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ৮.৭ পিএস @ ৭০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১০.২ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৫০০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৬৪ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – কার্বুরেটর
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক, কিক স্টার্ট
  • গিয়ার – সিভিটি
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক, কয়েল স্প্রিং, অয়েল ড্যাম্পড
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম টাইপ, কয়েল স্প্রিং, অয়েল ড্যাম্পড
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট/ব্যাক) – ড্রাম

অ্যাক্সেস ১২৫ বাইকটি সুজুকি-এর একটি ফ্ল্যাগশিপ স্কুটার। এতে রয়েছে অসামান্য এসইপি প্রযুক্তি, যা এই রেঞ্জের মধ্যে আপনাকে পরম আনন্দের রাইডিং অভিজ্ঞতা দেয়ার জন্য বাজারের সেরা পাওয়ার ও মাইলেজের কম্বিনেশন তৈরি করতে সাহায্য করেছে। সম্প্রতি বাইকটিকে নতুন ভাবে ডিজাইন করা হয়েছে – প্রযুক্তিগত দিক থেকে তো বটেই, একই সাথে নান্দনিকতার দিক থেকেও। এরই মাধ্যমে সুজুকি প্রমাণ করে দিয়েছে যে অ্যাক্সেস ১২৫ হচ্ছে এমন এক স্কুটার, যা যেকোনো ধরণের রাস্তা সামলে নিতে ওস্তাদ।

বর্তমানে বাইকটির বাজার মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ১,৬২,০০০ টাকা।

সুজুকি বার্গম্যান স্ট্রিট

সুজুকি বার্গম্যান স্ট্রিট

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, ১ সিলিন্ডার
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১২৪ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ৮.৬ বিএইচপি @ ৭০০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ১০.২ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৫০০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৫৩ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – কার্বুরেটর
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক এবং কিক স্টার্ট
  • গিয়ার – সিভিটি 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক
  • ব্যাক সাসপেনশন – হাইড্রোলিক টাইপ
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট) – ডিস্ক
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ব্যাক) – ড্রাম

সুজুকি-এর বার্গম্যান স্ট্রিট মার্কেটের সেরা প্রিমিয়াম মানের স্কুটারগুলোর মধ্যে একটি। সুজুকি-এর রেঞ্জে অন্যান্য স্কুটারগুলোর তুলনায় এই মডেলটির নান্দনিক ইউরোপীয় স্টাইলের ডিজাইন এতে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় আরো বেশি বিলাসবহুল একটি লুক এনে দিয়েছে। বার্গম্যান স্ট্রিট বাইকটিতে সংযোজন করা হয়েছে অত্যাধুনিক সুজুকি ইকো পারফরম্যান্স (এসইপি) প্রযুক্তি, যা এর পাওয়ার কিংবা পারফরম্যান্সের সাথে কোন রকম আপোষ না করেই বাইকটিতে এনে দিয়েছে সর্বোচ্চ মানের জ্বালানি দক্ষতা।

বর্তমানে এই বাইক মডেলটির বাজার মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ২,৪৯,০০০ টাকা।

সুজুকি হায়াতে

সুজুকি হায়াতে

  • ইঞ্জিন টাইপ – ৪ স্ট্রোক, ১ সিলিন্ডার, এসওএইচসি
  • ডিসপ্লেসমেন্ট – ১১২.৮ সিসি
  • সর্বোচ্চ পাওয়ার – ৮.৩ বিএইচপি @ ৭৫০০ আরপিএম
  • সর্বোচ্চ টর্ক/ ঘূর্ণন – ৮.৮ নিউটন-মিটার (N-m) @ ৫৫০০ আরপিএম
  • মাইলেজ – ৮৫ কি.মি. প্রতি লিটার
  • কুলিং – এয়ার কুলিং
  • ইগনিশন টাইপ – কার্বুরেটর
  • স্টার্ট করার পদ্ধতি – ইলেকট্রিক, কিক স্টার্ট
  • গিয়ার – ম্যানুয়াল ৪ স্পিড (৪ ডাউন)
  • ক্লাচ – মাল্টি-প্লেট ওয়েট ক্লাচ 
  • ফ্রন্ট সাসপেনশন – টেলেস্কোপিক, কয়েল স্প্রিং, অয়েল ড্যাম্পড
  • ব্যাক সাসপেনশন – সুইং আর্ম, কয়েল স্প্রিং, অয়েল ড্যাম্পড
  • ব্রেক করার পদ্ধতি (ফ্রন্ট/ব্যাক) – লিডিং ট্রেলিং ড্রাম টাইপ

বাজেটের মধ্যে এক দুর্দান্ত যাত্রী মোটরবাইক হচ্ছে সুজুকি হায়াতে। মাত্র ১১০ সিসির হওয়া সত্ত্বেও প্রিমিয়াম লুক এবং আকর্ষণের দিক থেকে বাজিমাত করেছে এই মডেলটি। নজরকাড়া ডিজাইনের পাশাপাশি সুজুকি-এর রেঞ্জের বড় বড় স্পোর্টস দানবের মত একই ধরণের উইন্ড টানেলে ডিজাইন করা হয়েছে এই মডেলটি। মান নিয়ন্ত্রণ এবং ডিজাইনের দিক থেকে হায়াবুসা, জিএসএক্স-আর এবং কিংবদন্তি মোটোজিপির সমতুল্য যেকোনো বাইকের সাথে খুব সহজেই তুলনা করা যাবে হায়াতে বাইকটিকে। এরই সাথে অসামান্য মাইলেজের সংযোজন হওয়ায় সুজুকি হায়াতে খুব সহজেই সকলের অন্যতম পছন্দের একটি স্টাইলিশ, অথচ মিতব্যয়ী মোটরবাইকে পরিণত হয়েছে।

বর্তমানে এই বাইক মডেলটির বাজার মূল্য বাংলাদেশে মাত্র ৯৯,৯৫০ টাকা।

তাহলে আপনার জন্য কোন বাইকটি কেনা সবচেয়ে ভালো হবে?

মোটরবাইকের ক্ষেত্রে আপনার চূড়ান্ত পছন্দ মূলত ২টা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারের উপর এসে ঠেকে যায়। আর তা হলো আপনার বাজেট এবং চাহিদা।

আপনি যদি আপনার ফোকাস বাইকের স্পেসিফিকেশনের দিকে বেশি দিতে চান, এবং একই সাথে এমন একটি মোটরবাইক কেনার ইচ্ছা থাকে যেটা মার্কেটের প্রচলিত মোটরবাইকগুলোর চেয়ে অনেক অনেক বেশি উন্নত মানের হবে, তাহলে আমরা পরামর্শ দেব সুজুকি-এর জিএসএক্স-আর১৫০ বাইকটিতে বিনিয়োগ করার। স্পোর্টস বাইকের দলের মধ্যে এটি একটি দুর্দান্ত মডেলের বাইক, যা কি না প্রত্যেক ব্যবহারে আপনাকে দিবে আসাধারণ এক অনুভব। এই রেঞ্জের মধ্যে প্রায় সমস্ত বাইকের তুলনায় এই মডেলটি গ্রাহকদের সবচেয়ে দারুণ ও প্রিমিয়াম পর্যায়ের পারফরম্যান্স দেয়ার ক্ষমতা রাখে। আর এটা নিয়ে যেখানেই যান না কেন, মানুষের নজর আপনার উপর এসে পড়তে বাধ্য!

আবার আপনার বাজেট যদি কিছুটা সীমিত থাকে এবং এমন একটা বাইক কিনতে চান যেটা টাকার বিনিময়ে সর্বাধিক মূল্য আপনাকে দিতে পারবে – তাহলে আমাদের মতে আপনার উচিত সুজুকি হায়াতে বাইকটি কেনার চেষ্টা করা। সুজুকি-এর অন্যান্য বিলাসবহুল হেভি ডিউটি বাইকের তুলনায় এটি বেশ সাশ্রয়ী দামের রেঞ্জের মধ্যে একটি অসাধারণ যাত্রাপথের বাইক। আর এতে আপনারা পাবেন সেরা দামের মধ্যে অপ্রতিদ্বন্দ্বী মাইলেজ। হায়াতে বাইকটি সাথে থাকলে টানা কয়েক বছর পর্যন্ত সব মিলিয়ে আপনার সাশ্রয়ও হবে অনেক!

কোন মডেলের বাইক কিনবেন সেটা নিয়ে এখনও নিশ্চিত হতে পারছেন না? একবার আমাদের ওয়েবসাইটটা ঘুরেই দেখে আসুন – আর খুঁজে নিন বাংলাদেশে সুজুকি-এর সমস্ত লেটেস্ট মোটরবাইকের বিজ্ঞাপন সহ আরো কত কি! Bikroy.com -এর ভেরিফাইড মার্কেটপ্লেসে এসে আজই তুলনা করে নিন বাংলাদেশে সুজুকি মোটরবাইকের দামগুলো, আর খুঁজে নিন নতুন কিংবা ব্যবহৃত সব ধরণের বাইকের শত শত আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন!

গ্রাহকদের নিয়মিত কিছু প্রশ্নের উত্তর:

কোথায় কিনতে পারবো সুজুকি মোটরবাইক?

সারা দেশ জুড়ে সুজুকি-এর অনুমোদিত বহু সংখ্যক ডিলার রয়েছে। তাদের প্রধাণ ও সবচেয়ে বড় ডিলার হচ্ছে র‍্যাংকন মোটরবাইক লিমিটেড এবং ঢাকা শহরেই তাদের একাধিক শো-রুম রয়েছে। চাইলে সুজুকি-এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে ব্রাউজ করেও আপনি এই শো-রুমগুলোর ঠিকানা ও যাবতীয় তথ্য পেয়ে যাবেন।

কেনার জন্য আরো বেশি লাভজনক একটি জায়গা খুঁজছেন? ব্রাউজ করুন Bikroy.com -এ, আর খুঁজে পান এই মুহূর্তে বিক্রির জন্য রেডি থাকা সবগুলো সুজুকি মোটরবাইকের বিজ্ঞাপন!

সুজুকি মোটরবাইক কেনার জন্য কি ইএমআই সুবিধা পাওয়া সম্ভব?

হ্যাঁ, অবশ্যই পাওয়া সম্ভব। শুধুমাত্র সুজুকি-এর অনুমোদন দেয়া যেকোনো ডিলারের কাছ থেকে যদি আপনি বাইক কেনেন তাহলেই আপনি ইএমআই সুবিধা লাভ করতে পারবেন। এই অপশনটি পাওয়ার জন্য আপনার কাছে অবশ্যই একটি অ্যামেরিকান এক্সপ্রেস কার্ড থাকতে হবে।

সুজুকি বাইকের উপর কোন ধরণের ওয়ারেন্টি পাওয়া যাবে কি?

ওয়ারেন্টি সার্ভিস পেতে চাইলে আপনাকে এর জন্য রেজিস্ট্রেশন করতে হবে এবং র‍্যাংকন মোটরবাইক লিমিটেডের যেকোনো শো-রুম থেকে বাইকটি কিনতে হবে। কেনার পর থেকে প্রথম ২ বছর কিংবা প্রথম ৩০ হাজার কিমি বাইক চালানো পর্যন্ত (দু’টোর মধ্যে যেকোনো একটা শর্ত কার্যকর হওয়া অবধি) তাদের ওয়ারেন্টি কার্যকর থাকবে।

এই বাইকগুলোর জন্য কোন ধরণের সার্ভিস পাওয়ার আশা করতে পারি?

কেনার পর থেকে ৪ টি সার্ভিসিং সেশন আপনি ফ্রি তে পাবেন। তবে সেজন্য আপনাকে অবশ্যই আপনার মোটরবাইকটি একটি অনুমোদিত ডিলারের কাছ থেকে কিনতে হবে, এবং তাতে অরিজিনাল পার্টস থাকতে হবে। সুজুকি-এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইটেও আপনি সার্ভিসের সময়তালিকা খুঁজে পাবেন, আর সেখানে সব ডিটেইলও উল্লেখ করা থাকবে।

সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

আরও দেখুন

অনুরূপ লেখা গুলো

Back to top button
Close
Close