চাকরিটিপস ও গাইড

সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে যে ৮টি চাহিদা থাকা আবশ্যক

অনেক সময় সম্পত্তি বা ব্যবসার জন্য অতিরিক্ত নিরাপত্তার প্রয়োজন হয়ে থাকে, সেসময়ে চাইলেই চোখের সামনে থাকা যেকোনো একটি সিকিউরিটি সার্ভিস পেলেই তা বেছে নেওয়া যুক্তিযুক্ত নয়। কারণ আপনার ব্যবসার আকার ছাড়াও, সুরক্ষা পরিষেবা প্রয়োজনীয় ও নির্ধারিত বাজেটগুলোর মধ্যে অন্যতম। দিনশেষে প্রতিষ্ঠান এবং কর্মীদের জন্য একটি নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করাই এখানে মূল লক্ষ্য। 

দেশে এই মুহূর্তে বেশ কিছু সিকিউরিটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যা আপনার নির্বাচন প্রক্রিয়াকে কিছুটা চ্যালেঞ্জিং করে তুলতে পারে। সেক্ষেত্রে শুধু একটি নির্দিষ্ট সিকিউরিটি সার্ভিস প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি করার আগে কিছুটা রিসার্চ করার প্রয়োজন, যা আপনাকে কোনো প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে নিশ্চিত হবার আগে অন্যান্য বাধা-বিপত্তি এবং সুবিধাগুলো চিহ্নিত করতে সাহায্য করতে পারবে।

তাই আপনিও যদি সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস বেছে নেওয়ার কথা ভেবে থাকেন, আমরা আপনাকে সাহায্য করতে পারি। Bikroy.com-এ পোস্ট হওয়া হাজারো বিজ্ঞাপন থেকে আমরা এ ধরণের সার্ভিস বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে আপনাকে কী কী বিষয়ের দিকে খেয়াল রাখতে হবে সে সম্পর্কে অবগত করার পাশাপাশি চাকরি খোঁজার সুবিধার্থে সিকিউরিটি গার্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি সম্পর্কে বিস্তারিত জানাবো। 

কীভাবে একটি ভালো সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস প্রতিষ্ঠান যাচাই করবেন?

প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদে আসীন হয়ে থাকলে, সেরা সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস বেছে নেওয়ার সময় আপনাকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হতে পারে। আপনার বাজেট এবং চাহিদার মধ্যে মিল রেখে যেসমস্ত বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবেঃ 

১. সিকিউরিটি সার্ভিস প্রতিষ্ঠানের জনপ্রিয়তা সম্পর্কে ধারণা রাখাঃ জনপ্রিয়তা বা খ্যাতি যেকোনো ব্যবসার ক্ষেত্রেই অত্যাবশ্যক বলে বিবেচিত হয়ে থাকে। তাই যদি কোনো প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে নেতিবাচক পর্যালোচনা থেকে থাকে বা তারা সঠিকভাবে সেবা সরবরাহ করতে অক্ষম হয়, তাহলে মানুষ সচরাচর তাদের সাথে কাজ করতে আগ্রহ দেখায় না। সুতরাং প্রতিষ্ঠান বাছাই করার ক্ষেত্রে দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা এবং সুনাম আছে এমন একটি সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস বেছে নিন।

যাচাই এর অংশ হিসেবে প্রতিষ্ঠানের পূর্ববর্তী গ্রাহকদের কাছ থেকে রেফারেন্স এবং প্রশংসাপত্র চাইতে দ্বিধা না করাই ভালো। আমাদের দেশে, পছন্দ করার ক্ষেত্রে মৌখিক রেফারেন্স একটি বড় ভূমিকা পালন করে থাকে। যা আপনাকে সেই প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা সম্পর্কে একটি স্পষ্ট ধারণা দেবে।

২. নির্ভরযোগ্যতাঃ প্রাইভেট সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিসের ব্যাপারে বলতে গেলে মূলত মাথায় আসে একটি নির্ভরযোগ্য এবং বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান আপনাকে সম্ভাব্য সকল নিরাপত্তা হুমকি এবং জরুরি অবস্থার প্রেক্ষিতে সহযোগীতা করার সক্ষমতা রাখে।

নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠানের সাথে কথা বলার সময়, নিশ্চিত করুন তাদের গার্ড এবং অন্যান্য নিরাপত্তা সংক্রান্ত আনুষাঙ্গিক আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী উপস্থিত থাকবে। অথবা, আপনি যদি সিকিউরিটি গার্ড চাকরি উল্লেখ করে বিজ্ঞাপন পোস্ট করে থাকেন, তাহলে আপনার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে তাদের সাথে খোলাখুলি কথা বলুন। 

৩. গ্রাহক সেবাঃ আমাদের দেশে সেরা নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান খুঁজে নেওয়ার জন্য, আপনাকে কিছুটা কাঠখড় পোহাতে হতে পারে, তবে এই খোঁজের একেবারে ভিত্তিপ্রস্তরে রয়েছে সন্তোষজনক গ্রাহক সেবা। আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে যে আপনি যে প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করছেন তারা নিরাপত্তা প্রদানের এই ব্যবসাকে গুরুত্ব সহকারে নিচ্ছে এবং তারা সত্যিই আপনার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায়। যদি তারা যথাসময়ে আপনার ফোনের সাড়া না দেয় বা তাৎক্ষনিক ভাবে উত্তর না দেয়, তাহলে যখন তাদের সত্যিই প্রয়োজন হবে তখন আপনি কীভাবে সাহায্য আশা করতে সক্ষম হবেন?

৪. দক্ষতাঃ আপনি নিশ্চয়ই আপনার ভাঙা চেয়ারটি মেরামত করার জন্য একজন মোটরসাইকেল মেকানিক নিয়োগ করবেন না, তাই না? আপনি এমন কারো সাথে যোগাযোগ করবেন যিনি কাঠের আসবাবপত্র মেরামত করতে পারেন এবং ব্যবহারযোগ্য করে তুলতে পারেন। সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস নিয়োগের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। বর্তমানে আপনি আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরনের সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস লক্ষ্য করে থাকবেন।

এদের মধ্যে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের বিশেষত্ব আলাদা। কেউ বাণিজ্যিক এলাকায় নিরাপত্তা প্রদানে বিশেষজ্ঞ, অথবা কারও আবাসিক এলাকায় পেট্রোলিং করার দক্ষতা রয়েছে। সুতরাং, আপনার প্রয়োজন সম্পর্কে জানুন এবং সেই নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে দক্ষ এমন একটি প্রতিষ্ঠানকে বেছে নিন।

৫. মূল্য বা প্রাইসিংঃ আপনি যেমন খরচ করবেন সেই অনুযায়ী সেবা উপভোগ করতে পারবেন। তাই আপনার বাজেট সম্পর্কে জানুন এবং আপনি যদি আপনার খরচ কমাতে চান, তাহলে এমন একটি প্রতিষ্ঠান বেছে নিন যারা আপনার নির্ধারিত বাজেটের মধ্যেই আপনার চাহিদা পূরণ করতে সক্ষম। যদি আপনি ইতোমধ্যেই একটি প্রতিষ্ঠান পছন্দ করে থাকেন এবং তাদের চাহিদা আপনার নির্ধারিত বাজেটের চেয়ে কম হয়, তাহলে আপনাকে নিম্নলিখিত যেকোনো কোনটি বিষয়ের সম্মুখীন হতে পারেঃ

  • হিডেন কস্টঃ নিয়োগের পূর্বে, হিডেন কস্ট সম্পর্কে নিশ্চিত হন। হয়তো আপনাকে পেট্রোলিং, ওভারটাইম বা তদারকির জন্য অতিরিক্ত অর্থ প্রদান করতে হতে পারে।
  • নিম্ন বেতনভুক্ত গার্ডঃ যে কোম্পানিগুলো স্বভাবিকের চেয়ে তুলনামূলক কম খরচ নেয় তারা সাধারণত তাদের গার্ডদের কম বেতন দেয় যা কিনা আনুগত্যের প্রতি ততটা সচেতন নাও হতে পারে।

৬. লাইসেন্স ও ইনস্যুরেন্স পলিসিঃ আপনার পছন্দের সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস প্রতিষ্ঠানের যথাযথ, আপ-টু-ডেট লাইসেন্স এবং বীমা পলিসি আছে তা নিশ্চিত করুন। বাংলাদেশের বিভিন্ন বড় বড় শহরের ক্ষেত্রে একাধিক লাইসেন্স প্রযোজ্য হতে পারে। সুতরাং, আপনি যদি বিভিন্ন শহরের জন্য একই সিকিউরিটি কোম্পানিকে নিয়োগ দিয়ে থাকেন, তাহলে নিশ্চিত করুন যে তাদের কাছে সেই নির্দিষ্ট এলাকায় সেবা দেওয়ার জন্য উপযুক্ত লাইসেন্স আছে।

৭. নিয়োগ প্রক্রিয়াঃ একটি নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান কীভাবে গার্ডদের নিযুক্ত করে সেটি প্রতিষ্ঠানটিকে বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে একটি সঠিক প্যারামিটার হতে পারে। চুক্তি করার সময় তাদের নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করুন। বাংলাদেশে সিকিউরিটি গার্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পোস্ট করার পর তারা কি যথাযথ উপায়ে ব্যাকগ্রাউন্ড চেক করে? চুক্তি সম্পাদনের আগে তাদের কাজের প্রক্রিয়া এবং বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে নিন।

৮. নিরাপত্তা প্রযুক্তিঃ বর্তমান এই ডিজিটাল যুগে, নিরাপত্তা প্রযুক্তি ক্রমাগত বিকশিত হচ্ছে এবং যে প্রতিষ্ঠানগুলো সেই অনুযায়ী নিজেদের আপডেট করে নিতে সক্ষম তাদের ভালো একটি নিরাপত্তা প্রদানের সম্ভাবনাও বেশি। সুতরাং, সেবা সম্পর্কে আলোচনা করার সময়, তারা কোন ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করছে এবং তাদের গার্ডেরা কতখানি প্রশিক্ষিত সেই ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করে নিন।

উদাহরণস্বরূপ, অনেক সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস প্রতিষ্ঠান তাদের গার্ডদের জন্য রিয়েল-টাইম রিপোর্টিং সুবিধা দিয়ে থাকে অর্থাৎ আপনি সবসময় তাদের অবস্থান ট্র্যাক করতে পারেন এবং যেকোনো ঘটনায় তাৎক্ষণিক অ্যালার্ট পেতে পারেন।

শেষ কথা

মাঝে মাঝে প্রতিষ্ঠানের জন্য সেরা সিকিউরিটি গার্ড সার্ভিস খুঁজে নেওয়ার কাজটি কঠিন মনে হতে পারে, কিন্তু আমরা আশাবাদী যে উপরে আলোচনাকৃত বিষয়গুলো সঠিক নিরাপত্তা সার্ভিস খুঁজে নেওয়ার সময় আগামীতে আপনার জন্য সময় সাশ্রয়ী হতে পারে।

যদি আপনি একাধিক প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে ভেবে থাকেন, তাহলে তাদের সিকিউরিটি গার্ডদের মূল্যায়নের উপর ভিত্তি করে র‍্যাঙ্ক করে নিন পাশাপাশি আপনি যদি সিকিউরিটি গার্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পোস্ট করার পরিকল্পনা করে থাকেন, সেক্ষেত্রেও আপনি উল্লেখিত উপায়সমূহ মেনে চলতে পারেন।

আপনার সর্বাত্মক নিরাপত্তা কামনা করছি। 

Facebook Comments
সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

আরও দেখুন

অনুরূপ লেখা গুলো

Back to top button
Close
Close