যানবাহন

বাংলাদেশের সর্বাধিক জনপ্রিয় হাইব্রিড গাড়িসমূহ

ভূমিকা

সকলকে স্বাগত জানাই আজকের বাজারে সর্বাধিক জনপ্রিয় হাইব্রিড গাড়ির আলোচনায়।

আজকের দিনে সবুজ, পরিবেশ বান্ধব জীবনযাপন কেবল আধুনিক সময়ের কেবল ট্রেন্ডই নয় বরং আমাদের আগত প্রজন্মের নিরাপদ ভবিষ্যত সুরক্ষার জন্য বর্তমান সময়ের একটি চূড়ান্ত চাহিদা।

দূষণ ও বৈশ্বিক উষ্ণায়নের বৃদ্ধির অন্যতম বৃহত্তম কারণ হলো আমাদের যানবাহনগুলোতে যে সকল জ্বালানি ব্যবহার করা হয় – পেট্রোল, ডিজেল এবং অন্যান্য ক্ষতিকারক প্রাকৃতিক সম্পদ।

আপনি যদি সত্যিকারের পরিবেশবান্ধব জীবনযাপন করতে চান তবে আপনি আপনার প্রথম বা পরের গাড়িটিকে একটি হাইব্রিড গাড়ি হিসাবে বিবেচনা করতে পারেন। বাংলাদেশের সর্বাধিক জনপ্রিয় হাইব্রিড গাড়িগুলো এখন কোনওভাবেই সাধারণ গাড়ির পারফরম্যান্সের তুলনায় কম নয়।

আপনি যখন একটি হাইব্রিড গাড়ি চালাবেন, তখন আপনার গাড়িটি গ্যাস ইঞ্জিন এর পাশাপাশি বৈদ্যুতিক ইঞ্জিন দ্বারা চালিত হবে। একটি হাইব্রিড গাড়ি চালাতে গেলে, আপনি প্রয়োজনীয় সমস্ত আধুনিক সেবা উপভোগ করার পাশাপাশি সাধারণ গাড়ির ইঞ্জিন এর মতোই পারফরম্যান্স পাবেন। 

আমাদের বিবেচনায় বাংলাদেশের সর্বাধিক জনপ্রিয় হাইব্রিড গাড়িরগুলোর তালিকা

আসুন দেখে নেই বিশ্বব্যাপী মোটরগাড়ি শিল্পের সবচেয়ে জনপ্রিয় গাড়িগুলোর তালিকাটি। পরবর্তীতে আমরা হাইব্রিড গাড়িগুলোর সম্পর্কে আরও বিস্তারিত আলোচনা করব যাতে আপনি সিদ্ধান্ত নিতে পারেন যে, আপনি বাংলাদেশের রাস্তায় সেগুলোর কোনটিকে চালিয়ে দেখতে চান।  

  • হোন্ডা ইনসাইট হাইব্রিড
  • টয়োটা এভালন হাইব্রিড
  • হুন্ডাই আয়নিক হাইব্রিড
  • টয়োটা প্রিয়াস প্রাইম হাইব্রিড 
  • হোন্ডা অ্যাকর্ড হাইব্রিড
  • কিয়া অপটিমা হাইব্রিড
  • টয়োটা ক্যামরি হাইব্রিড
  • লিংকন এম-কে-জেড হাইব্রিড
  • টয়োটা প্রিয়াস সি হাইব্রিড
  • হুন্ডাই সোনাটা হাইব্রিড
  • ফোর্ড ফিউশন এনার্জি হাইব্রিড
  • টয়োটা প্রিয়াস হাইব্রিড
  • ফোর্ড ফিউশন হাইব্রিড

সর্বাধিক জনপ্রিয় হাইব্রিড গাড়িঃ টেস্ট ড্রাইভ (সংক্ষিপ্ত পর্যালোচনা)

হোন্ডা ইনসাইট হাইব্রিড

হোন্ডা ইনসাইট হাইব্রিড

হোন্ডা ইনসাইটের তৃতীয় প্রজন্মটি ২০১৯ সালে আত্মপ্রকাশ করেছিল। এটি সম্পূর্ণ নতুন ডিজাইনের চারটি দরজা এবং পাঁচজন যাত্রীর আসন বিশিষ্ট একটি মিডসাইজের সেডান।  

হোন্ডা ইনসাইটটি বৈদ্যুতিক মোটর সহ চারটি সিলিন্ডারের ১.৫লিটার এর পাওয়ার ট্রেন হাইব্রিড ইঞ্জিনের। গাড়িটি ১৯৭ এলবি-ফিট টর্ক সহ ১৫১ হর্সপাওয়ার সরবরাহ করে – এটি একটি ছোট, হাইব্রিড ইঞ্জিনের জন্য উপযুক্ত। 

এটি শহরে ভেতর অফিস অথবা পরিবারের সাথে জন্য চালনার জন্য উপযুক্ত। ২০১৯ সালের হোন্ডা ইনসাইটটি বাজারে এসেছে এলএক্স, ইএক্স এবং ট্যুরিংয়ের 3 টি মডেলে  – যদিও, এই মডেলগুলো বাংলাদেশের রাস্তায় দেখতে অনেকটা একই রকম মনে হয়।  

মূল্যঃ ২৩+ লক্ষ টাকা

হোন্ডা ইনসাইটটিতে নিম্নলিখিত আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্যগুলো রয়েছেঃ 

  • শব্দ দূষণ বাতিলকরণ
  • মাল্টি- অ্যাঙ্গেল রিয়ার-ভিউ ক্যামেরা
  • সিক্স-স্পিকার অডিও সিস্টেম
  • এডাপ্টিভ ক্রুজ নিয়ন্ত্রণ 

টয়োটা এভালন হাইব্রিড

টয়োটা এভালন হাইব্রিড

টয়োটা এভালন হাইব্রিড বিশ্বের সর্বাধিক সুপরিচিত গাড়ি প্রস্তুতকারক – টয়োটা দ্বারা তৈরিকৃত অত্যন্ত স্টাইলিশ হাইব্রিড মডেলের একটি গাড়ি। প্রচুর জায়গা এবং আধুনিক ডিজাইন সহ ড্রাইভিংয়ের জন্য এটি দুর্দান্ত এবং বড় সাইজের সেডান। 

টয়োটা এভালন এর ২.৫লিটার ফোর সিলিন্ডার ইঞ্জিন এবং একটি বৈদ্যুতিক মোটর সহ প্রচুর শক্তি প্রদান করে। এছাড়াও গাড়িটিতে একটি ব্যাটারি প্যাক দেয়া থাকে যা ট্রাঙ্কে লাগানো হয়।

এভালনে রয়েছে কিছু আকর্ষণীয় ফিচার যেমন উচ্চ প্রযুক্তির ড্রাইভিং সহায়তা যা এর প্রত্যেকটি মডেলে দেয়া হয়েছে। এমনকি বাংলাদেশের রাস্তায় আপনি এই ফিচারগুলো সহ চালাতে অত্যন্দ স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন। 

মূল্যঃ ৩৩+ লক্ষ টাকা 

টয়োটা এভালন হাইব্রিড এক্সএলএল প্লাসের নিম্নোক্ত বৈশিষ্ট্যগুলো রয়েছেঃ

  • প্রি কলিশন সিস্টেম
  • সাত ইঞ্চি টাচস্ক্রিন ডিসপ্লে
  • লেদার ইন্টেরিয়র
  • সানরুফ 

হুন্ডাই আয়নিক হাইব্রিড 

হুন্ডাই আয়নিক হাইব্রিড

হুন্ডাই, হ্যাচব্যাক স্টাইলের হাইব্রিড আয়নিক মডেলটি ২০১৭ সালে বাজারে এনেছে। চার-দরজা বিশিষ্ট  কমপ্যাক্ট এবং প্রতিদিনকার যাতায়াতে এবং মাঝেমধ্যে লং ট্যুর এর জন্য উপযুক্ত  পারফরম্যান্স দিয়ে থাকে।

আয়নিক হাইব্রিডগুলো এর ১.৬-লিটার ইঞ্জিন থেকে ৫৮ এমপিগির একটি অসামান্য ইপিএ সরবরাহ করে। ড্রাইভেট্রেন হাইব্রিড ইঞ্জিনটি একটি চার-সিলিন্ডার পেট্রোল ইঞ্জিন দ্বারা চালিত হয় – ৬ গতির অটোমেটিক ট্রান্সমিশন সহ। এমনকি এর ব্যাটারি চালিত বৈদ্যুতিক মোটর সহ, এটি ১৩৯ হর্স পাওয়ারের অসাধারণ পারফরম্যান্স দিয়ে থাকে।

মূল্যঃ ২০+ লক্ষ টাকা 

হুন্ডাই আয়নিক হাইব্রিড এর  আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্যগুলো নিম্নলিখিত রয়েছেঃ

  • স্বয়ংক্রিয় জলবায়ু নিয়ন্ত্রণ
  • অ্যাপল কারপ্লে® এবং অ্যান্ড্রয়েড অটো ™ ইন্টিগ্রেশন
  • চাবিহীন এন্ট্রি এবং স্টার্ট

টয়োটা প্রিয়াস প্রাইম হাইব্রিড

টয়োটা প্রিয়াস প্রাইম হাইব্রিড

আপনি অবশ্যই আমাদের তালিকায় টয়োটা প্রিয়াস একাধিকবার লক্ষ্য করেছেন এবং কেন নয় – টয়োটা প্রিয়াস নিঃসন্দেহে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য এবং জনপ্রিয় হাইব্রিড মডেলগুলোর মধ্যে একটি।

টয়োটা প্রিয়াস প্রাইম হাইব্রিড মডেলটি হ্যাচব্যাক ডিজাইনের একটি দুর্দান্ত চার যাত্রী বিশিষ্ট যা ব্যস্ত শহরের  ট্র্যাফিকে নিয়মিত ভ্রমণের জন্য আদর্শ।

প্রাইম হচ্ছে টয়োটার প্রিয়াস প্লাস-ইন হাইব্রিড মডেল যা পি-এইচ-ই-ভি হিসাবে পরিচিত। এতে পাচ্ছেন  ঘরে অথবা অফিস এ প্লাগ-ইন চার্জিংয়ের সুবিধা (যদিও এটি এখনও বাংলাদেশে প্রযোজ্য নাও হতে পারে তবে আশা করি, খুব শীঘ্রই আসবে)। এটি ১.৮ লিটার এর ২ টি বিকল্প এবং একটি ছোট ১.৪ লিটার ইঞ্জিনে ১২০ এলবি-ফিট টর্ক সহ ১৬৬ এইচপি সরবরাহ করে।

মূল্যঃ ২৭+ লক্ষ টাকা 

টয়োটা প্রিয়াস প্রাইম হাইব্রিডের মিডরেঞ্জ প্রিমিয়াম মডেলগুলোতে যেসকল  বৈশিষ্ট্যগুলো রয়েছেঃ

  • ১১.৬ ইঞ্চি সেন্ট্রাল  টাচস্ক্রিন
  • চাবিহীন প্রবেশ
  • SofTex® চামড়ার ইন্টেরিয়র 
  • ড্রাইভার অ্যাসিস্ট্যান্স স্যুট

হোন্ডা অ্যাকর্ড হাইব্রিড

হোন্ডা অ্যাকর্ড হাইব্রিড

হোন্ডার সবচেয়ে অসাধারণ মডেলগুলোর মধ্যে হোন্ডা অ্যাকর্ড একটি, তাছাড়া হাইব্রিড অ্যাকর্ডটি মাঝারি আকারের সেডানগুলোর মধ্যে একটি আদর্শ গাড়ি। এটি স্লিম, স্টাইলিশ এবং উচ্চ প্রযুক্তির শক্তিশালী ইঞ্জিন সহ তৈরী।

হোন্ডা অ্যাকর্ড হাইব্রিড একটি ২ লিটার ফোর সিলিন্ডার ইঞ্জিনে চলে এবং সেখানে ব্যাটারি চালিত এক জোড়া বৈদ্যুতিক মোটর রয়েছে। তাছাড়া শহরে ২১২ এইচ-পি পাওয়ার সহ প্রতি গ্যালনে আনুমানিক ৪৮ মাইল দিয়ে থাকে। 

এই হাইব্রিড অ্যাকর্ডটি অবশ্যই এর স্টালিশ ডিজাইনের সাথে অনেককেই আকর্ষিত করবে এবং এর আরামদায়ক এবং শক্তিশালী ড্রাইভিং পারফরম্যান্স দ্বারা মুগ্ধ করবে।

মূল্যঃ ২৭+ লক্ষ টাকা 

হোন্ডা অ্যাকর্ড হাইব্রিড মডেলগুলোর নিচে কয়েকটি আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্য রয়েছেঃ

  • স্বয়ংক্রিয় তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ
  •  ৮ দিক থেকে পাওয়ার ড্রাইভারের আসন
  • ভয়েস কমান্ড নেভিগেশন

কিয়া অপটিমা হাইব্রিড

কিয়া অপটিমা হাইব্রিড

আপনি যদি সেডান এর মধ্যে স্পোটি মডেলের গাড়ি খুঁজে থাকেন তবে কিয়া অপটিমা হাইব্রিড মডেলটি আদর্শ। এটি অত্যন্ত আকর্ষণীয় স্পোর্টি ডিজাইনের বড় আকৃতির  সিডানগুলোর একটি।

অপটিমা মডেলটি ২০১৭ সালে সম্পূর্ণ রূপান্তরের মধ্য দিয়ে গিয়েছিল, ফলাফল ছিল কিয়ার এর এই মাস্টারপিস হাইব্রিড মডেলটি। এতে প্রচুর সংখ্যক উচ্চ প্রযুক্তির বৈশিষ্ট্য সহকারে আশ্চর্যজনকভাবে উন্নত ড্রাইভিং সহায়তা রয়েছে। কিয়া হাইব্রিড ইঞ্জিনটি শক্তিশালী যা ১.৪ লিটার ইঞ্জিনের সাথে ১৫৪ এইচ-পি সরবরাহ করে।

চার-দরজা বিশিষ্ট পরিপূর্ণ সেডান হওয়ায় সত্ত্বেও এটি স্পোর্টি ডিজাইন দিচ্ছে, যা আপনাকে দিবে আপনার অর্থের পরিপূর্ণ ব্যবহার। 

মূল্যঃ ৩৩+ লক্ষ টাকা 

কিয়া অপটিমা হাইব্রিড মডেলগুলোতে অন্তর্ভুক্ত আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্যগুলোঃ

  • চামড়ার ইন্টেরিওর
  • অ্যাপল কারপ্লে এবং অ্যান্ড্রয়েড অটো
  • ন্যাভিগেশন সিস্টেম
  • রিয়ারভিউ ক্যামেরা

টয়োটা ক্যামরি হাইব্রিড

টয়োটা ক্যামরি হাইব্রিড

টয়োটা ক্যামরি গাড়িটি সেডান পরিবারে বিশ্বব্যাপী একটি জনপ্রিয় নাম। এই টয়োটা ক্যামরি হাইব্রিডটি অন্যান্য ক্যামরি বাহন থেকে আলাদা নয় বরং এটি হাইব্রিড হওয়ায় দিচ্ছে অতিরিক্ত সুবিধা। 

টয়োটা ক্যামরি হাইব্রিডটি বিশ্ব বাজারে আছে আনুমানিক ২০০৭ সাল থেকে। এই হাইব্রিডটি ২০১৮ সালে পুনর্নির্মাণের মধ্য দিয়ে গিয়েছিল হাইব্রিড ক্যামরিসের তৃতীয় প্রজন্ম হিসাবে।

টয়োটা ক্যামরি হাইব্রিড ৫২ এম-পি-জি জ্বালানির মাধ্যমে ২.৫ লিটার ইঞ্জিনটি একটি সংযুক্ত ২৯৪ এইচ-পি – অসাধারণ শক্তি সরবরাহ করে!

মূল্যঃ ২৩+ লক্ষ টাকা 

টয়োটা ক্যামরি হাইব্রিডের কয়েকটি বৈশিষ্ট্য হাইলাইট করা হলোঃ

  • সাত ইঞ্চি টাচস্ক্রিন ডিসপ্লে
  • হিটেড ফ্রন্ট সিট্ 
  • সিক্স-স্পিকার সাউন্ড সিস্টেম
  • ব্লুটুথ সংযোগ এবং অ্যাপল কারপ্লে

লিংকন এম-কে-জেড হাইব্রিড

লিংকন এম-কে-জেড হাইব্রিড

আপনি কি আরও বেশি আকর্ষণীয় এবং বিলাসবহুল একটি হাইব্রিড গাড়ি চাচ্ছেন?

লাক্সারি সেডান লিংকন এম-কে-জেড হাইব্রিড এ আপনাকে স্বাগতম!

লিংকন এম-কে-জেড হাইব্রিড একটি বড় আকারের, বিলাসবহুল সেডান যা প্রচুর শক্তি এবং দুর্দান্ত ইন্টেরিওর সহ দিচ্ছে  আকর্ষণীয় ডিজাইন।আপনি যদি আকর্ষণীয় বিলাসবহুল সেডান এর কথা বলেন, 

তাহলে লিংকন দিচ্ছে ঐতিহ্যবাহী রং যেমন ভেলভেট ব্ল্যাক এছাড়াও রুবি রেড। 

বৈদ্যুতিক মোটরের সাথে থাকা ২.০ লিটার ফোর-সিলিন্ডার ইঞ্জিনটি ১৮৮ হর্সপাওয়ার এবং পাওয়ার ট্রেনের পারফরম্যান্সের সাথে ই-পি-এ – আনুমানিক ৪০ এমপিজি  সরবরাহ করতে পারে।

মূল্যঃ ৩৬+ লক্ষ টাকা 

লিংকন এম-কে-জেড হাইব্রিডের স্ট্যান্ডার্ড এবং ডিলাক্স মডেলের বিশেষ দিকগুলোঃ

  • এডাপ্টিভ সাসপেনশন 
  • ড্রাইভ সিট্  মেমরি সেটিংস
  • অ্যান্ড্রয়েড অটো এবং অ্যাপল কারপ্লে
  • সিমুলেটেড লেদার ইন্টেরিয়র 

টয়োটা প্রিয়াস সি হাইব্রিড

টয়োটা প্রিয়াস সি হাইব্রিড

টয়োটা প্রিয়াস মডেলগুলো বিশ্বব্যাপী হাইব্রিড যানবাহন সরবরাহ করার জন্য সেরা। বিশেষত, টয়োটা প্রিয়াস সি একটি কমপ্যাক্ট হ্যাচব্যাক ডিজাইন এবং মোট পাঁচটি আসনের জন্য চারটি দরজা রয়েছে। এটি বিস্তৃত ডিজাইনের সাথে শহরের ব্যস্ত রাস্তায় চালানোর জন্য আদর্শ। 

টয়োটা প্রিয়াস সি গাড়িটি ১.৫ লিটার এর চার সিলিন্ডার ইঞ্জিন দ্বারা চালিত। এর ইলেকট্রিক মোটরের সাথে ভ্যারিয়েবল ট্রান্সমিশন আপনাকে দিচ্ছে আদর্শ ৯৯ এইচপি যা শহরে দেয় আনুমানিক ৪৬ এমপিজি। যা হাইব্রিড গাড়ির জন্য অসাধারণ মাইলেজ। 

মূল্যঃ ১৮+ লক্ষ টাকা  

টয়োটা প্রিয়াস সি মডেলগুলোতে নিম্নলিখিত কয়েকটি বৈশিষ্ট্য রয়েছেঃ

  • ব্লুটুথ সাপোর্ট 
  • USB পোর্ট
  • এল-ই-ডি হেডলাইট এবং টেইল লাইট

হুন্ডাই সোনাটা হাইব্রিড

হুন্ডাই সোনাটা হাইব্রিড

হুন্ডাই সোনাটা হাইব্রিড একটি দুর্দান্ত মিডসাইজ সিডান যা শহর এবং শহরের বাইরে ড্রাইভিংয়ের জন্য উপযুক্ত। এটি যে কোনও পরিস্থিতিতে যাত্রী এবং ড্রাইভার উভয়কেই আরামদায়ক রাইড দেয়।

হুন্ডাই সোনাটা হাইব্রিডটি একটি ২.০-হাইব্রিড ফোর-সিলিন্ডার ইঞ্জিন দিয়ে ৬ গতির স্বয়ংক্রিয় ট্রান্সমিশন দ্বারা তৈরি করা হয়েছে। এটি সত্যিই অবিশ্বাস্য এবং শক্তিশালী ১৯২ হর্স পাওয়ার দিয়ে থাকে।

মূল্যঃ ২৫+ লক্ষ টাকা 

হুন্ডাই সোনাটা হাইব্রিডে নিম্নলিখিত আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্যগুলো অন্তর্ভুক্ত রয়েছেঃ

  • অ্যাপল কারপ্লে এবং অ্যান্ড্রয়েড অটো ইন্টিগ্রেশন 
  • ব্লাইন্ড-স্পট পর্যবেক্ষণ
  • অটোমেটিক হেডলাইট

ফোর্ড ফিউশন এনার্জি হাইব্রিড

ফোর্ড ফিউশন এনার্জি হাইব্রিড

ফোর্ড ফিউশন এনার্জি হাইব্রিড এমন কিছু দিচ্ছে যা আপনি অবশ্যই পছন্দ করবেন এবং এটি কেবলমাত্র একটি প্লাগ-ইন হাইব্রিড ভার্শন এজন্য নয়, কারণ ফোর্ডের ফিউজিং ইতিমধ্যে একটি আকর্ষণীয় এবং নামী মডেলের। এটি প্রচলিত ফিউশন এর চেয়ে বড় এবং হাইব্রিড হওয়ার জন্য আরও অনেক সুবিধা সরবরাহ করে।

ফোর্ড ফিউশন এনার্জি হাইব্রিড দিচ্ছে ড্রাইভিং অ্যাসিস্ট্যান্স, একাধিক ইনফোটেইনমেন্ট স্ক্রিন এবং অবিশ্বাস্য ১১-স্পিকার সাউন্ড সিস্টেম। আমেরিকান হাইব্রিডের এই গাড়িটি তার ২ লিটার হাইব্রিড ইঞ্জিনটি ব্যবহার করে ১২৯ টর্কের সাথে ১৮৮ এইচপি সরবরাহ করে। 

এমনকি আপনি চাইলে গতি কন্ট্রোল আপডেট মাধ্যমে গাড়িতে অডিও আনতে পারেন- যা ভবিষ্যতে দায়িত্বশীল ড্রাইভিং এর জন্য ব্যবহার হতে পারে।    

মূল্যঃ ৩১+ লক্ষ টাকা 

ফোর্ড ফিউশন এনার্জির মধ্যে নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্যগুলো অন্তর্ভুক্ত রয়েছেঃ

  • লেদার ইন্টেরিয়র 
  • দুটি ইউএসবি পোর্ট
  • এলইডি বাহ্যিক আলো 

টয়োটা প্রিয়াস হাইব্রিড

টয়োটা প্রিয়াস হাইব্রিড

হ্যাঁ, সেরা হাইব্রিড গাড়ির তালিকায় আরও একটি প্রিয়াস। টয়োটা প্রিয়াস স্ট্যান্ডার্ড হাইব্রিড গাড়িটি  হ্যাচব্যাক ডিজাইন এ চারটি দরজা দ্বারা সম্মৃদ্ধ।

টয়োটা প্রিয়াস হাইব্রিডের সাথে অন্তর্ভুক্ত আছে অসাধারণ বৈশিষ্ট এবং যা আকর্ষণীয় স্টাইলে পরিপূর্ণ। এটি  একা বা পারিবারিক গাড়ি হিসাবে নিখুঁত এটি আদর্শ গাড়ি।

ছোট্ট ১.৮ লিটার ফোর সিলিন্ডার ইঞ্জিনটি প্রিয়াস বৈদ্যুতিক মোটরের সাথে আপনাকে একটি বৃহত্ ইপিএ-আনুমানিক ৫২ এমপিজি এবং ১৬০ এইচপি পর্যন্ত দিয়ে থাকে।

মূল্যঃ ১৯+ লক্ষ টাকা

টয়োটার প্রিয়াস হাইব্রিডটিতে নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্যগুলো অন্তর্ভুক্ত রয়েছেঃ

  • রিয়ারভিউ ক্যামেরা
  • চাবিহীন ড্রাইভিং ডোর  
  • ফরোয়ার্ড সংঘর্ষের সতর্কতা

ফোর্ড ফিউশন হাইব্রিড

ফোর্ড ফিউশন হাইব্রিড

আমরা শেষ করব আমাদের লিস্টের আরেকটি সেরা গাড়ি – ফোর্ড ফিউশন হাইব্রিড দিয়ে। এটি স্নিগ্ধ, স্টাইলিশ এবং মাঝারি আকৃতির শহর ভ্রমণের জন্য এবং পারিবারিক ছুটির জন্য নিখুঁত আকারের সিডান। 

ফোর্ড ফিউশন একটি বৈদ্যুতিক মোটরের ২.০ লিটার ৪-সিলিন্ডার হাইব্রিড ইঞ্জিন সহ নির্মিত হয়েছে। এতে সবচেয়ে বেশি জোর দেয়া হয়েছে যাত্রী এবং চালক উভয়ের আরামের দিকে। আর অসামান্য পারফরমেন্স দেয় ১৮৮ হর্স পাওয়ার সহ উচ্চ প্রযুক্তির পার্ক।  

মূল্যঃ ২৩+ লক্ষ টাকা 

ফিউশন হাইব্রিড নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্যসমূহ সরবরাহ করেঃ

  • নাইন স্পিকার অডিও সিস্টেম
  • বাহ্যিক এলইডি অ্যাকসেন্ট লাইট
  • ৮ দিকে পাওয়ার ড্রাইভারের আসন
  • স্মার্টফোন সংহত

উপসংহার

আমরা দেখি যে, এখনকার হাইব্রিড গাড়িগুলো দিচ্ছে লাক্সারিয়াস সব সুবিধা যেমন আধুনিক  ইন্টেরিয়র, উচ্চ প্রযুক্তির গ্যাজেট, আরামদায়ক এবং  প্রশস্ত বসার ব্যবস্থা এছাড়াও  আরও অনেক কিছু যাতে  রয়েছে সুবিশাল বিলাসবহুল সুযোগ।

আপনি কেবল গতি নয়, সুরক্ষা এবং স্টাইল সহ রাস্তায় চলতে পারেন হাইব্রিড গাড়িতে। 

বিজ্ঞাপনের তথ্য অনুসারে, টয়োটা বাংলাদেশের জনপ্রিয়তার পাশাপাশি সাশ্রয়ীতার দিক থেকে বাজারের ৮০% শেয়ার দখল করে আছে। যদিও হাইব্রিড গাড়িগুলো এর ক্ষেত্রে কিছুটা পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। বাংলাদেশ রিকন্ডিশনড যানবাহন আমদানিকারক ও ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএআরভিআইডিএ) এর মতে, সম্প্রতি বাংলাদেশে ব্যবহৃত হাইব্রিড গাড়ির বিক্রয় প্রচুর পরিমাণে বেড়েছে। 

আপনি কি আপনার জন্য পরের গাড়িটি হাইব্রিড নিতে প্রস্তুত?

আমরা আজ যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছি তার সবগুলোর দুর্দান্ত আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এবং সংক্ষিপ্তভাবে সেরা হাইব্রিড গাড়িগুলো নিয়ে পর্যালোচনা করেছি তার যেকোনোটিতে চড়তে আপনি অবশ্যই পছন্দ করবেন।

নির্ভরযোগ্য বিক্রেতাদের কাছ থেকে সেরা দামের জন্য ভিজিট করুন Bikroy.com এর বিজ্ঞাপনগুলো।

Facebook Comments
সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

আরও দেখুন

অনুরূপ লেখা গুলো

Back to top button
Close
Close