বাংলাদেশের রিয়েল এস্টেটের মার্কেট : বিক্রেতাদের জন্য পরামর্শ

রিয়েল এস্টেটের মার্কেট বিক্রেতাদের জন্য পরামর্শ
Share

আমরা সবাই কম বেশি জানি যে বাংলাদেশে আজকাল প্রপার্টি বেচা-কেনার ব্যবসা বেশ জমজমাট আর জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে রিয়েল এস্টেট বিক্রি করার জটিল প্রক্রিয়াটি আজকের দ্রুত গতির উন্নয়নশীল অর্থনীতির যুগে বেশ সহজ হয়ে গেছে।

আগেকার দিনে রিয়েল এস্টেট ব্যবসায় অনেক অস্পষ্ট ব্যাপার ছিল, যা নিত্যদিনের সাধারণ মানুষের জন্য বোঝা বেশ কঠিন ছিল। এমনকি আদান-প্রদানের কিছু কিছু ধাপে বিক্রেতা ও ক্রেতার মধ্যে সরাসরি কোন সংযোগও ছিল না। এটা তখনকার কথা যখন দালাল অর্থাৎ একজন মধ্যস্থতাকারী ব্যক্তি প্রপার্টি বেচা-কেনার ব্যাপারে বড় ভূমিকা পালন করতেন এবং নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে রাখতেন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তারা ক্রেতা ও বিক্রেতা দুই পক্ষের কাছ থেকেই বড় অংকের কমিশন আদায় করে নিতেন, আর মূলত এটাই তাদের আসল ব্যবসা ছিল।

তবে এখন অনেক কিছুই বদলে গেছে। সরকারের বেশ কিছু কঠোর পদক্ষেপ এবং দেশে ইন্টারনেট ভিত্তিক সার্ভিসগুলো চালু হওয়ার পর থেকে আজ প্রপার্টি বেচা কিংবা কেনা অনেক বেশি সহজ ও সুবিধাজনক হয়ে গেছে। Bikroy.com -এর মত অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে মানুষ অল্প সময়ে খুব সহজেই তাদের প্রপার্টি বিক্রির জন্য বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। আর ক্রেতারাও এরকম প্ল্যাটফর্মের সুবাদে বেশ ঝামেলা ছাড়াই খুঁজে পাচ্ছেন নানা রকম প্রপার্টির বিজ্ঞাপন। আপনার প্রপার্টির জন্য একজন ক্রেতা খুঁজে পাওয়া বা ভালো প্রপার্টির বিক্রেতাদের খুঁজে পাওয়া এখন আপনার ফোনে মাত্র কয়েকটি ট্যাপের ব্যাপার।

আজ আমরা প্রপার্টি সফল ভাবে বিক্রি করার মত কষ্টকর ও কঠিন একটা কাজ নিয়ে আলাপ করবো। আমাদের বিশ্বাস, এই লেখাটা পড়ে শেষ করার আগেই কাজটা আপনার কাছে আগের চেয়ে বেশ সহজ বলে মনে হবে।

প্রপার্টি বিক্রেতা হিসেবে আপনাকে যা করতে হবে

আপনার দাবি গুলো ঠিক ভাবে বুঝে নিন

আপনার যেকোনো ধরণের প্রপার্টি বিক্রি করার সর্বপ্রথম ধাপ হচ্ছে আপনার উদ্দেশ্য ও চাহিদাগুলো সনাক্ত করা। এটা আপনি যার সাথে ব্যবসায় জড়াচ্ছেন শুধুমাত্র তার জন্যই নয়, বরং আপনার জন্যও দরকারি। কেননা নিজের প্রয়োজন ও চাহিদা বুঝে ঐ ডিল থেকে আপনি ঠিক কি আশা করতে পারেন তা বুঝতেও সাহায্য করবে এই ধাপটি। উদাহরণস্বরূপ, আপনি ঠিক কী পরিমান জমি বিক্রি করতে চাইছেন, কেমন দামে বিক্রি করার চিন্তা করছেন সেই সম্পর্কে আপনার স্পষ্ট ধারণা থাকতে হবে। একই সাথে বর্তমান মার্কেটের সার্বিক অবস্থা বোঝা এবং তার সাথে আপনার সেই জমি ও ধারণার তুলনা করে দেখাও জরুরি।

প্রপার্টি ও সেটার বাজার মূল্য নিয়ে রিসার্চ করুন

এর পর আপনাকে যে কাজটি করতে হবে তা হলো আপনার প্রপার্টি সম্পর্কে সব রকম তথ্য সংগ্রহ করা, হোক তা জমি, ফ্ল্যাট কিংবা বাড়ি। আপনার প্রপার্টিটির সাইজ, সামগ্রিক অবস্থা ইত্যাদি যাবতীয় খুঁটিনাটি তথ্য নোট করে রাখুন। সেই প্রপার্টির যথাযথ মূল্য পাওয়ার জন্য আপনাকে দেশের প্রপার্টি মার্কেট নিয়ে বিশেষ ভাবে রিসার্চ করে রাখতে হবে। এই পর্যায়ে আপনার মনে হয়ত ঐ প্রপার্টিটি আরো উন্নত ও আপডেট করার চিন্তাও আসতে পারে, কেননা তাতে ঐ প্রপার্টির বাজারমূল্য বেশ ভালো রকম বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

কাগজপত্র ও দলিল ঠিকঠাক করে নিন

আপনার প্রপার্টির সাথে জড়িত সব রকম দরকারি কাগজপত্র ও দলিল আপনার হাতে তৈরি থাকতে হবে। সেটা যদি উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া প্রপার্টি হয়, তাহলে যার কাছ থেকে পেয়েছেন তার মৃত্যু সনদও আপনার কাছে থাকার প্রয়োজন পড়তে পারে। যদি উত্তরাধিকার সূত্রে আপনার সাথে আরো কয়েকজন প্রপার্টিটি পেয়ে থাকেন, তাহলে সেটা বিক্রি করার জন্য আপনাকে বাকিদের থেকে সম্মতিও নিতে হবে। যদি আপনি কারো পক্ষ থেকে তার প্রপার্টিটি বিক্রি করার চেষ্টা করেন, তাহলে সেটা করার জন্য আপনার কাছে তার আইনসম্মত প্রতিনিধি অর্থাৎ পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি হওয়ার দলিল থাকতে হবে। আর প্রপার্টিটি যদি একান্তই আপনার নিজের হয় তাহলে আপনার কাছে সেটার মালিকানার দলিল, ট্যাক্স, রেজিস্ট্রেশন সহ সব রকম দরকারি কাগজপত্রই থাকতে হবে।

আপনার প্রপার্টিটি বিক্রির জন্য প্রদর্শন করুন

আজকের এই ইন্টারনেটের যুগে স্বাভাবিক ভাবেই বেশির ভাগ আগ্রহী ক্রেতারা তাদের স্মার্ট ডিভাইস ব্যবহার করে নিজ নিজ ঘরে বসে আপনার প্রপার্টি সম্পর্কে খোঁজ খবর নেয়ার চেষ্টা করবেন। আপনার প্রপার্টিটির ছবি ও ভিডিও ধারণ করার সময় তাই পরিস্কার ও ভালো রেজল্যুশনের ক্যামেরা ব্যবহার করার চেষ্টা করবেন। এমনকি আধুনিক যুগের বিভিন্ন স্মার্ট পদ্ধতিতেও আপনার প্রপার্টি প্রদর্শন করতে পারেন, যেমন ৩৬০ ডিগ্রি ছবি, প্যানারোমা ইত্যাদি। এই উপায়ে আপনি আপনার সম্ভাব্য ক্রেতাদেরকে আপনার প্রপার্টির একটি পরিপূর্ণ ভার্চুয়াল জার্নি কিংবা একটি আকর্ষণীয় গ্রাফিকাল প্রেজেন্টেশন দিতে পারবেন। প্রপার্টি কিনতে চান এমন অনেকেই হয়ত এই মুহূর্তে তাদের ডেস্কটপ, ল্যাপটপ, ট্যাবলেট কিংবা স্মার্টফোন হাতে নিয়ে প্রপার্টি কেনার জন্য রিসার্চ করছেন।

প্রপার্টির বিজ্ঞাপন দিন অর্থাৎ যথাযথ মার্কেটিং করুন

আপনার প্রপার্টির সব রকম তথ্য ও তৈরি করা ছবি, ভিডিও ইত্যাদি সব কিছু মানুষের নজরে পড়ার জন্য Bikroy -এর প্রপার্টি পোর্টালের মত যেকোন একটি প্ল্যাটফর্ম আপনাকে ব্যবহার করতেই হবে। একটি ভালো ও ডেডিকেটেড রিয়েল এস্টেট প্ল্যাটফর্মই পারবে আপনার প্রপার্টিকে নিশ্চিত ভাবে সঠিক টার্গেট অডিয়েন্স বা ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দিতে। আর সঠিক ও নিখুঁত মার্কেটিং আপনার প্রপার্টি বিক্রির সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে দিবে বহুগুণে।

আগ্রহী ক্রেতাদের সাথে আলাপ করুন

এরপর আপনার করণীয় হচ্ছে আগ্রহী ক্রেতাদের সাথে যোগাযোগ ও আলাপ আলোচনা করে আপনার প্রপার্টিটি সামনাসামনি দেখানোর জন্য একটা পরিদর্শনের ব্যবস্থা করা। এর ফলে সম্ভাব্য ক্রেতারা ভালো ভাবে জেনে বুঝে আপনার প্রপার্টি কেনার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন। আসলে এই ধাপটি দুই পক্ষের জন্যই সমান লাভজনক, কেননা এখানে একই সাথে আপনার প্রপার্টিটি দ্রুত বিক্রি হওয়ার সম্ভাবনাও বেড়ে যাচ্ছে।

চুক্তিনামা ও কাগজপত্র প্রস্তুত করুন

আপনি ও আপনার ক্রেতা উভয় পক্ষই যখন একমত হয়ে যাবেন, তখন আপনি আপনার আইনি কাগজপত্রগুলো মালিকানা বদলের জন্য প্রস্তুত করা শুরু করতে পারবেন। চূড়ান্ত দলিল এবং সমস্ত প্রাসঙ্গিক কাগজপত্রে ক্রেতার পেমেন্ট সম্পর্কিত সব রকম খুঁটিনাটি তথ্য উল্লেখ করতে হবে। একই সাথে সরকারের ফি কিংবা ট্যাক্স, এবং এই লেনদেন সংক্রান্ত সব রকম খরচের তথ্যও কাগজপত্রে উল্লেখ করা আবশ্যক।

আপনার প্রপার্টিটি হস্তান্তর করুন

উপরের সবগুলো ধাপ পার হওয়ার পর সর্বশেষ আপনাকে যা করতে হবে তা হলো বিক্রি হওয়া প্রপার্টিটি নতুন মালিকদের কাছে সরাসরি হস্তান্তর করা। ব্যাস… আর এখানেই আপনার প্রপার্টি বিক্রি সম্পন্ন হল!

ঝুট ঝামেলায় পড়তে না চাইলে যা যা অবশ্যই করতে হবে

আর হ্যাঁ, নিশ্চয়ই সব সময় আপনার প্রপার্টি এত সহজে বিক্রি হয়ে যাবে না। এরই মাঝে একজন প্রপার্টি বিক্রেতা হিসেবে আপনার পথে এমন কিছু বাধাও আসবে, যা অতিক্রম করা বেশ কঠিন। বাংলাদেশে রিয়েল এস্টেটের মার্কেটের এই রকম জটিল পরিস্থিতির অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে এর সাথে জড়িয়ে থাকা নানা রকম আইনি মারপ্যাঁচ। প্রপার্টির ব্যাপারে এদেশে অনেক রকম আইন এবং কৌশল রয়েছে যেগুলোর সামনে আপনাকে পড়তেই হবে। পাশাপাশি সর্বজনীন ভাবে স্পষ্ট কোন পদ্ধতি না থাকার দরুণ আগে থেকে পরিকল্পনা করে না রাখলে প্রপার্টি বিক্রি করা আপনার জন্য বেশ কঠিন হয়ে যাবে। ফলস্বরূপ, অনেক প্রপার্টি মালিকরাই হয় বাজার মূল্যের চেয়ে অনেক কম দামে নিজ নিজ প্রপার্টি ছেড়ে দিতে বাধ্য হন, নয়ত মার্কেটপ্লেসে অনেক লম্বা সময় ধরে তাদের প্রপার্টির বিজ্ঞাপন ঝুলে থাকার হতাশায় পড়ে যান। এই ধরণের ঝামেলা ও কঠিন পরিস্থিতি থেকে বেঁচে থাকতে হলে নিচের কিছু বিষয় ভালোভাবে মনের মধ্যে গেঁথে নিন।

কাগজপত্রের ব্যাপারে কোনো রকম অবহেলা নয়

যেকোনো জটিলতা এড়ানোর জন্য সর্বপ্রথম আপনাকে আপনার প্রপার্টির যাবতীয় কাগজপত্র একসাথে প্রস্তুত করে রাখতে হবে। যেখানেই আর যার কাছেই রাখুন না কেন, প্রপার্টিটি বিক্রি করার প্রক্রিয়া শুরু করার আগেই আপনার হাতে সবগুলো কাগজ প্রস্তুত করে রাখতে হবে। শুধুমাত্র হাতের মুঠোয় এ সবগুলো দলিল ও কাগজ তৈরি থাকলে অর্ধেকেরও বেশি সমস্যা এমনিতেই সমাধান হয়ে যাবে।

আইনি পরামর্শ নিন

এরকম গুরুত্বপূর্ণ একটা ব্যাপারে আপনার কোন বন্ধু, পরিবারের কোন সদস্য, কিংবা বন্ধু, পরিবার বা সহকর্মীর কোনো আত্মীয়ের আশায় বসে থাকাটা বোকামি। বরং সত্যিকার অর্থে বাংলাদেশে রিয়েল এস্টেটের সাথে জড়িত আছেন এমন কোন এক্সপার্টের কাছ থেকে সাহায্য নিন। আপনার পরিবার কিংবা পাড়া-প্রতিবেশীদের মধ্যে সম্প্রতি জমি বা প্রপার্টি বিক্রি করেছেন, এমন কারো কাছে গিয়ে সময় নষ্ট না করে উপযুক্ত পরামর্শের জন্য একজন আইনি প্রফেশনালের কাছে যান।

একজন আইনজীবী বা আইনি প্রফেশনাল আপনাকে শুধুমাত্র সবকিছু ঠিকঠাক গুছিয়েই দেবে না, একই সাথে যে কোন রকম সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা থাকলে সেখানে উপযুক্ত পদক্ষেপ নিতেও আপনাকে সাহায্য করবে। আপনার কোনো ভুল থাকুক বা না থাকুক, এরকম একটা বড় লেনদেনের মামলায় ভুল হয়ে যাওয়ার সাংঘাতিক ঝুঁকি না নিয়ে বরং একজন প্রফেশনালের কাছ থেকে আইনি পরামর্শ ও সাহায্য নিয়ে নিরাপদ থাকুন। কেননা একজন প্রফেশনাল আইন কানুন এবং বাংলাদেশে প্রপার্টি বিক্রি করার সম্পূর্ণ আইনগত পদ্ধতিগুলো খুব ভালোভাবেই জানেন।

একজন নির্ভরযোগ্য ও বিশ্বস্ত রিয়েল এস্টেট এজেন্ট নিযুক্ত করুন

শুধুমাত্র বাংলাদেশেই নয়, পুরো বিশ্ব জুড়েই ব্যবসার জন্য রিয়েল এস্টেট বেশ লোভনীয় ও আকর্ষণীয় এক ক্ষেত্র। দুর্ভাগ্যবশত বিশ্ব জুড়ে রিয়েল এস্টেট এজেন্ট অথবা কোম্পানিগুলোর উপর আস্থার অভাবও একটা বড় চ্যালেঞ্জ। কিন্তু বাংলাদেশের ইতিহাসে সম্প্রতি এই প্রথম বার বেশ কিছু ভালো রিয়েল এস্টেট এজেন্ট এবং সার্ভিসদাতা কোম্পানি আমরা উঠে আসতে দেখেছি। প্রতিনিয়ত আরো অধিক সংখ্যক রিয়েল এস্টেট প্রফেশনালরা তাদের পেশাদারি সার্ভিস ও অভিজ্ঞতার প্রমাণ দিয়ে মানুষের আস্থা ও নির্ভরতা অর্জন করে নিচ্ছে।

আপনি যখন একজন ভালো রিয়েল এস্টেট এজেন্টের কাছে যাবেন, তখন আপনার বেশির ভাগ পরিশ্রম কমে যাবে। তখন অনেক কঠিন আর জটিল কাজগুলো আপনি এমন সব এক্সপার্টের হাতে ছেড়ে দিতে পারবেন, যারা রিয়েল এস্টেটের ব্যবসার নাড়ি নক্ষত্র সব যানেন। অতএব আপনার মাথার ওপর থেকে একটা বিশাল বোঝা নেমে যাবে।

রিয়েল এস্টেট এজেন্টদের মধ্যে অনেকেই শুধুমাত্র একটি প্রপার্টি বিক্রির জন্য বিজ্ঞাপন দিয়েই ক্ষান্ত হন না, বরং তারা আরো এক ধাপ এগিয়ে আপনাকে সহায়তা করবেন। আপনার যদি কোন রকম আইনি সহায়তার প্রয়োজন পড়ে, সেই দিক থেকেও তারা সার্ভিস দিতে প্রস্তুত। এই ক্ষেত্রে আপনাকে আইনি পরামর্শের জন্য আলাদা কোথাও যাওয়ার প্রয়োজন হবে না।

অন্যান্য উন্নত দেশগুলোর মত বাংলাদেশেও রিয়েল এস্টেট ব্যবসার প্রসার হচ্ছে। সারা বাংলাদেশের সবগুলো শহরের প্রপার্টি অনলাইনে বিক্রির জন্য Bikroy -এর প্রপার্টি পোর্টালে রয়েছে দেশের অন্যতম বিশাল রিয়েল এস্টেট ডাটাবেজ। বিক্রির জন্য জমি, ফ্ল্যাট, বাড়ি বিক্রি সহ আরো নানা রকম প্রপার্টির হাজার হাজার বিজ্ঞাপন থেকে প্রতিনিয়ত বেচা-কেনা চলছে এই সাইটে।

দেখে নিন Bikroy -এর প্রপার্টি পোর্টালে এই মুহূর্তে চলছে যেই সেরা রিয়েল এস্টেট ডিলগুলো!

রিয়েল এস্টেট বাংলাদেশের অন্যতম লাভজনক ও লোভনীয় এক ব্যবসা

প্রায় ৫০০ বছরেরও বেশি সময় জুড়ে বিস্তার করে রয়েছে ঢাকা মহানগরীর সমৃদ্ধ ইতিহাস। কিন্তু বিগত কয়েক বছরে এই শহরের সমৃদ্ধি ও জনপ্রিয়তা সূচক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে ঢাকা একটি বিপুল ঘনবসতিপূর্ণ শহরে রূপ নিয়েছে, যেখানে একই শহরে ১ কোটিরও বেশি মানুষ একসাথে বসবাস করছে। যা আধুনিক যুগে মেগাসিটির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত বটে। অতএব বুঝতেই পারছেন যে এই শহরে অন্য শতাধিক সমস্যার পাশাপাশি বসতবাড়ি অর্থাৎ হাউজিং এর ক্ষেত্রেও ব্যাপক চ্যালেঞ্জ তৈরি হয়েছে। কিন্তু এতকিছুর পরও বাংলাদেশের রিয়েল এস্টেট ব্যবসা অনেক বেশি লাভজনক। এই মুহূর্তে প্রপার্টি কেনা কিংবা বিক্রির জন্য ঢাকা শহরের অন্যতম জনপ্রিয় এলাকাগুলোর মধ্যে কয়েকটি হচ্ছে বসুন্ধরা, ধানমন্ডি, গুলশান, মিরপুর এবং উত্তরা।

২০১৯ সালে বাংলাদেশে প্রপার্টি বিক্রি করার কিছু দরকারি টিপস

সোশ্যাল মিডিয়ার সাহায্য নিন

এই সময়ে ফেসবুক, টুইটার, পিন্টারেস্ট, ইন্সটাগ্রাম ইত্যাদির শক্তিশালী নেটওয়ার্কিং ক্ষমতার সদ্ব্যবহার করুন। ইউজারদের সাথে মেলামেশা করার জন্য কমেন্ট ও অন্যদের সাথে শেয়ারিং করার মাধ্যমে আরো বেশি করে মানুষের নজরে পড়ার চেষ্টা করুন। কাজটা হয়ত অনেক সহজ না, কিন্তু নিশ্চিতভাবে এটাই ২০১৯ সালে মার্কেটিং করার অন্যতম কার্যকরী এক উপায়।

আপনার প্রপার্টির বিজ্ঞাপন কিংবা পোস্টে শেয়ার বাটনটি অন রাখুন, যাতে করে সোশ্যাল মিডিয়ার অন্যান্য ইউজাররা সহজেই সেটা শেয়ার করতে পারেন। লাইক, শেয়ার আর কমেন্ট বাটনের মত সহজ জিনিসগুলোকে কাজে লাগিয়ে আপনার দর্শকদের উৎসাহ দিন। সহজেই ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ ইত্যাদি প্ল্যাটফর্মে শেয়ার করার জন্য আলাদা আলাদা শেয়ার বাটন রাখলে আপনার পোস্টগুলো খুব অল্প সময়ে আরো বেশি মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়া সম্ভব।

অভিজ্ঞ বা প্রফেশনালদের দেখে শিখুন

বিভিন্ন সফল রিয়েলটর কিংবা স্বতন্ত্র এজেন্টদের লক্ষ্য করে দেখুন, তারা মানুষের নজরে আসার জন্য কী কী করছেন, আর সেগুলো অনুসরণ করার চেষ্টা করুন। কীভাবে তারা তাদের প্রপার্টির প্রচারণা করছেন, কীভাবে তাদের ওয়েবসাইট ডিজাইন করছেন, এমনকি তারা সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের পোস্টগুলো কেমন স্টাইলে আর কত দিন পর পর শেয়ার করছেন। রিয়েল এস্টেট ব্যবসায় সফল হওয়ার জন্য এক্সপার্টদের কাছ থেকে অনুপ্রেরণা নেয়া ভালো।

নিজেকে সব সময় যোগাযোগের জন্য প্রস্তুত রাখুন

আপনার সম্ভাব্য ক্রেতারা যাতে আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারে সেই পথ সহজ করে দিন। আপনার যোগাযোগের মাধ্যম ও তথ্য গুলো সহজে চোখে পড়ার মত করে সাজান এবং সরাসরি কল কিংবা মেসেজ পাঠানোয় উৎসাহ দেয়ার জন্য বিভিন্ন ‘কল টু অ্যাকশন’ উক্তি বা বাটন ব্যবহার করুন। এছাড়াও আপনি প্রচলিত পদ্ধতিতে একটি ট্রেন্ডী বিজনেস কার্ড বা প্রচারপত্র ডিজাইন করার আইডিয়াও কাজে লাগাতে পারেন।

প্রপার্টির লোকেশনের আকর্ষণীয় দিকগুলো প্রচার করুন

যেকোনো নির্দিষ্ট এলাকায় প্রপার্টি বিক্রি করার সময় তার আশে পাশে যাওয়া আসা করার মত ভালো ও আকর্ষণীয় জায়গাগুলোকে আপনার হাতিয়ার করে নিন। জনপ্রিয় দোকান বা সুপারশপ, বৈশিষ্ট্যপূর্ণ স্থাপনা, মনোরম পরিবেশ ইত্যাদি বিভিন্ন ভালো দিককে লক্ষণীয় করে প্রচারণায় উল্লেখ করুন। ক্রেতাদের আগ্রহ বাড়ানোর জন্য সেখানকার ভালো স্কুল এবং ঐ এলাকায় চাকরি করার সুযোগ ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ সুবিধার কথা প্রচার করুন।

ভালো ফটোগ্রাফির পেছনে বিনিয়োগ করুন

আপনার প্রপার্টির ছবি ও ভিডিও প্রফেশনাল ভাবে ধারণ করার জন্য কিছুটা বাজেট আলাদা করে রাখুন। আপনার ওয়েবসাইটে বিক্রিযোগ্য প্রপার্টির ভার্চুয়াল ভ্রমণ ও প্রদর্শনী করার জন্য থ্রি-ডি ক্যামেরা ও ইমেজের পেছনে বিনিয়োগ করার কথা ভেবে দেখতে পারেন। শুধুমাত্র একটা খারাপ ছবির কারণে হয়ত আপনার সবচেয়ে সুন্দর ও আকর্ষণীয় প্রপার্টিও আগ্রহী ক্রেতাদের মন জয় করায় ব্যর্থ হতে পারে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাড দিতে পারলে আরো ভালো

ফেসবুক অ্যাড-এ টাকা খরচ করাকে অপচয় মনে করার মত ভুল করবেন না। সোশ্যাল মিডিয়ার সুবিশাল নেটওয়ার্কে পরিকল্পিত ভবে অ্যাড দিয়ে দেখুন, আশা করি বেশ সন্তোষজনক ফলাফল পাবেন।

সম্ভব হলে একটি ওয়েবসাইট বানান

আপনার হাতে যদি বিক্রি করার জন্য বেশ কয়েকটি প্রপার্টির তালিকা প্রস্তুত থাকে, আর এই কাজকে ক্যারিয়ার কিংবা সাইড বিজনেস হিসেবে করতে চান, তাহলে একটা ওয়েবসাইটে বিনিয়োগ করুন। পয়সা খরচ করে একটা সুন্দর ওয়েবসাইট ডিজাইন করুন এবং সেটাকে ট্রেন্ডী করে বানান। পাশাপাশি ২০১৯ সালে এসে আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটটি বিভিন্ন ভ্রাম্যমান ডিভাইস যেমন স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট ইত্যাদিতে সাপোর্ট করার মত উপযোগীও করতে হবে।

ইতিকথা

আশা করি আমাদের আজকের প্রতিবেদনটি পড়ার পর আপনি আপনার প্রপার্টি বিক্রি করার ব্যাপারে বেশ আত্মবিশ্বাসী থাকতে পারবেন। Bikroy -এর প্রপার্টি পোর্টালের মত একটি চমৎকার রিয়েল এস্টেট প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে দেখুন। হাজার হাজার প্রপার্টির বিজ্ঞাপন ব্রাউজ করুন এবং আপনার প্রপার্টির বিজ্ঞাপন পোস্ট করুন Bikroy -এ। আর দেশ জুড়ে বিভিন্ন বড় শহর থেকে সাড়া পাওয়ার জন্য তৈরি হয়ে যান।

আজই ভিজিট করুন Bikroy.com/Property!

আমাদের প্রতিবেদনটি আপনার কাছে কেমন লেগেছে? আপনার ভাবনা, মতামত এবং বাংলাদেশে প্রপার্টি বিক্রি করার জন্য আরো কিছু টিপস জানান আমাদের কমেন্ট সেকশনে।

বিক্রেতাদের নিয়মিত কিছু প্রশ্নের উত্তর

কীভাবে Bikroy.com -এ আমার প্রপার্টির বিজ্ঞাপন দিবো?

অন্য যেকোনো সাধারণ বিজ্ঞাপনের মতই Bikroy.com -এ বিক্রির জন্য যেকোন প্রপার্টি, যেমন- জমি, বাড়ি কিংবা ফ্ল্যাটের বিজ্ঞাপন পোস্ট করা যায়। কাজটা খুবই সহজ, আর এটা করতে হলে আপনাকে এখানে একটা অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য সাইন-আপ করতে হবে। Bikroy -এ একাউন্ট খোলা সম্পূর্ণ ফ্রি, দ্রুত ও সহজ একটা কাজ। আপনার প্রপার্টি Bikroy -এ বিক্রি করতে চাইলে শুধুমাত্র আমাদের ‘বিজ্ঞাপন দিন’ বাটনটিতে ক্লিক করুন, আর বিজ্ঞাপন পোস্ট করার জন্য স্ক্রিনে ভেসে আসা নির্দেশ গুলো অনুসরণ করুন।

Bikroy.com -এ আমার পোস্ট করা প্রপার্টির বিজ্ঞাপনটি দেখতে পারছি না কেন?

আপনার বিজ্ঞাপনটি জমা দেয়ার পর সেটিকে রিভিউ করার জন্য সেভ করে রাখা হয়। যদি আপনার বিজ্ঞাপনটি যদি সফল ভাবে অনুমোদন পেয়ে যায়, শুধুমাত্র তখনই সেটা প্রকাশিত হয়। আপনার বিজ্ঞাপনটি জমা হওয়ার পর সেটার অবস্থা জানানোর জন্য আপনার অ্যাকাউন্টে যোগাযোগ করা হবে। Bikroy.com -এ পোস্ট হওয়া প্রতিটি বিজ্ঞাপনই রিভিউ করা হয় এবং Bikroy -এর যেকোন পলিসি বা নিয়ম ভঙ্গ করলে আপনার পোস্টটি সাথে সাথে রিজেক্ট হয়ে যাবে। ইমেইল-এর মাধ্যমে আপনার পোস্টের অবস্থা আপনাকে জানানো হবে। একটি পোস্টের রিভিউ সম্পন্ন হতে এবং অ্যাডটি পোস্ট হতে সর্বোচ্চ ২৪ ঘন্টা পর্যন্ত সময় লাগতে পারে।

কোন বিজ্ঞাপন পোস্ট করার জন্য কি Bikroy আমার কাছ থেকে টাকা নিবে?

প্রতি মাসে Bikroy.com নির্দিষ্ট কিছু সংখ্যক অ্যাড ফ্রি-তে পোস্ট করার সুবিধা দিয়ে থাকে। এই ফ্রি পোস্টের কোটা অতিক্রম হয়ে গেলে আরো বিজ্ঞাপন দেয়ার জন্য হয় আপনাকে একজন মেম্বার হতে হবে, নয়তো এর পরবর্তী মাসে নতুন কোটা পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হবে। 

Bikroy কি সম্ভাব্য ক্রেতাদের কাছ থেকে আমার প্রপার্টির জন্য কোনও নিরাপত্তা দিতে পারবে?

Bikroy.com ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয় পক্ষের লাভের দিকে খেয়াল রেখে কাজ করে। এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করার সময় গ্রাহকদের নিজের, নিজ নিজ পণ্যের এবং অন্যদের সকলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য আমরা সব সময়ই সচেতন থাকি। যেকোনো ধরণের সন্দেহজনক কিছু ঘটতে দেখলে আপনারা সব সময় আমাদের ‘হেল্প ও সাপোর্ট’ বিভাগের পেইজগুলোতে রিপোর্ট করতে পারবেন।

সম্ভাব্য ক্রেতারা Bikroy.com -এ আমার পোস্ট কীভাবে খুঁজে পাবেন?

Bikroy.com-এর ডাটাবেজে জমা হওয়া সমস্ত প্রপার্টির বিজ্ঞাপন খোঁজার জন্য Bikroy.com-এ রয়েছে একটি ইন্টারেকটিভ সার্চ পোর্টাল। এখানে ভিজিট করে গ্রাহকরা সার্চ থেকে প্রাসঙ্গিক ফলাফল পাওয়ার জন্য বিভিন্ন অপশন থেকে বেছে নিতে পারবেন, যেমন- ক্যাটাগরি অনুযায়ী, বিক্রির জন্য, ভাড়ার জন্য, নির্দিষ্ট শহর অনুযায়ী, অ্যাড কখন পোস্ট করা হয়েছে, মূল্য অনুযায়ী বাছাই ইত্যাদি। আপনি যদি আপনার প্রপার্টির বিজ্ঞাপনকে আরো উন্নত করতে চান তাহলে আপনি সেটা প্রোমোটও করতে পারবেন।

সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

Comments

comments