ঢাকা শহরের যেসব এলাকা ফ্ল্যাট কেনার জন্য জনপ্রিয়

ঢাকায় ফ্ল্যাট কিনুন
Share

ঢাকা শহর, শত বছরের পুরনো, ইতিহাসের পাতায় আঁকা, গল্পে ঘেরা, প্রাচুর্যে ভরা প্রাণের শহর। প্রায় ৫০০ বছরের দীর্ঘ সময়ে এই ঐতিহাসিক শহর কত কিছুই না দেখেছে, কিন্তু ইদানিং বেশ কিছু বছর ধরে বিশাল সব পরিবর্তন ঘটে গেছে এই শহরের মাঝে, অভিজ্ঞতার ঝুলি হয়েছে ভারি। বর্তমানে ঢাকা শহরের বুকে দেড় কোটিরও বেশি মানুষ বসবাস করছে, যদিও এই সংখ্যা এর চেয়েও বেশি হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি, কেননা বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশগুলোয় জনসংখ্যা পরিমাপ করার কোন পর্যাপ্ত, নির্ভরযোগ্য মাধ্যম নেই। কম করে বলতে গেলে, ঢাকা শহর বর্তমানে একটি স্বল্প আয়তনের মেগা সিটি!

এই শহর বাংলাদেশের অর্থনৈতিক কেন্দ্রস্থল হবার কারণে দিন কে দিন এর জনসংখ্যা বেড়েই চলেছে। মুহূর্তে বহমান অর্থনীতি আর বাড়তে থাকা জনসমাগম এর চক্করে ঘনবসতিতে ছেয়ে গেছে ঢাকার অলি গলি। একই সাথে একটি উন্নয়নশীল দেশের রাজধানী হওয়ার কারণে একবিংশ শতকের একটি মেগা সিটি হিসেবে ঢাকা শহরে বিভিন্ন রকম ঘাটতি দেখা যাচ্ছে ইতোমধ্যেই। অগণিত সমস্যার মাঝে অন্যতম বড় একটি সমস্যা হলো থাকার জন্য পর্যাপ্ত বাসস্থানের অভাব। বর্তমানে বাসস্থানের বিশাল চাহিদা মেটানোর মত পর্যাপ্ত প্রপার্টি পাওয়া যায় না। কিন্তু এর পেছনে দায়ী নানা সমস্যার পাশাপাশি এই শহরের বিক্রিযোগ্য প্রপার্টি খুঁজে পাওয়ার বিশ্বস্ত মাধ্যমের অভাবটাও।

নিঃসন্দেহে এ শহরের বেশির ভাগ হাউজিং বা প্রপার্টি ইতোমধ্যে বিভিন্ন মানুষের দখলে কিন্তু তারপরও ঢাকা শহরে এমন কিছু জনপ্রিয় এলাকা রয়েছে যেখানে বেশির ভাগ মানুষই ব্যবহৃত ফ্ল্যাট কিংবা অ্যাপার্টমেন্ট কিনতে আগ্রহী। ঢাকা শহরে ব্যবহৃত ফ্ল্যাটের বিক্রির হার সম্পর্কে ব্যাপক বিশ্লেষণ ও গবেষণা করার পর, আমরা ঢাকা শহরে ফ্ল্যাট ও অ্যাপার্টমেন্ট কেনার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু এলাকা খুঁজে বের করেছি। আপনি যদি ঢাকায় বিক্রির জন্য একটি রেডি ফ্ল্যাট কেনার ব্যাপারে আগ্রহী হন বা চেষ্টা করে থাকেন, তাহলে এই প্রতিবেদনটি পড়ে শুরু করতে পারবেন স্বপ্নের ফ্ল্যাটের খোঁজ।

ঢাকায় অ্যাপার্টমেন্ট কিনুন

আপনি কি ঢাকায় বিক্রির জন্য রেডি ফ্ল্যাট খুঁজছেন? তাহলে ঢাকা শহরের সবচেয়ে জনপ্রিয় যায়গাগুলোর মধ্যে চিনে নিন সেরা এলাকাগুলো। আমাদের খোঁজ ও বিবরণ সম্পর্কে পাঠকদের মনে কোন প্রকার পক্ষপাতদুষ্টতা কিংবা বিতর্কের উদ্রেক না হয় সেজন্য এলাকাগুলোর নাম ইংরেজি বর্ণমালার ধারাবাহিকতায় পরিবেশন করা হলো।

বসুন্ধরা

বিগত দশক জুড়ে আমাদের দেশের জাতীয় রিয়েল এস্টেট শিল্প সামগ্রিক ভাবে একটি ঊর্ধ্বগামী গ্রাফে রূপ নিয়েছে এবং অনেক উন্নত হয়েছে। রাজধানী ঢাকা শহরে এই শিল্প বেশ কিছুদিন ধরে খুব দ্রুত বিস্তার লাভ করে চলেছে। এই রিয়েল এস্টেট শিল্প বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়নেও বড় একটা ভূমিকা পালন করছে। একই সাথে জীবনযাত্রার মান উন্নত হয়েছে এবং জনমানুষের মনে অ্যাপার্টমেন্ট কেনার প্রচলন বা অ্যাপার্টমেন্ট সংস্কৃতির মত বড় একটা পরিবর্তনও এসেছে এই দেশে। ঢাকায় সম্ভাবনাময় ও জনপ্রিয় এলাকার তালিকায় অন্যতম এক নাম ‘বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা’, যা অ্যাপার্টমেন্ট সংস্কৃতিতে আগ্রহী জনসাধারণের কাছে এক অন্যতম আকর্ষণীয় যায়গা। যাদের কাছে বাজেট বেশ হালকা ও সহজ একটা ব্যাপার তাদের জন্য ঢাকার মত ব্যস্ত মেগা সিটির মাঝে একান্ত নিজস্ব একটি ফিটফাট ও সর্বোৎকৃষ্ট জীবনধারার চাহিদা একটি আকর্ষণীয় অপশন বটে।

বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা এর বাসিন্দাদের আজকের দিনের সব রকম আধুনিক ফিচারের সাথে একটি আকর্ষণীয় জীবনধারা দিতে সক্ষম। একটি নতুন আবাসিক এলাকা হিসেবে এর বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্ট এর তালিকা নতুন ক্রেতাদের বিশেষ ভাবে আকর্ষণ করছে। একটি

রেডি ফ্ল্যাট কিংবা অ্যাপার্টমেন্ট কেনার জন্য সুন্ধরা আবাসিক এলাকা স্পষ্টতই ঢাকা শহরের অন্যতম জনপ্রিয় একটি এলাকা।

যাই হোক, যখনই আমরা ঢাকার অন্যান্য এলাকাগুলোয় বিক্রির জন্য ব্যবহৃত ফ্ল্যাট কিংবা রেডি ফ্ল্যাটের সাথে তুলনা করে দেখি, তখন বেশ আশ্চর্যজনক ভাবে দেখা যায় যে এটিই ঢাকার সবচেয়ে ব্যয়বহুল এলাকা নয়। এর মূল কারণ হলো ফ্ল্যাট কেনার সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষেত্রে বিলাসই একমাত্র ফ্যাক্টর নয়, বরং এর দাম পরিচালিত হয় চাহিদার দ্বারা। শহরের সেরা সুযোগ-সুবিধা অফার করার দরুন, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা সহজেই ঢাকার সেরা জনপ্রিয় এলাকার তালিকায় যায়গা করে নিয়েছে।

ধানমন্ডি

ধানমন্ডি ঢাকা শহরের অল্প সংখ্যক সমৃদ্ধিশালী, দীর্ঘ সময় টিকে থাকা আবাসিক এলাকাগুলোর মধ্যে একটি। একটা সময় কেবলমাত্র অভিজাত ও উচ্চবিত্ত শ্রেণীর মানুষের আবাসস্থল হিসেবে পরিচিত ছিলো ধানমন্ডি; তারই ফলস্বরূপ এই এলাকাটির মূল অবকাঠামোকে অত্যন্ত গভীরভাবে ও সুপরিকল্পিত উপায়ে আকৃতি দান করা হয়েছে। এর চারপাশে বর্ধিত এলাকার পরিকল্পনা ও রুচিশীল অগ্রগতি একে বিভিন্ন সম্ভাবনাময় রিয়েল এস্টেট প্রোজেক্ট ও ডেভেলপমেন্টের মাধ্যমে আরো সমৃদ্ধিশালী হয়ে ওঠার সুযোগ করে দিয়েছে। অনেক বাসিন্দারাই এই এলাকাটি বাছাই করে থাকেন ধানমন্ডি লেকের চারপাশের নির্মল পরিবেশ ও প্রশান্তির জন্য।

ঢাকায় ফ্ল্যাট কেনার জন্য অন্যতম জনপ্রিয় এলাকার মধ্যে ধানমন্ডি এর রিয়েল এস্টেট ডেভেলপমেন্ট ও ধানমন্ডি লেকের জন্য বিখ্যাত।

ধানমন্ডিতে বিক্রির জন্য অনেক ব্যবহৃত ফ্ল্যাট রয়েছে, যেখানে একটি উন্নত এলাকা, ফিটফাট আধুনিক জীবনধারা এবং সহনীয় দাম বা বসবাসের খরচের মধ্যে এক অপূর্ব সমন্বয়। এ এলাকায় অবস্থিত হাসপাতাল, স্কুল, রেস্টুরেন্ট ও শপিং সেন্টারের কথা ভেবে দেখলে, এখানকার খরচ ও জীবনযাত্রার মান যথেষ্ট যৌক্তিক বলা চলে। ভাড়া নেয়া কিংবা কেনা, যেটাই করুন না কেন, ধানমন্ডিতে বিক্রির জন্য ব্যবহৃত অ্যাপার্টমেন্ট গুলো দামে ও সাইজে বেশ পরিমিত ও ন্যায্য।

খাদকদের জন্য লোকাল ও আন্তর্জাতিক যেকোন মানের দারুণ সব রেস্টুরেন্ট, ক্রীড়াবিদদের জন্য স্পোর্টস ক্লাব ও স্টেডিয়াম, বিদ্বান্বেষী মানুষের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ঢাকার বেশ কিছু সেরা হাসপাতাল নিয়ে ধানমন্ডি নিঃসন্দেহে সব রকম মানুষের জন্য এক যথাযথ আবাসিক এলাকা। তার সাথে বিশেষ আশীর্বাদের মত পাশে রয়েছে ধানমন্ডি লেকের প্রশান্ত ও নির্মল পরিবেশ এবং সজীবতা।

গুলশান

ঢাকা শহরের অন্যতম কূটনৈতিক ও বৈদেশিক দূত যুক্ত এলাকা হিসেবে গুলশান বহুল ভাবে পরিচিত। এর চারপাশে বহু সংখ্যক বৈদেশিক এমব্যাসি, দূতাবাস, অভিজাতদের জন্য ক্লাব, আন্তর্জাতিক মানের রেস্টুরেন্ট, দোকানপাট এবং বিলাসবহুল হোটেল রয়েছে। এক কালে গুলশান একটি উচ্চমানের পদমর্যাদাপূর্ণ ও বাণিজ্যিক এলাকা হিসেবে গণ্য করা হতো; এর মাঝে নানা রকম হাউজিং ও ডেভেলপমেন্ট হওয়ার পর এটি বর্তমানে আংশিক ভাবে একটি আবাসিক এলাকায়ও পরিণত হয়েছে। বিভিন্ন বিলাসবহুল ফিচার, সুযোগ-সুবিধা, অফিস আদালত এবং বর্তমানের মনোমুগ্ধকর আবাসিক গুনাবলীর মাধ্যমে গুলশান এলাকা আপনাকে একটি উচ্চমানের জীবনযাত্রার প্রতিশ্রুতি দিতে সক্ষম।

বিলাসবহুল জীবনধারা, অভিজাত ও বিদেশী নাগরিকদের আবাসস্থল হওয়ার দরুন গুলশান ঢাকা শহরের অন্যতম জনপ্রিয় স্থানগুলোর  মধ্যে একটি।

হয়ত গুলশান ঢাকা শহরের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এলাকা হতে পারে, কিন্তু তারপরও এ এলাকা অগনিত ক্রেতাদের আকর্ষণ করে। যেখানে এর বাসিন্দারা বেশির ভাগই অভিজাত এবং বিদেশী নাগরিক, সেখানে এই এলাকার উচ্চমানের রেস্টুরেন্ট, হোটেল, শপিং সেন্টার, ব্র্যান্ডসহ আরো নানা বিষয় অন্যান্যদের বিশেষ আকর্ষণের কারণ। রিয়েল এস্টেট ডেভেলপাররা এ এলাকার পুরনো বিল্ডিং গুলোকে পুনর্গঠন করা এবং এদেরকে অনন্য ও আধুনিক ডিজাইনের অফিস স্পেস ও আবাসিক অ্যাপার্টমেন্ট হিসেবে রূপদান করার সব রকম সুযোগের অপেক্ষায় থাকেন। গুলশানে উচ্চমানের জীবনযাত্রার প্রতিশ্রুতির কারণে স্পষ্টতই ঢাকায় ফ্ল্যাট কিংবা অ্যাপার্টমেন্ট কেনার জন্য এই এলাকার চাহিদা সর্বাধিক, কিন্তু তারপরও এই এলাকার সংখ্যাগরিষ্ঠ বাসিন্দা বাংলাদেশের উচ্চবিত্ত ও অভিজাত শ্রেনীরাই থাকবে সব সময়।

মিরপুর

মিরপুর এলাকা মূলত জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের জন্য সুপরিচিত ও জনপ্রিয়। বাংলাদেশের পুরুষ ও মহিলা উভয় ক্রিকেট টিমের পারফর্মেন্সে অভূতপূর্ব জোয়ারের কারণে টাইগারদের বাসস্থান, বাংলাদেশে জাতীয় ক্রিকেট টীমের মূল স্টেডিয়ামটি সারা বিশ্বে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। কিন্তু এর আগেও সব রকম অপরিহার্য সুযোগ-সুবিধা থাকার কারণে মিরপুর বহুকাল ধরে বাসিন্দাদের আকর্ষণের কেন্দ্র হিসেবে রয়েছে ও তাদেরকে এলাকার মধ্যেই ধরে রেখেছে বহুদিন। একই সাথে মিরপুরের অন্যান্য আকর্ষণের যায়গা হলো জাতীয় চিড়িয়াখানা এবং জাতীয় বোটানিক্যাল গার্ডেন।

ঢাকার অন্যতম জনপ্রিয় এলাকা হলো মিরপুর যা কিনা বাংলা টাইগারদের বাসস্থান হিসেবে পরিচিত।

মিরপুর কেবল মাত্র একটি পর্যটন আকর্ষণের কেন্দ্র নয়; এখানে বাসিন্দাদের জন্য বসত বাড়ি, আধুনিক সুযোগ-সুবিধা এবং পরিকল্পিত রাস্তাঘাট রয়েছে। প্রায় প্রতিটি দেশেই মধ্যবিত্ত মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি এবং এ দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মধ্যবিত্ত মানুষ মিরপুরে বসবাস করেন। সামর্থ্যের মধ্যে ও পর্যাপ্ত পরিমানে হাউজিং, সাথে পরিকল্পিত ও সুন্দর রাস্তাঘাট ঢাকায় সর্বাধিক মানুষের বাসস্থান হিসেবে মিরপুরের প্রাধান্যকে বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণে। জীবিকা কিংবা কর্মস্থল ব্যতিরেকে এখানকার বেশির ভাগ মানুষেরই নিত্যদিনের প্রয়োজনের জন্য মূল শহরে ভ্রমণ করার তেমন প্রয়োজন পড়ে না। শীঘ্রই মেট্রো রেল ডেভেলপ করার পরিকল্পনা মিরপুরের বহু সুযোগ-সুবিধার সাথে আরো একটি দারুণ সংযোগ, যেখানে ফ্ল্যাট অথবা অ্যাপার্টমেন্ট কেনার জন্য এই এলাকা ঢাকার অন্যতম জনপ্রিয় যায়গাগুলোর মধ্যে একটি।

উত্তরা

আপনি যদি ফ্ল্যাট কিংবা অ্যাপার্টমেন্ট কেনার কথা ভেবে থাকেন তাহলে উত্তরা ঢাকার অন্যতম গতিশীল ও হালনাগাদ যায়গা গুলোর মধ্যে একটি। এই যায়গাটি হালনাগাদ হওয়ার পেছনে নানা রকম কারণ রয়েছে, তবে মূল কারনটি হচ্ছে উত্তরা আসলে শহর থেকে দূরে আরেকটি স্বতন্ত্র শহরের মত। ঢাকা মেগা সিটি ঘনবসতিতে পরিপূর্ণ এবং এখানে জনসংখ্যার ঘনত্ব অনেক বেশি, যার ফলে শহরটিকে সবকিছু সমেত একটি নির্দিষ্ট আবদ্ধ এলাকা বলে মনে হয়। এদিকে উত্তরা শহর থেকে বেশ খানিকটা দূরে অবস্থিত; যারা শহরের কোলাহল থেকে একটু মুক্তি চান কিন্তু গ্রাম্য পরিবেশের কানে হাহাকার জাগানো নীরবতাও পছন্দ করেন না তাদের কাছে উত্তরা একটি অন্যতম আকর্ষণের যায়গা। এটি একটি পূর্ণাঙ্গ ও স্বর্গীয় শহরতলি!

উত্তরা ঢাকা থেকে দূরে অথচ ঢাকার অন্যতম জনপ্রিয় যায়গাগুলোর মধ্যে একটি, প্রশান্তিতে পরিপূর্ণ এক স্বর্গীয় শহরতলি।

একটি শহরের যা কিছু প্রয়োজন তার সব কিছুই উত্তরায় একটি নির্দিষ্ট এলাকার মাঝে অবস্থিত, যার মধ্যে রয়েছে ভালো হাসপাতাল, নামকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ব্যাপক বৈচিত্রের শপিং সেন্টার, বিনোদনের বিভিন্ন রকম অপশন সহ আরো অনেক কিছু। একটি শান্তিপূর্ণ আবাসিক এলাকার অভিজ্ঞতা উপভোগ করুন, সেই সাথে মেগা সিটি ঢাকা থেকে কিছুটা দুরত্ব তো রয়েছেই, ঠিক যেন গরম ভাতে ঘি এর মতন। কিন্তু ভালো মানের রাস্তা থাকার কারণে এই এলাকার বাসিন্দারা সহজেই কেন্দ্রীয় শহরের দিকে কিংবা শহর থেকে ফিরতি পথের লম্বা ভ্রমণ করতে পারেন নিজস্ব ব্যক্তিগত বাহন কিংবা গনপরিবহন ব্যবহার করে।

একটি শহরতলি হিসেবে, মূল শহর থেকে বেশ খানিকটা দূরে, এই এলাকায় বিক্রির জন্য রেডি ফ্ল্যাট কেন্দ্রীয় শহরের অন্যান্য এলাকার তুলনায় যথেষ্ট স্বল্পমূল্যের হয়ে থাকে। নতুন ডেভেলপমেন্ট গুলো হওয়ার কারণে উত্তরা বর্তমানে জনসাধারণের আবাসিক চাহিদা পূরণ ও সামর্থ্যের মধ্যে আদর্শ জীবনযাত্রা দেবার প্রতিশ্রুতি দিতে সক্ষম। এটি স্বল্প জনসংখ্যা বিশিষ্ট বিশালাকার একটি এলাকা, যার দরুন যে সব ব্যক্তি নিরিবিলি ও শান্তিপূর্ণ যায়গায় বসবাস করতে ভালবাসেন তারা উত্তরায় আবাসিক ফ্ল্যাট কিংবা অ্যাপার্টমেন্ট কেনার ব্যাপারে ব্যাপক আগ্রহী হয়ে থাকেন।

উপসংহার

ঢাকা শহরে ব্যবহৃত ফ্ল্যাটের বিক্রির হার সম্পর্কে আমাদের ব্যাপক বিশ্লেষণ ও গবেষণার ভিত্তিতে, আমরা ঢাকা শহরে ফ্ল্যাট অথবা অ্যাপার্টমেন্ট কেনার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু এলাকার একটি ছোট তালিকা দাঁড় করিয়েছি। প্রাসঙ্গিক ভাবে এই তালিকা আপনাকে বিশেষ কিছু এলাকার ব্যাপারে আপনার বিভিন্ন পছন্দ ও অপছন্দের দিকগুলো চিহ্নিত করে দিতে পারে। একটি প্রপার্টি কেনা একধরণের বিশাল বিনিয়োগ এবং যতই গবেষণা করে নিন না কেন, একটি সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষেত্রে কখনোই তা যথেষ্ট হতে পারে না। আমরা আশা রাখি এই সামান্য তথ্য আপনাকে ঢাকা শহরে অ্যাপার্টমেন্ট কেনার সময় খোঁজ চালিয়ে যেতে অনেকটাই সাহায্য করবে।

অতএব আপনি যখন ঢাকায় একটি ফ্ল্যাট কিংবা অ্যাপার্টমেন্ট কেনার জন্য খোঁজ চালিয়ে থাকেন, তাহলে আমরা পরামর্শ দেব একটি আবাসিক প্রপার্টিতে বিনিয়োগ করার জন্য ঢাকা শহরের সবচেয়ে জনপ্রিয় যায়গাগুলো আগে বিবেচনা করে দেখতে। আমাদের সুপারিশ করা তালিকাটি কেবল মাত্র দামের ওপর নয়, বরং জীবনযাত্রার মান, সুযোগ-সুবিধা, মূল শহরে যাতায়াতের সুযোগ এবং একটি সাধারণ আবাসিক এলাকার অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়াদি মাথায় রেখে তৈরি করা হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন অনলাইন প্রপার্টি পোর্টাল যেমন Bikroy.com তে ব্রাউজ করে বিভিন্ন প্রপার্টির বিজ্ঞাপন দেখুন এবং আপনার পছন্দের এলাকায় রেডি ফ্ল্যাট কিংবা অ্যাপার্টমেন্টের দাম ও আকার আকৃতি সম্পর্কে একটি সম্যক ধারণা অর্জন করুন।

ঢাকা শহরে প্রতিটি ক্ষেত্রে দ্রুত অগ্রগতির মাধ্যমে আমরা একটি তীব্র উন্নয়ন দেখতে পেয়েছি এবং এর অর্থনীতিতেও ধারাবাহিক ভাবে একটি গতি লক্ষ্যণীয়। বৈশ্বিক বিনিয়োগ, বৈদেশিক ব্যবসা এবং আরো বিভিন্ন জিনিস মেগা সিটি ঢাকায় আবাসিক প্রপার্টির চাহিদা বৃদ্ধি করতে সম্যক ভূমিকা পালন করেছে। এখনই ভিসিট করুন Bikroy.com/Property তে আর হাজার হাজার প্রপার্টির তালিকা থেকে ব্রাউজ করে ঢাকা শহরের বেশ কিছু জনপ্রিয় যায়গায় ব্যবহৃত ফ্ল্যাট অথবা অ্যাপার্টমেন্ট কিনে ফেলুন নিমেষেই।

নিউজলেটারে সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

Comments

comments