টিপস ও গাইডপ্রপার্টি

কোভিড পরবর্তী সময়ে ঢাকায় ফ্ল্যাট কেনার কথা ভাবছেন? মেনে চলুন এই ৫টি বিষয়

অন্যান্য অনেক শিল্পের মতোই, বাংলাদেশের রিয়েল এস্টেট শিল্পও কোভিড মহামারির কারণে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলো। ২০২০ সালের মার্চ মাসের পর কেনাবেচা কমে যাওয়ার পাশাপাশি, শিল্পটি দ্রুত বহুমুখী সমস্যার মুখোমুখি হয়েছে। তবে বর্তমানে প্রায় ১.৫ বছর পরে, আবাসন খাত সেই পরিস্থিতি সামলে উঠছে এবং ফিরে পেয়েছে তার নিয়মিত গতি।

বাড়ি বা অ্যাপার্টমেন্টে বিনিয়োগ করা একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত এবং বিশেষ করে তা যদি হয় ঢাকা শহরের মতো জায়গায় একটি অ্যাপার্টমেন্ট কেনা। এটা অনেকটা স্বপ্নের মতোই! আপনার দীর্ঘমেয়াদী সমস্ত পরিকল্পনা এবং জমানো অর্থ কখনোই বৃথা যেতে পারে না। তাই, সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় আপনাকে সম্ভাব্য সকল দিক সম্পর্কে সচেতন হতে হবে; কারণ, কোভিড-পরবর্তী যুগে, ফ্ল্যাট কেনার ব্যাপারে এই সিদ্ধান্তগুলো বিভিন্ন কারণে প্রভাবিত হতে পারে।

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় মার্কেটপ্লেস হওয়ার সুবাদে বিক্রয় ডট কম ফ্ল্যাট কেনার সময় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপগুলোকে একত্রিত করে একটি লিস্ট তৈরি করেছে। যার মাধ্যমে কোভিড-পরবর্তী সময়ে ঢাকায় বিক্রির জন্য ফ্ল্যাট বিজ্ঞাপনগুলো ক্লিক করার সময় আপনাকে যে প্রাথমিক দিকগুলো বিবেচনা করতে হবে তা নিয়ে আমরা আজ আলোচনা করবো।

ঢাকায় অ্যাপার্টমেন্ট কেনার টিপস

কোভিড পরিস্থিতি সামলে উঠতে আরোপ করা পরপর দুটি লকডাউনের কারণে অসংখ্য অ্যাপার্টমেন্টের নির্মাণকাজ প্রভাবিত হয়েছে। ভবন তৈরির সরঞ্জাম, শ্রম এবং উপাদানগুলোর ঘাটতি আরও তীব্র হয়ে উঠেছে। এই বিষয়গুলোর উপস্থিতির কথা মাথায় রেখে, আমরা কিছু মৌলিক বিষয় একত্রিত করেছিঃ

১. আপনার বাজেট এবং সামর্থ্যর মধ্যে সামঞ্জস্যতা রাখুন

ঢাকায় ফ্ল্যাট কেনার ব্যাপারে আপনার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর, প্রথম ধাপ হল পুনরায় আপনার বাজেট এবং সামর্থ্য যাচাই করে নেয়া। স্পষ্ট ধারণা পাওয়ার জন্য, ঢাকায় বিক্রির জন্য ফ্ল্যাট বিজ্ঞাপনগুলোর মধ্যে তুলনা করতে পারেন। মনে রাখতে হবে, প্রপার্টি করের সাথে, প্রতি বর্গফুট জায়গা অনুযায়ী মাসিক বাজেট বৃদ্ধি পেতে থাকে। তাই সবসময় আপনার আয় এবং বাজেটের সাথে সামঞ্জস্যতা রাখার চেষ্টা করুন।

প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবে আপনার বাজেটের উপর ভিত্তি করে অ্যাপার্টমেন্টের ধরণ তালিকাভুক্ত করা এবং ডেভেলপারদের পোস্ট করা বিজ্ঞাপনের মূল্যের তুলনা করা যেতে পারে। এছাড়াও আপনি Bikroy.com এর মত বাংলাদেশের যেকোনো জনপ্রিয় প্রপার্টি সাইট অনুসরণ করার মাধ্যমে একটি তুলনা সাজাতে পারেন। দামের ক্ষেত্রে ক্ষেত্রে অস্থিতিশীল কোনো পরিবর্তন লক্ষ্য করতে ভুলবেন না, এটি আপনাকে বর্তমান বাংলাদেশের আবাসন ট্রেন্ড সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা দেবে।

ফ্ল্যাট কেনার ক্ষেত্রে, অন্যান্য বিকল্প গ্রহণের জন্য প্রস্তুত থাকুন এবং সর্বদা আপনার কাঙ্ক্ষিত বাজেটের মধ্যেই ঢাকার যেকোনো প্রাইম লোকেশনে প্রপার্টির সন্ধান করুন। অর্থাৎ অ্যাপার্টমেন্ট কেনার সময় মান এবং দামের মধ্যে একটি দুর্দান্ত সমন্বয় বেছে নিতে হবে।

২. প্রপার্টির অবস্থান নির্ণয় করুন ভেবেচিন্তে

ঢাকায় ফ্ল্যাট কেনার কথা আসলে, আপনাকে মনে রাখতে হবে যে ঢাকা আমাদের দেশের দ্রুত বর্ধনশীল শহরগুলোর মধ্যে একটি, এবং এখানে প্রতিদিন কর্মরত পেশাজীবীদের সংখ্যা বাড়ছে। অ্যাপার্টমেন্ট বা ফ্ল্যাটের লোকেশন বাছাই করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন বাণিজ্যিক এলাকা, আইটি সেন্টার, বিশ্ববিদ্যালয়/কলেজ, শপিং মল, পার্ক ইত্যাদি অবস্থানগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কারণ প্রপার্টির অবস্থানের সাথে কেবল সম্পত্তির বাজার মূল্য নয়, আপনার জীবনযাত্রার মানও জড়িয়ে থাকবে।

গুলশান এবং ধানমন্ডির মতো আবাসিক এলাকার প্রপার্টিগুলো মূলত বাজারের অস্থিতিশীলতার মধ্যেও গ্রাহকদের জন্য ভালো যোগাযোগ এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করে। ঢাকায় অ্যাপার্টমেন্ট কেনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ টিপসগুলোর মধ্যে আপনাকে এমন একটি লোকেশন বাছাই করতে হবে যেখান থেকে অনায়াসেই আপনি পাবলিক এবং প্রাইভেট ট্রান্সপোর্ট সুবিধা ব্যবহার করতে পারবেন। 

৩. প্রপার্টি কেনার জন্য স্বনামধন্য ডেভেলপারদের অগ্রাধিকার দিন

আপনি যদি ঢাকায় বিক্রির জন্য ফ্ল্যাটের বিজ্ঞাপন খুঁজে থাকেন, তাহলে জেনে রাখা ভালো যে ঢাকা শহরে প্রপার্টির প্রাচুর্যতা বেশি, বরং অসংখ্য রিয়েল এস্টেট ডেভেলপারদের ভিড়ে, আপনার জন্য সেরা কাউকে বেছে নেওয়া কিছুটা চ্যালেঞ্জিং হতে পারে। সর্বোপরি, আপনি যখন একজন স্বনামধন্য একটি ডেভেলপার প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে প্রপার্টি কিনবেন তখন আপনি বেশ কিছু সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন।

প্রথমত, আপনাকে ডেভেলপিং-এর মান সম্পর্কে চিন্তা করতে হবে না এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আপনার ডেলিভারি পেতে পারবেন। উপরন্তু, স্বনামধন্য ডেভেলপাররা প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে সাধারণত একটি ভালো ট্র্যাক রেকর্ড এবং ধারাবাহিক সাফল্যের হার ধরে রাখে।

৪. আইনুনাগ প্রপার্টির গ্রহণযোগ্যতাকে প্রাধান্য দিন

লেনদেন করার পূর্বে, নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনি যেই অ্যাপার্টমেন্টটি কিনতে চাইছেন সেটি আইনত অনুমোদিত এবং বিভিন্ন নাগরিক সেবা ব্যবহারের ক্ষেত্রে সমস্ত আইনি অনুমতি সেখানে রয়েছে। একজন গ্রাহক হিসেবে, আপনাকে জেনে নিতে হবে যে আপনার ডেভেলপারের পৌর/সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড, ঢাকা ওয়াসা ইত্যাদি থেকে অনুমোদন এবং এনওসি (নো অবজেকশন সার্টিফিকেট) আছে কিনা।

আপনি যদি হোম লোনের জন্য আবেদন করে থাকেন, তাহলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ নিজেই এই নথিগুলি পরীক্ষা করবে। স্বনামধন্য যেকোনো রিয়েল এস্টেট প্রতিষ্ঠান আইনি কাগজপত্র এবং গুণমান পরীক্ষার ব্যাপারে পেশাদার হয়ে থাকে।

৫. ফ্ল্যাটের নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে নিন

ঢাকা শহরে লক্ষ লক্ষ লোকের বসবাস; তাই স্বভাবতই নিচ তলার ফ্ল্যাটগুলোকে কিছুটা অনিরাপদ বলে ধরা হয়, মূলত দরজা এবং জানালা থেকে সহজ প্রবেশের কারণে দুষ্কৃতিকারীরা এসব ফ্ল্যাটকে সহজ টার্গেট হিসেবে নিয়ে থাকে। সুতরাং, আপনি যদি নিচ তলার কোনো ফ্ল্যাট কেনার কথা ভেবে থাকেন, তাহলে সেখানকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে নিন।

তদুপরি, ঢাকায় ফ্ল্যাট কেনার সময় রিয়েল এস্টেট ডেভেলপারের প্রদত্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা যাচাই করে নেওয়াকে অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত, যার মধ্যে রয়েছে সিসিটিভি ক্যামেরা ইনস্টলেশন, সিকিউরিটি গার্ড ইনস্টলেশন, ভবনের সামনের ও পিছনের উভয় পাশে পর্যাপ্ত জায়গা নিশ্চিত করা ইত্যাদি।

শেষ কথা

আমাদের দেশে একটি ফ্ল্যাট বা অ্যাপার্টমেন্টের মালিকানা একজন সাধারণ মানুষের স্বপ্ন। আপনার অ্যাপার্টমেন্ট আপনার জীবনযাত্রার ধরণে অনেকখানি প্রভাব ফেলবে, তাই ফ্ল্যাট কেনার পূর্বে সময় নিয়ে চিন্তা করুন এবং বুদ্ধিমানের সাথে ফ্ল্যাট নির্বাচন করুন।

মহামারি পরবর্তী সময়ে, রিয়েল এস্টেট মার্কেট আবার ব্যবসায় ফিরে আসছে। সুতরাং, তাড়াহুড়া করবেন না! আপনার জন্য সেরা অ্যাপার্টমেন্টের ডিলটি খুঁজে পেতে Bikroy.com– এ প্রপার্টি লিস্টিং দেখুন এবং যাচাই করুন।

ঢাকায় আপনার নতুন অ্যাপার্টমেন্টের জন্য অগ্রিম শুভকামনা!

Facebook Comments
সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

আরও দেখুন

অনুরূপ লেখা গুলো

Back to top button
Close
Close