নিয়োগকারী হিসাবে চাকরি প্রার্থীদের মধ্যে যে সকল গুণ দেখে নেয়া জরুরি

Share

চাকরির ইন্টারভিউ দেয়ার চেয়েও যদি কঠিন কোন কাজ থেকে থাকে, তবে তা হলো একজন নিয়োগকারী হিসেবে স্বয়ং প্রার্থীদের ইন্টারভিউ নেয়া, কিংবা কাকে নিয়োগ দিতে হবে সে ব্যাপারে মত দেয়া। আপনার কোম্পানির জন্য শত শত আবেদনকারীদের মধ্যে থেকে সঠিক প্রার্থীকে বাছাই করা বা সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়াটা একটি প্রতিষ্ঠানের সাফল্য ও ভবিষ্যৎ উন্নয়নের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি কোন ভুল লোককে নিয়োগ দেন, বা নিয়োগ দেয়ার সময় সাধারণ কিছু ভুল করে বসেন, তাহলে শুধুমাত্র যে আপনার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের চোখে ছোট হতে হবে তাই নয়, একই সাথে আপনার কারণে কোম্পানির সম্মান ও ভবিষ্যৎ ঝুঁকির মুখে পড়ে যেতে পারে। আর সেজন্যই নিয়োগ প্রক্রিয়ায় প্রার্থীদের পরীক্ষা নিরীক্ষা করার সময় ছোট ছোট বিষয়গুলোতেও মনোযোগ দেয়া এত বেশি জরুরি।

আপনার প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের জন্য সঠিক ট্যালেন্টদের খুঁজে বের করার সময় আপনাকে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হবে। একজন নিয়োগকারী হিসেবে আপনাকে কিছু মূল বৈশিষ্ট্য লক্ষ্য করে দেখতে হবে এবং এর সাহায্যে অনুপযুক্ত বা বেমানান প্রার্থীদের মধ্যে থেকে সম্ভাবনাময় ও উপযুক্ত লোকগুলিকে বেছে নেয়া জানতে হবে। একজন আবেদনকারীর সিভি দেখে হয়তো আপাত দৃষ্টিতে তাকে কোম্পানির জন্য উপযুক্ত বা পারফেক্ট লোক বলে মনে হতে পারে, কিন্তু তাদের সাথে সামনা সামনি কথা বলার প্রথম কয়েক মিনিটের মধ্যেই এমন কিছু বিষয় আপনার সামনে চলে আসতে পারে যা আপনার মত তৎক্ষণাৎ বদলে দিতে পারে। যেখানে কিছু বৈশিষ্ট্য ও দক্ষতা আপনার কোম্পানি থেকেই নির্ধারণ করে দেয়া থাকতে পারে, যেমন- শিক্ষাগত যোগ্যতা ও কাজের অভিজ্ঞতা ইত্যাদি। কিন্তু সম্ভাব্য সেরা প্রার্থীগুলোকে সফলভাবে বাছাই করে নেয়ার জন্য কিছু বাড়তি গুণ তাদের মধ্য থেকে খুঁজে বের করতে হবে। নিচে সেরকম কিছু গুণ তুলে ধরা হলো:

১. উচ্চাকাঙ্ক্ষা

ইন্টারভিউ বোর্ডের সামনে আসা সব প্রার্থীরাই শুধুমাত্র চাকরির পদবীর দিকে তাকিয়ে আসেন না। তাদের মধ্যে কিছু লোক এমন থাকেন যারা মাস শেষের বেতনটাকে বেশি প্রাধান্য দেন, আবার কিছু লোক এমনও থাকেন যারা চাকরিটি থেকে নতুন কিছু শিখতে বেশি আগ্রহী এবং ভবিষ্যতের কথা ভাবেন। যদি আপনার চাহিদা একজন দীর্ঘমেয়াদী ও সমর্পণকারী লোক হয়, তাহলে আপনার উচিত এমন ব্যক্তিদের খোঁজ করা যারা সুযোগ সন্ধানী ও আত্ম-উন্নয়নের ব্যাপারে উচ্চাকাঙ্ক্ষা রাখেন। কেননা এই ধরণের কর্মীরা আপনার কোম্পানির সাথে বেশি দিন টিকে থাকবেন এবং প্রয়োজনের জন্য যেকোনো ধরণের কাজের চ্যালেঞ্জ নেয়ার জন্য প্রস্তুত থাকবেন। মূলত তাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষাই তাদেরকে হার মেনে নেয়া বা হাল ছেড়ে দেয়া প্রার্থীদের থেকে আলাদা করে।

উচ্চাকাঙ্ক্ষী ব্যক্তিরা আপনার কোম্পানির জন্য সবচেয়ে বেশি পরিমাণে পারফর্ম করতে চাইবেন, তাই তাদেরকে ট্রেনিং দেয়াটাও এক রকম ভালো বিনিয়োগ। তাদের শেখা ও ক্যারিয়ারে উপরের দিকে ওঠার অনুপ্রেরণাগুলো আসলে অবচেতনভাবে আপনার কোম্পানির জন্যই উপকারী হয়ে দাঁড়াবে।

২. ইতিবাচক মনোভাব

কৌতুহল ও উদ্যম খুবই গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে যখন আপনি কারো ইন্টারভিউ নিচ্ছেন। আপনার প্রশ্নগুলোর উত্তর দেয়ার সময় প্রার্থীদের মধ্যে ইতিবাচক মনোভাব এবং উদ্যমী স্বভাব ফুটে ওঠা চাই। যদি তারা নম্রভাবে হাসেন, বিনয়ী থাকেন এবং আশাবাদী মনোভাব নিয়ে কঠিন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেন, তাহলে তো খুবই ভালো। আপনার কোম্পানির জন্য একজন উদ্যমী মানুষ খুবই ভালো কর্মী হিসেবে গণ্য হবেন, কেননা তারা কাজের পরিবেশে এক ধরণের টাটকা নতুন এনার্জি নিয়ে আসবেন। একজন আশাবাদী মানুষ কাজের সময় সবচেয়ে কঠিনতম সমস্যাটি সমাধান করার সময়ও একটি গঠনমূলক ভঙ্গিমায় কাজ করতে পারবেন। এরকম একজন কর্মী কোম্পানিতে থাকলে বাকি সবার জন্যও কাজের পরিবেশ অনেকটাই ইতিবাচক হয়ে উঠবে।

একজন প্রার্থীর মনোভাব পরীক্ষা করার জন্য ইন্টারভিউয়ের সময় তাকে নানা রকম পরিস্থিতি সংক্রান্ত প্রশ্ন করে দেখতে পারেন। ইন্টারভিউয়ের সময় কাল্পনিক কোন সমস্যার সমাধান করতে দেয়াটা একটা ভালো অভ্যাস। কেননা এর সাহায্যে একজন প্রার্থীর মধ্যে নিয়োগ পাওয়ার পর বাস্তব জীবনে তৈরি হওয়া সমস্যাগুলো কার্যকরী ভাবে সমাধান করার মত যোগ্যতা ও দক্ষতা আছে কি না তা বোঝা যায়।

৩. যোগাযোগের বা কথোপকথনের দক্ষতা

ভালো যোগাযোগের দক্ষতা প্রার্থীদের মধ্যে থাকাটা আবশ্যক। ইন্টারভিউয়ের প্রশ্নগুলোর উত্তর সাবলীল ভাবে দিতে পারা, ইন্টারভিউ চলাকালীন অবস্থায় নিজের ব্যাপারে একটি আকর্ষণীয় বা কৌতুহল জাগানো গল্প বলতে পারা – এর যে কোন একটিই একজন প্রার্থীর মধ্যে থাকা শক্তিশালী যোগাযোগের দক্ষতার পরিচয় দিতে পারে। ভালো মৌখিক যোগাযোগ, যেমন ফোন কলে কথা বলার সময় ভদ্রতার পাশাপাশি একজন প্রার্থীর লৈখিক যোগাযোগ বা লেখালেখির ক্ষমতাটাও (যেমন- রিপোর্ট ও ইমেইল) বেশ গুরুত্ব বহন করে। অন্যদের সাথে ভালোভাবে আলাপ করার ক্ষমতা একটি দারুণ স্বকীয় বৈশিষ্ট্য বা সফট স্কিল হিসেবে কাজ করে, বিশেষ করে যখন একজন কর্মী আপনার কাস্টমারদের সাথে সরাসরি কাজ করেন

একই সাথে একজন কর্মীর মৌখিক ও লৈখিক যোগাযোগের দক্ষতা পরীক্ষা করার জন্য দারুণ একটি উপায় হলো তাকে কোন একটি প্রাতিষ্ঠানিক প্রেজেন্টেশন লেখা ও পারফর্ম করতে দেয়া। আবার অন্যদিকে আপনি ইন্টারভিউয়ের সময় বা লিখিত পরীক্ষার জন্য প্রার্থীদেরকে বিস্তারিত প্রশ্ন করতে পারেন, আর দেখতে পারেন যে তারা একেক ধরণের কথোপকথনে কীভাবে উত্তর দিচ্ছেন আর কী রকম প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছেন।

৪. সহনশীলতা ও মানিয়ে নেয়ার ক্ষমতা

যেকোনো ধরণের পরিবর্তনের সাথে মানিয়ে নেয়ার দক্ষতা সবার থাকে না, আর হয়তো এজন্যই এই গুণটি নিয়োগকারীদের চাহিদায় সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য পেয়ে থাকে। যেকোন প্রতিষ্ঠানের জন্য এমন একজন প্রার্থী বা কর্মী অনেক মূল্যবান, যারা দ্রুত যেকোন পরিবর্তন ও পরিস্থিতির সাহে খাপ খাইয়ে নিতে পারেন। একটি ব্যবসার লক্ষ্য এবং কৌশল গুলো সব সময়ই পরিবর্তনশীল, আর তাই সেখানে এমন সব কর্মী থাকা জরুরি যারা অভিযোজনে দক্ষ ও সহনশীল। জেদি ও অনমনীয় কর্মীরা একটা সময় আপনার প্রতিষ্ঠানের উৎপাদনশীলতায় বাধার সৃষ্টি করে থাকেন, কেননা তারা কর্মক্ষেত্রে কোন ধরণের পরিবর্তনকে মেনে নিতে চান না। অন্যদিকে নমনীয় ও সহনশীল কর্মীরা আপনার বিপদের সময়ে কাজে আসবেন, বিশেষ করে যখন জনবল কম থাকে। তারা এ ধরণের পরিস্থিতিতে যেখানে যেভাবে সম্ভব সাহায্য করতে ও কোম্পানিকে আগের অবস্থানে ফিরিয়ে আনার জন্য সর্বোচ্চ পর্যায়ে কাজ করে যাওয়ার চেষ্টা করবেন।

৫. ব্যক্তিত্ব

চাকরি প্রার্থীদের ইন্টারভিউ নেয়ার সময় আপনার বিভিন্ন ধরণের বৈচিত্রময় ব্যক্তিত্বের মানুষের সাথে পরিচয় হওয়ার সুযোগ হবে। এদের মধ্যে কেউ কেউ অতিমাত্রায় আত্মবিশ্বাসী হবেন, কেউ অনেক উদ্যমী ও কর্মশক্তিতে পরিপূর্ণ থাকবেন, যেখানে কেউ কেউ আবার লাজুক বা নার্ভাস প্রকৃতির হবেন। আসলে বেশির ভাগ ইন্টারভিউয়াররাই এমন লোকের দিকে বেশি আকৃষ্ট হন যাদের মধ্যে সহজাত ও আত্মবিশ্বাসী প্রবণতা রয়েছে। কিন্তু এরই সাথে তাদের ব্যক্তিত্বের সূক্ষ্ম দিকগুলোতেও খেয়াল করা দরকার। সুপ্ত ও গভীর বৈশিষ্ট্যগুলো একজন প্রার্থীর বিনয়ী স্বভাব ও আন্তরিকতার মত গুণগুলো ফুটিয়ে তুলতে পারে, যেমন- আগের অর্জন ও প্রাপ্তিগুলোর কথা বলার সময় নম্রতা, কিংবা আগের নিয়োগকারী ও কলিগদের ব্যাপারে ভালো মন্তব্য করা ইত্যাদি। এ ধরণের লোকগুলো বেশির ভাগ কোম্পানির জন্যই দারুণ কর্মী হতে পারেন, কেননা তাদের সাথে মিলেমিশে কাজ করা ও সম্পর্ক রাখা সহজ।

তবুও প্রত্যেকটি কোম্পানিই নিজ নিজ বৈশিষ্ট্যে আলাদা এবং তাদের প্রাতিষ্ঠানিক রীতিনীতিও ভিন্ন। সুতরাং এমন একজন লোককে নিয়োগ দেয়া আপনার জন্য ভালো হবে, যে কি না পুরো কোম্পানির বাকিদের সাথে ভালোভাবে মিশে যেতে পারবেন। আর এভাবেই নতুন এবং বর্তমান সব কর্মীরা একে অপরের সাথে মেলামেশা করতে ও ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন।

৬. নির্ভরযোগ্যতা

আপনার কোম্পানির জন্য সেরা ব্যক্তিকে নিয়োগ দেয়ার জন্য এটাই সবচেয়ে বড় চাবিকাঠি। কোন প্রার্থীর সাথে আলাপের পর যদি এমন মনে হয় যে তারা ঠিক ততটা নির্ভরযোগ্য নন, তাহলে সেই ব্যক্তিকে নিয়োগ দেয়া কোন ভাবেই সঠিক হতে পারে না। নির্দিষ্ট সময়সীমার দিকে খেয়াল রাখা, যত্ন সহকারে ও সঠিক ভাবে কাজ সম্পন্ন করা এবং চাকরিতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ থাকার মত বেসিক গুণগুলো মূলত সব ধরণের কর্মীর কাছ থেকেই আশা করা হয়। আর একজন অবিশ্বস্ত কর্মী হয়তো মাঝে মাঝে ন্যূনতম পরিমাণ কাজ করতেও অনীহা দেখাবেন। পাশাপাশি এই ধরণের কর্মীদের মধ্যে হয়ত কর্মক্ষেত্রে অনৈতিক কাজকর্ম করার প্রবণতাও থাকতে পারে। তারা হয়ত কাজের মধ্যে ফাঁকি দেয়া বা অসম্পূর্ণ কাজ করার চেষ্টা করবেন, কিংবা কিছু কিছু ভুল কাজকে উপেক্ষা করে চলবেন। আর এসব সমস্যা একটা সময় আপনার কোম্পানির সম্মান ও মর্যাদাকে নষ্ট করে দিতে পারে, বা এর চেয়েও খারাপ, যেমন আপনার কাস্টমারদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। তাই কোম্পানিগুলোর জন্য এমন ব্যক্তিদের নিয়োগ দেয়া ও ধরে রাখার চেষ্টা করা আবশ্যক, যারা কোম্পানির জন্য সর্বোচ্চ পর্যায়ে নির্ভরযোগ্য ও বিশ্বস্ত বলে প্রমাণিত হবেন।

শেষকথা

একজন নিয়োগকারীর ভূমিকা পালন করা কোন সহজ কাজ নয়। আপনার প্রতিষ্ঠানের অনবদ্য অংশ হতে পারেন, এমন ব্যক্তিদের খুঁজে বের করাটা অসম্ভব রকম চ্যালেঞ্জিং একটা ব্যাপার হতে পারে। তবুও, আপনি যেন আপনার কোম্পানির জন্য সম্ভাব্য সেরা প্রার্থীগুলোকে বাছাই করে নিতে পারেন সেটা নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়াটা আদতে আপনার কোম্পানির ভবিষ্যতের জন্য মূল্যবান একটি ধাপ। বলা হয় যে যেকোন কোম্পানির জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ হচ্ছে তাদের জনসম্পদ বা জনবল। কেননা কাকে কাকে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে তার উপর নির্ভর করে তারা একটি ব্যবসাকে গড়ার কিংবা ভাঙার ক্ষমতা রাখেন। অতএব চেষ্টা করুন যেন মার্কেটের সব প্রার্থীদের মধ্যে শুধু সেরাদেরই আপনার কোম্পানিতে নিয়োগ দিতে পারেন সব সময়। নিয়োগ দিন নিশ্চিন্তে!

আপনি কি আপনার প্রতিষ্ঠানের জন্য পরবর্তী সেরা ট্যালেন্টদের খুঁজছেন? আপনার কোম্পানিতে কর্মী নিয়োগের প্রক্রিয়ায় সেরা সব প্রার্থীদের আবেদন পাওয়ার জন্য ব্যবহার করুন আমাদের অ্যাডভান্সড অপশন “ট্যালেন্ট সার্চ, আর আপনার প্রতিষ্ঠানের জন্য সেরা লোকগুলোকে খুঁজে পাওয়ার জন্য বাছাই করুন ৪৩৪,০০০ -এরও বেশি সংখ্যক প্রোফাইল থেকে।

সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

Comments

comments