এই গরমের জন্য তৈরি হোন! একটি এসি কিনুন যেটা দিবে সেরা পারফরম্যান্স

এসি কিনুন
Share

বাংলাদেশে উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ছে অর্থনৈতিক উন্নয়ন, যার ফলাফল আমরা দেখতে পাই ক্রেতাদের আচরণগত পরিবর্তনের মাধ্যমে। এটা সাধারণত উহ্য থাকে যে একটি দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির মাপকাঠি হলো সেই দেশের মধ্যবিত্ত শ্রেণীর অর্থনৈতিক সামর্থ্য। বাংলাদেশের গড় মধ্যবিত্ত সংসার সাধারণত আরামদায়ক জীবনযাপন করতে সক্ষম। সম্প্রতি আবহাওয়ার পরিবর্তনের কারণে বিশেষ করে গরম বৃদ্ধি পাবার কারণে, আগে যেসব দ্রব্যকে বিলাসবহুল দ্রব্য হিসেবে গণ্য করা হতো সেগুলোকে এখন প্রয়োজনীয় দ্রব্য হিসেবে গণ্য করা হয়। রাজধানী ঢাকা হোক কিংবা সিলেট এবং চট্টগ্রামের মতো কিছুটা ছোট শহরই হোক, মধ্যবিত্তদের জন্য এয়ার কন্ডিশনার পরিণত হয়েছে একটি প্রয়োজনীয় দ্রব্যে।

দেশব্যাপী ভোক্তাদের ক্রয়ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে ব্যবসায় বৃদ্ধি করার জন্য পন্য প্রস্তুতকারীরা তাদের বিপণন এবং বিক্রয় কার্যক্রমের ধরণে এনেছে ব্যাপক পরিবর্তন। অনেক অনেক কোম্পানি বর্তমানে তাদের বিক্রয় বাড়ানোর লক্ষ্যে ইন্টারেস্ট ফ্রি ইন্সটলমেন্ট সার্ভিস, ওয়ারেন্টি, গ্যারান্টি ইত্যাদি সুবিধা দিচ্ছে। ক্রেতারাও এই প্রতিযোগিতার বাজারে বিভিন্ন পন্য প্রস্তুতকারী কোম্পানির কাছ থেকে লাভ করছে নানাবিধ সুবিধা।

বাজার যখন বিভিন্ন ধরণের এবং রকমারি এসি দিয়ে ভরপুর তখন আপনার বাসার জন্য সঠিক এসিটি কেনা বেশ দুষ্কর একটি ব্যাপার। দোকানে, খবরের কাগজে কিংবা টিভিতে যেভাবেই বিজ্ঞাপন দেয়া হোক না কেনো সব ধরণের পন্য আপনার জন্য যথার্থ নয়। আপনি যদি আপনার পয়সা উসুল করে নির্ধারিত বাজেটের মধ্যে সেরা এসিটি কিনতে চান তবে আপনাকে কিছু বিষয় অবলম্বন করতে হবে।

মূল্য, ধারণক্ষমতা, গুনাগুণ এবং চালনক্ষমতা

আমরা হয়ত সবসময় মুখে বলি না কিন্তু যে কোন কিছু কেনার আগে আমরা যে বিষয়টিকে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকি তা হলো পণ্যের মূল্য। হোক পণ্যটি এয়ার কুলার কিংবা এয়ার কন্ডিশনার, এর প্রয়োজনীয়তা যেটাই হোক প্রথমে যে বিষয়টি আমাদের ভাবতে হবে তা হলো বাজেট। বাজেট অনুসারে আমাদের সিদ্ধান্তের দিকে আগাতে হবে। সুতরাং প্রথমেই আমাদের এয়ার কন্ডিশনারের জন্য একটি বাজেট নির্ধারণ করতে হবে এবং পরবর্তীতে এসি-এর ফিচার অনুযায়ী বাজেট কমবে নাকি বাড়বে তা নির্ভর করবে।

এসির আকার এবং ধারণক্ষমতা বিবেচনা করা একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনি যদি আপনার রুমের আকারের সাথে এসি-এর ধারণক্ষমতা এবং আকারের সামঞ্জস্যতা রাখতে না পারেন তবে ফলাফল কখনই আপনার অনুকূলে আসবে না। যদিও এটি একটি আনুমানিক পরিমাপ, একটি বড় ঘরের জন্য যদি আকারে ছোট এসি কেনা হয় তবে একদিকে তা যেমন বিদ্যুৎ অপচয় করবে তেমনি ঘরও কখনও ঠিকঠাক ঠাণ্ডা হবে না। একটি ছোট ঘরে যদি বড় আকারের এসি থাকে তবে সেই এসি ঘরকে সবসময় অস্বাভাবিক তাপমাত্রায় ঠাণ্ডা করে রাখবে। নিচে ঘরের আকার এবং এসি-এর ধারণক্ষমতার আলোকে একটি মোটামোটি হিসাব দেয়া হলোঃ

AC buying requierments

বাংলাদেশের বেশিরভাগ যায়গায়, বিশেষ করে বাংলাদেশে বায়ুদূষণ যেহেতু প্রকট হচ্ছে সেহেতু বাতাসের গুণগত মান একটি গুরুত্বপূর্ণ বিবেচ্য বিষয়।  যেহেতু, বাইরে বাতাসের গুণগত মানের অবস্থা শোচনীয় সেহেতু ঘরের ভেতরে এয়ারকুলার বা এয়ার কন্ডিশনার ব্যবহার করা গুরুত্বপূর্ণ। এ বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারবে কিছু এসি-এর ভালো এয়ার ফিল্টার এবং এয়ার ফিল্টারিং প্রযুক্তি। এতে করে শুধু বাতাসের গুনাগুণই ভালো হবে না, বাতাসের ধুলা এবং অন্যান্য কণা ফিল্টার করার কারণে এটি ভেতরের পরিবেশকে সঠিকভাবে ঠাণ্ডা করবে এবং সঠিক মাত্রায় এনার্জি ব্যবহার করবে। নতুন নতুন প্রযুক্তির কল্যাণে এখন আরও গুণগত বাতাস এবং সঠিক মাত্রায় এনার্জি ব্যবহারকারী এসি ইউনিট পাওয়া যাচ্ছে। অনেক রকমারি ব্র্যান্ড, ফিচার এবং সুবিধাদির মধ্যে থেকে দীর্ঘমেয়াদি ফলাফল ভোগ করা যায় এমন এসি বেছে নেয়াটা জরুরি। বাজারে অবিশ্বাস্য কম দামে অনেক ধরণের এয়ার কুলার বা এয়ার কন্ডিশনার পাওয়া যায়। কিন্তু সেসব এসিগুলো প্রচুর এনার্জি খরচ করবে এবং আপনার খরচ ভবিষ্যতে আরও বৃদ্ধি পাবে। সুতরাং, তুলনামূলকভাবে একটু বেশি দাম হলেও এনার্জি বাঁচায় এমন এসি কেনাটাই বরং ভালো। এনার্জি বাঁচায় এমন এসি কিনলে আপনি যে কতো টাকা বাঁচাতে পারবেন তা অকল্পনীয়।

ইন্সটলেশন, রক্ষণাবেক্ষণ এবং সার্ভিসিং

বাজারে এয়ার কন্ডিশনারের দামের খুব একটা তারতম্য ছাড়া প্রধানত দুই ধরণের এসি পাওয়া যায়। উইন্ডো এসি এখন ততটা জনপ্রিয় নয় কারণ এখন জানালার ব্যবহার অনেকটাই কমে এসেছে। স্প্লিট এসি, অর্থাৎ এসি-এর একটি অংশ ঘরের ভেতর এবং অপর অংশটি বাইরে এমন ধরণের এসি-এর জনপ্রিয়তা অনেক বেশি। এর কারণ হলো উন্নততর ডিজাইন এবং ভালো পারফরম্যান্স। এয়ার কন্ডিশনারের ইন্সটলেশন কখনই থার্ড পার্টি ইলেক্ট্রিশিয়ান দিয়ে করানো উচিত নয়। সেরা কুলিং পারফরম্যান্স নিশ্চিত করার জন্য সবসময় অনুমোদিত সার্ভিস সেন্টারের ইন্সটলেশন সার্ভিস ব্যবহার করবেন।

তাছাড়াও আপনি আপনার এয়ার কুলার অথবা এয়ার কন্ডিশনার যথাযথভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করবেন, নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর হলেও আপনি আপনার এয়ার কন্ডিশনারটি যথাযথভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করবেন। ভালো পারফরম্যান্স এবং দীর্ঘমেয়াদি সার্ভিস পেতে চাইলে অন্যান্য মেশিনের মতো আপনার এয়ার কন্ডিশনারটিরও যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণ প্রয়োজন। আপনার অর্থের বিনিয়োগ যাতে ভালো সুফল পায় তা সুনিশ্চিত করার জন্য আপনাকে ম্যানুফেকচারারের সাথে বিক্রয়োত্তর সার্ভিসের ব্যাপারে খোলাখুলি কথা বলে নিতে হবে। বিক্রয়োত্তর সার্ভিস ছাড়াও ম্যানুফেকচারারের ওয়ারেন্টি, গ্যারান্টি এবং রিপ্লেসমেন্ট ফিচারগুলো সম্পর্কেও বিস্তারিত জেনে নিন।

আপনার অভিজ্ঞতাকে আরও উপভোগ্য করার জন্য কিছু অতিরিক্ত ফিচার

এসি কেনার আগে কিছু অতিরিক্ত ফিচার রয়েছে যেগুলো সম্পর্কে জানা আপনার জন্য জরুরি, কারণ এই ফিচারগুলো একজন ব্যবহারকারী হিসেবে আপনার ব্যবহারিক অভিজ্ঞতাকে উপভোগ্য করে তুলবে। বিশ্বব্যাপী আবহাওয়ার পরিবর্তন অনেক ধরণের বিষয়কে প্রভাবিত করেছে, তবে বাংলাদেশের বেশিরভাগ অঞ্চলের আবহাওয়া প্রতিনিয়ত আর্দ্র হয়েই চলেছে। আপনার এসিটিতে ডিহিউমিডিফিকেশন ফিচার আছে কিনা তা যাচাই করে নিন, কেননা এই ফিচারটি অতিরিক্ত আর্দ্রতাময় দিনগুলোতে আপনার ঘরের আর্দ্রতাকে বহুলাংশে কমিয়ে আনবে। পাশাপাশি এ বিষয়টিও নিশ্চিত করুন যে আপনার এসি থেকে বিকট শব্দ সৃষ্টি হচ্ছে কিনা যা রাতের বেলা আপনার ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। আপনার এসিতে যদি স্লিপ মোড ফিচার থাকে তবে ঘর ঠাণ্ডা হয়ে গেলে আপনা আপনিই এসি বন্ধ হয়ে যাবে এবং ঘর গরম হয়ে গেলে পুনরায় তা চালু হয়ে যাবে। এতে করে আপনার ঘরের তাপমাত্রা সবসময়েই নিয়ন্ত্রণের মধ্যে থাকবে।

এয়ার কন্ডিশনার এখন মাল্টি পারপাজ গ্যাজেট হিসেবে কাজ করা শুরু করেছে যা কিনা কেবল ঠাণ্ডা করা ছাড়াও আরও অনেক রকমের কাজ করে থাকে। কুলিং স্পীড, ফ্যান স্পীড এবং টেম্পারেচার সেটিংসের মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন আবহাওয়াতে নিয়ন্ত্রণযোগ্য ব্যবহার করা সম্ভব, যেমন, কোন কোন সময়ে আপনার বেশি কুলিং প্রয়োজন এবং কোন কোন সময়ে আপনার বেশি ফ্যান স্পীড প্রয়োজন। কুলিং স্পীড দিনের বিভিন্ন সময়ে আপনাকে দিবে এনার্জি খরচ নিয়ন্ত্রণের সুবিধা। এসির সুন্দর ডিজাইন আপনার ঘরের শোভা বর্ধনে সাহায্য করবে। অনেক এসিতে আকর্ষণীয় ফিচারগুলোর মধ্যে একটি হলো মশা প্রতিরোধী ফিচার, এতে করে আপনাকে আর ক্ষতিকর কেমিক্যালসমৃদ্ধ স্প্রে বা কয়েল ব্যবহার করতে হবে না এবং একই সাথে আপনি ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়া, চিকুনগুনিয়ার মত ভয়াবহ রোগ প্রতিরোধ করতে সক্ষম হবেন।

সেরা ফলাফল পাবার জন্য কিছু টিপস এবং ট্রিকস

  • আপনার ঘর যদি রান্নাঘরের কাছে হয়ে থাকে অথবা আপনার ঘরের জানালা দিয়ে যদি সারাদিন সূর্য প্রবেশ করে বা আপনার ঘরের দেয়াল যদি সূর্যের বরাবর থাকে তবে ভালো ফলাফল পাবার জন্য একটি উচ্চ ধারণক্ষমতাসম্পন্ন এসি কিনুন।
  • আপনার ঘরের আকারটি মাথায় রেখে এসি কিনুন, যদি ঘরটি বড় হয়ে থাকে তবে ছোট এসি কিনবেন না কেননা আপনার ঘর কখনই ঠিকঠাক ঠাণ্ডা হবে না এবং আপনার ঘর যদি ছোট হয়ে থাকে তবে বেশি বড় এসি কিনবেন না কেননা এটি অতিরিক্ত এনার্জি নষ্ট করবে ও মাস শেষে বড় আকারের ইলেক্ট্রিক বিলের কারণ হয়ে দাঁড়াবে।
  • আপনি কোন ব্র্যান্ডের এসি কিনবেন তা নির্ধারণ করুন। সস্তা এসি না কিনে ভালো ওয়ারেন্টি এবং সার্ভিস পাবার জন্য ভালো ব্র্যান্ডের এসি কিনুন।
  • এসি-এর এনার্জি এফিসিয়েন্সি কতটুকু তা যাচাই করে নিন কারণ বাংলাদেশে বছরের প্রায় বারো মাসই এসি ব্যবহার করতে হয়, এই অঞ্চলে বর্ষাকালেও গরম পরে আর শীত প্রায় নেই বললেই চলে।
  • আপনি কত লম্বা সময় ধরে এসি চালাবেন তা নির্ধারণ করুন, আপনার যদি অনেক সময় ধরে এসি চালাতে হয় তবে ভালো মানের এনার্জি এফিসিয়েন্সিসমৃদ্ধ এসি কিনুন। তবে আপনি যদি কম সময়ের জন্য, বিশেষ করে দিনে এক বা দুই ঘণ্টার জন্য এসি চালাবার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন তবে কম রেটের এসি কিনুন।

এসি কেনার আগে আপনার বিনিয়োগ যাতে ফলপ্রসূ হয় সে বিষয়ে খেয়াল রেখে এসি ক্রয়ের প্রথমিক বিষয়গুলো এবং অ্যাডভান্সড বিষয়সমূহ যাচাই করে নিন। এসি-এর দাম কেবলমাত্র একটি প্রথম মুখ্য বিষয়, কিন্তু এসি ক্রয়ের ব্যাপারে আরও অনেক বিষয় রয়েছে যেগুলো আপনার অভিজ্ঞতাকে করবে আরও উপভোগ্য। এমন একটি এসি বেছে নিন যা আপনার চাহিদাগুলোকে পূরণ করে, আবহাওয়ার সাথে মানানসই হয় এবং আপনাকে দেয় সেরা পারফরম্যান্স। এসি সম্পর্কে আরও কিছু টিপস পেতে “এসি কেনার সময় যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে” আর্টিকেলটি পড়ুন।

Bikroy থেকে এসি কিনুন যেটা আপনাকে দিবে সেরা পারফরম্যান্স এবং উপভোগ করুন মালিকানার আনন্দ!

সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

Comments

comments