চাকরিটিপস ও গাইড

ইলেকট্রিশিয়ান পদে চাকরি খুঁজছেন? দেখে নিন এই টিপসগুলো

লাভজনক ব্লু-কলার জব হিসাবে, দেশের বাজারে দক্ষ ইলেকট্রিশিয়ানদের চাহিদা বরাবরই ছিল। আমাদের আধুনিক জীবনযাপনের ধরণ বিদ্যুৎ ব্যবহারের উপর অনেকখানি নির্ভরশীল, যা এই চাহিদাটি আরও বেশি মাত্রায় বাড়িয়ে দিয়েছে। ইলেকট্রিশিয়ানদের ছাড়া বর্তমান সমাজ ব্যবস্থা কল্পনা করা বেশ কঠিন। 

আপনি যদি নিরাপত্তা সহ উপার্জনের একটি ভালো উৎস খুঁজে থাকেন, তাহলে ইলেকট্রিশিয়ান পদে চাকরির কথা বিবেচনা করতে পারেন। এছাড়াও যারা তাদের পুরো দিন অফিসের ডেস্কে কাজ করে কাটাতে চান না তাদের জন্য এটি একটি পছন্দসই কাজ হতে পারে। যদিও এটি ইলেক্ট্রিশিয়ান হিসেবে আপনি যে ধরনের কাজের সাথে যুক্ত আছেন তার উপর নির্ভরশীল, তবে কাজের চাহিদার উপর ভিত্তি করে আপনাকে বাসস্থান, কারখানা, প্রতিষ্ঠান বা বাণিজ্যিক পরিবেশের ভেতরে বা বাইরে কাজ করতে হতে পারে।

আমাদের দেশে বেশিরভাগ ইলেকট্রিশিয়ান বিভিন্ন ঠিকাদারদের অধীনে কাজ করে থাকেন, তবে এর পাশাপাশি অনেকেই আছেন যারা স্বাধীনভাবেও কাজ করে থাকেন। সুতরাং, আপনার যদি উদ্যোক্তা হবার মানসিকতা থাকে তাহলে আপনি নিজে থেকেই কিছু একটা শুরু করতে পারেন। এছাড়াও, একটি বড় প্রতিষ্ঠানে চাকরি আপনার ক্যারিয়ারকে একজন ভবিষ্যত টিম লিডার বা অন্যান্য ইলেকট্রিশিয়ানদের ম্যানেজার হিসেবে গড়ে তুলতেও সহায়ক হতে পারে।

আমাদের আজকের এই লেখাটি আপনাকে একজন ইলেকট্রিশিয়ান হিসেবে সফল ক্যারিয়ার গড়তে এবং বাংলাদেশে ইলেকট্রিশিয়ান চাকরির বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে ধারণা দেবে। 

কীভাবে একজন ইলেক্ট্রিশিয়ান হিসেবে ক্যারিয়ার গড়ে তুলবেন?

বাংলাদেশে ইলেকট্রিশিয়ান হিসেবে চাকরি পেতে মূলত প্রথাগত শিক্ষার প্রয়োজন হয়না। বৈদ্যুতিক সার্কিট এবং বৈদ্যুতিক হোম অ্যাপ্লায়েন্স পরিচালনা করার জন্য পর্যাপ্ত জ্ঞান সম্পন্ন যে কেউ ইলেকট্রিশিয়ান হিসাবে ভালো করতে পারে। একেবারে প্রারম্ভিক পর্যায়ে অভিজ্ঞ কারো সহকারী হিসেবে, কর্মজীবন শুরু করে প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জন করতে হবে। পরবর্তী সময়ে বাস্তব অভিজ্ঞতা অর্জনের সাথে সাথে ক্যারিয়ারের ভালো একটি পর্যায়ে পৌঁছানো সম্ভব। 

জেনে রাখা ভালো যে, দেশীয় অনেক প্রতিষ্ঠান ইলেকট্রিশিয়ান চাকরির বিজ্ঞাপন দেওয়ার সময় পেশাদার সার্টিফিকেটধারীর খোঁজ করে থাকেন। সুতরাং, কোনো স্বনামধন্য সংস্থা বা ব্যক্তিগত কোম্পানিতে ক্যারিয়ার গড়ার জন্য, আপনি ইলেকট্রিশিয়ান ট্রেড কোর্সে ভর্তি হতে পারেন।

এ জাতীয় কোর্স চলাকালীন শিক্ষার্থীদের মূলত আবাসিক ও শিল্প এলাকায় ঘটতে পারে এমন সব ধরণের বৈদ্যুতিক সমস্যা সম্পর্কে বিস্তারিত শেখানো হয়ে থাকে। এছাড়াও কোর্সের সিলেবাসে যে সকল বিষয় অন্তর্গত থাকে তা হলো- মৌলিক বৈদ্যুতিক তত্ত্ব, বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ করা। এই কোর্সগুলো সাধারণত দক্ষ ইলেকট্রিশিয়ানদের নির্দেশনায় পরিচালিত হয়ে থাকে।

এছাড়াও শিক্ষার্থীদের কোর্সের মাধ্যমে ড্রিল করা, লাইন সংযুক্ত করা, এবং পুরো সার্কিট সিস্টেমের চিত্র আঁকতে শেখানো হয়। কোর্স শেষে প্রার্থীদের সার্টিফিকেট দেওয়া হয়ে থাকে যা তাদের পরবর্তীতে একজন দক্ষ ইলেক্ট্রিশিয়ান হিসেবে চাকরি পেতে সহায়তা করবে।

বাংলাদেশে ইলেকট্রিশিয়ান হিসেবে চাকরির সুযোগ

সার্টিফিকেশন কোর্স শেষ করার পরে, একজন যেকোনো প্রতিষ্ঠান অথবা স্বতন্ত্র শিক্ষানবিশ হিসাবে তাদের কর্মজীবনে পা রাখতে পারে। মূলত ইলেকট্রিশিয়ান চাকরিতে দক্ষতা অর্জনের জন্য কিছুটা অভিজ্ঞতা থাকা প্রয়োজন। তাই বহুমুখী দক্ষতা আপনাকে আরও ভালো সুযোগ অর্জনে সহায়তা করতে পারে।

ইলেকট্রিশিয়ান হিসেবে রপ্ত করার মত জন্য বেশ কিছু দক্ষতা আছে। যার মধ্যে রয়েছেঃ 

  • ওয়্যারিং, ক্যাবলিং, ফিউজ এবং অন্যান্য বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ইনস্টল এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা।
  • বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার স্থাপন।
  • বিভিন্ন পণ্য মেরামত এবং ত্রুটিপূর্ণ অংশ প্রতিস্থাপন।
  • প্রয়োজনীয়তার উপর ভিত্তি করে বৈদ্যুতিক তারের বিন্যাস, অথবা ফ্যান, বাল্ব, মোটর, জেনারেটর, এসি, ফ্রিজ এবং অন্যান্য বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা।
  • ইউজার ম্যানুয়াল, স্পেসিফিকেশন এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের মাধ্যমে সমস্যা সমাধান করা।

বর্তমানে আমাদের দেশে বিভিন্ন বৈদ্যুতিক সংস্থা, হাসপাতাল, বিদ্যুৎকেন্দ্র, বৈদ্যুতিক হোম অ্যাপ্লায়েন্স কোম্পানি, নির্মাণ সংস্থা, ইঞ্জিনিয়ারিং সাইট এবং অন্যান্য অনেক জায়গায় দক্ষ ইলেকট্রিশিয়ানদের চাহিদা রয়েছে।

সুনির্দিষ্ট যোগ্যতা সম্পন্ন ইলেকট্রিশিয়ানরা আধুনিক প্রযুক্তি যেমন বৈদ্যুতিক পাওয়ারহাউস, গার্মেন্টস এবং অন্যান্য প্রযুক্তি-ভিত্তিক সংস্থাগুলোর সাথে কাজ করতে পারে। পাশাপাশি সরকারি খাতে ব্রিজ নির্মাণ, বিদ্যুৎ বোর্ড, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন, বিমানবন্দর, ইত্যাদি জায়গাতেও ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ পাওয়া যায়।

এছাড়াও একজন ইলেকট্রিশিয়ান নিজেও স্বতন্ত্র ভাবে কাজ করতে পারেন। তদুপরি, পর্যাপ্ত অভিজ্ঞতা, বৈদ্যুতিক ঠিকাদারের লাইসেন্স এবং পর্যাপ্ত মূলধন থাকলে বৈদ্যুতিক ঠিকাদার হিসাবে কর্মজীবন শুরু করা এবং এর মাধ্যমে নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব।

ইলেকট্রিশিয়ান চাকরির পে-স্কেল

ইলেকট্রিশিয়ান চাকরির পেমেন্ট বা বেতন মূলত কাজের ধরণের উপর নির্ভর করে। প্রাথমিক পর্যায়ে, যারা কোনো প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত তারা প্রতি মাসে ৭,০০০ – ১০,০০০ টাকা আশা করতে পারেন। অভিজ্ঞতার সাথে সেটি ১২,০০০ – ২০,০০০ টাকায় উন্নীত হতে পারে। তবে আমাদের দেশে ব্যক্তিগতভাবে কাজ করে এমন ইলেকট্রিশিয়ানদের পে-স্কেল একটু বেশি হয়ে থাকে। পাশাপাশি যারা কর্পোরেট হাউসে কাজ করছেন তারা পেমেন্টের পাশাপাশি অন্যান্য সুবিধাদিও আশা করতে পারেন।

ইলেকট্রিশিয়ান চাকরির জন্য সিভি রাইটিং টিপস

ইলেকট্রিশিয়ান চাকরিতে সফল ক্যারিয়ার গড়ার জন্য সিভিতে কিছু দক্ষতা যোগ করা প্রয়োজন। সঠিক উপায়ে সিভি লেখার সময় উল্লেখিত প্রয়োজনীয় দক্ষতাগুলো সেখানে আছে কিনা মিলিয়ে নিনঃ 

  • খুঁটিনাটি বিষয়ে নিবিড় মনোযোগ
  • প্রাথমিক গণিত সম্পর্কে দক্ষতা
  • সময় ব্যবস্থাপনা
  • সমস্যা সমাধানের দক্ষতা
  • ভালো যোগাযোগ দক্ষতা (বাংলার পাশাপাশি, বিদেশী চাকরির সুযোগ পেতে ইংরেজি শিখতে পারেন)
  • মেকানিক্যাল বিষয় সম্পর্কে ধারণা

তবে আপনি যদি চাকরির জগতে নতুন হয়ে থাকেন অর্থাৎ পূর্ব কোনো অভিজ্ঞতা না থাকে, তাহলে আপনি নিম্নোক্ত বিষয়গুলো আপনার সিভিতে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেনঃ

  • অন্য ইলেকট্রিশিয়ানদের সাথে যেকোনো কাজ, ইন্টার্নশিপ, শিক্ষানবিশ কাজ, ইত্যাদি
  • কোনো নির্মাণ সংস্থার সাথে স্বেচ্ছাসেবক অভিজ্ঞতা
  • অন্য কোনো প্রাসঙ্গিক দক্ষতা

ইলেকট্রিশিয়ান চাকরির জন্য সম্ভাব্য ইন্টারভিউ প্রশ্ন

আমাদের দেশে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ইলেকট্রিশিয়ানরা তাদের পূর্ব অভিজ্ঞতা এবং কিছু মৌখিক যোগাযোগের ভিত্তিতে নিয়োগ পায়। তবে প্রতিষ্ঠান ভিত্তিক কিছু প্রশ্ন প্রার্থীদের করা হয়ে থাকেঃ 

  • জানাশোনা কম এমন একটি সমস্যার সমাধান আপনি কীভাবে? 
  • আপনি যে প্রকল্পগুলোতে কাজ করেছেন তার কয়েকটি বর্ণনা করুন এবং সেগুলো থেকে কী কী বিষয় আপনি শিখেছেন?
  • পূর্বে কাজ করা কিছু বৈদ্যুতিক সিস্টেম ব্যাখ্যা করুন।
  • আপনার স্বতন্ত্র এবং দলীয় কাজ করার অভিজ্ঞতা শেয়ার করুন। 

শেষ কথা

কোভিড-পরবর্তী যুগে দেশের বাজারে ব্লু-কলার শ্রমিকদের চাহিদা অনেকখানি বেড়েছে। আমাদের তরুণদের জন্য ইলেকট্রিশিয়ান হিসেবে ক্যারিয়ার একটি চমৎকার পছন্দ হতে পারে। কিছুটা সময় সাপেক্ষ হলেও, আপনি যখন লাইসেন্সপ্রাপ্ত হবেন, আপনি নিজেই একটি ব্যবসা দাঁড় করিয়ে ফেলতে পারবেন।

আমরা আশাবাদী আমাদের আজকের লেখাটি আপনাকে ইলেক্ট্রিশিয়ান পদে চাকরির পথে কিছুটা হলেও এগিয়ে নিতে সক্ষম হবে। দেশের ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কিত খবর এবং ট্রেন্ড সম্পর্কে আরও তথ্যের জন্য, চোখ রাখুন Bikroy ব্লগে

আপনার জন্য শুভ কামনা! 

Facebook Comments
সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

আরও দেখুন

অনুরূপ লেখা গুলো

Back to top button
Close
Close