মোবাইল

আইফোন ১২ তে নতুন কি আছে, কেনই বা কেনা উচিত?

বহু জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অ্যাপল অক্টোবর মাসে বাজারে নিয়ে এসেছে তাদের আইফোন ১২ এর চারটি ভার্সন- আইফোন ১২, আইফোন ১২ প্রো, আইফোন ১২ প্রো ম্যাক্স, এবং এই তিনটি মডেলের সাথে অ্যাপল বাজারে লঞ্চ করেছে অপেক্ষাকৃত ছোট স্ক্রিনের আইফোন ১২ মিনি। 

অ্যাপল শুধু তাদের ফোনের ডিজাইনই পরিবর্তন করেনি, এনেছে কিছু যুগান্তকারী ফিচারও। আপনি হয়ত দীর্ঘদিন ধরে আইফোন ব্যবহার করছেন কিন্তু আইফোন ১২ সিরিজ আপনাকে পরিচয় করিয়ে দেবে কিছু কল্পনাতীত স্মার্টফোন টেকনোলজির সাথে। যদি ইতোমধ্যেই ভেবে থাকেন আইফোন ১২ কেনার ব্যাপারে তাহলে আমাদের এই লেখাটি শেষ অব্দি পড়ুন। এতেকরে আপনার বাজেট এবং প্রয়োজন অনুযায়ী পছন্দের মডেলটি বেছে নিতে পারবেন আর একই সাথে আপনি জেনে নিতে পারবেন বাংলাদেশের বাজারে আইফোন ১২ এর দাম সম্পর্কে। 

এক নজরে আইফোন ১২ সিরিজ 

এই সিরিজের ফোনগুলো কে তাদের দাম এবং ডিজাইন অনুযায়ী সাজালে প্রথমেই আসে আইফোন প্রো ম্যাক্স, আইফোন ১২ প্রো, আইফোন ১২, এবং, আইফোন ১২ মিনি। এই ফোন গুলোতে শুরুতেই যে জিনিসটি চোখে পরার মত, তা হল ডিজাইন। আইফোন ৪ এর জন্য স্টিভ জবস যে জনপ্রিয় স্কয়ার শেপ ডিজাইন ছিল তাই মূলত ফিরিয়ে আনা হয়েছে আইফোন ১২ তে।  

প্রতিটি মডেলের আইফোনে থাকছে অ্যাপল এর নতুন এ১৪ বায়োনিক চিপ। যার সুবাদে প্রতিটি ফোনেই থাকছে ৫জি সুবিধা। অ্যাপল দাবি করছে এই এ১৪ চিপ তাদের গতবছরের এ১৩ চিপের থেকে প্রায় ৫০% অধিক দ্রুতগতি সম্পন্ন।  

প্রতিটি মডেলের সাথেই থাকছে ওলেড ডিসপ্লে। অ্যাপল তার পরিবেশবান্ধব প্রকল্পের অংশ হিসেবে এই সসিরিজের ফোন গুলোর সাথে কোনো তার যুক্ত চার্জার এবং ইয়ারফোন দিচ্ছে না। তবে বক্সের সাথে দেওয়া ইউএসবি টু লাইটেনিং ক্যাবল এর মাধ্যমে কোন ডিভাইসের সাথে সংযুক্ত করে আপনার আইফোন চার্জ দিতে পারবেন। 

প্রতিটি মডেলের আইফোনে থাকছে অ্যাপল এর নতুন এ১৪ বায়োনিক চিপ

বেস সংস্করণঃ আইফোন ১২ এবং আইফোন ১২ মিনি

২০২০ সালের এপ্রিল মাসে বাজারে আনা আইফোন এসি এর ব্যাপক সাফল্যের পর থেকে প্রতিষ্ঠানটি তাদের ছোট পর্দার ডিভাইস তৈরি এবং বাজারজাতকরণ কে গুরুত্বের সাথে দেখছে। যার ধারাবাহিকতায় আইফোন ১২ সিরিজে যুক্ত হয়েছে অ্যাপল ১২ মিনি। ৫.৪ ইঞ্চি ডিসপ্লের এই ডিভাইসটির সাথে মূল আইফোন ১২ এর সকল ফিচার এবং সুবিধাও থাকছে। 

ফোন গুলোতে দেওয়া হয়েছে “সিরামিক শিল্ড” প্রযুক্তি। যা হাত থেকে ফোন পরে যাওয়ার ক্ষেত্রে ৪ গুণ অধিক সুরক্ষা প্রদানে সক্ষম। একইসাথে থাকছে লো-লাইট ক্যামেরা পার্ফরম্যান্স। 

আইফোন ১২ এবং আইফোন ১২ মিনি, উভয় ফোনেই থাকছে ১২ মেগাপিক্সেল ক্ষমতা সম্পন্ন ওয়াইড এবং আলট্রা ওয়াইড প্রযুক্তির ডুয়াল-লেন্স ক্যামেরা সেটাপ। এছাড়াও ফোন দুটির সাথে যে ধরণের ফিচারসমূহ উপভোগ করা যাবে- 

  • ১০০% ফোকাস পিক্সেল
  • ৫x ডিজিটাল জুম
  • নাইট মোড
  • প্যানোরামা ( ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ভিউ )
  • অপটিক্যাল ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশন 
  • প্রোটেইট মুড 
  • এইচডিআর ৩ 

ভিডিওগ্রাফি এবং স্লো-মোশন ভিডিও ক্যাপচারিং এর ক্ষেত্রেও ফোন দুটি বিশেষ পারদর্শিতা প্রদর্শনে সক্ষম। আইফোন ১২ সিরিজের বেস মডেলের ফোন দুটি বাজারে পাওয়া যাবে ব্লু, গ্রীন, হোয়াইট, এবং ব্ল্যাক এবং দুটি মডেলের বেস ভ্যারিয়েন্টে থাকছে ৬৪ জিবি স্টোরেজ। এছাড়াও ১২৮ এবং ২১৬ জিবি ভ্যারিয়েন্টেও পাওয়া যাবে ডিভাইস দুটো। 

প্রো সংস্করণঃ আইফোন ১২ প্রো এবং আইফোন প্রো ম্যাক্স 

আইফোন ১২ প্রো ফোনটিতে থাকছে ৬.১ ইঞ্চির ওলেড রেটিনা ডিসপ্লে যেখানে আইফোন ১২ প্রো ম্যাক্স ফোনটি ৬.৭ ইঞ্চি ডিসপ্লে বিশিষ্ট। প্রো মডেলের ফোন দুটির সাথে থাকছে লাইডার সুবিধা যা মূলত এআর ইফেক্টে ব্যবহার করা হয়। বেস মডেলের মতই প্রো মডেল দুটির সাথে থাকছে “সিরামিক শিল্ড প্রযুক্তি” যা ফোন দুটিকে হাত থেকে পরে যাওয়ার ক্ষেত্রে ৪ গুণ বেশি সুরক্ষা প্রদান করবে। 

আইফোন ১২ প্রো এবং আইফোন প্রো ম্যাক্স এ থাকছে ট্রিপল ক্যামেরা লেন্স সেটাপ। আইফোন ১১ এর মতই এই ফোন দুটিতে থাকছে ১২ মেগা পিক্সেলের টেলিফটো, ওয়াইড, এবং আলট্রা-ওয়াইড ক্যামেরা। তবে অ্যাপল এর দাবি অনুযায়ী এই ফোন দুটি আগের মডেলের চেয়ে ২৭% বেশি মানসম্পন্ন লো-লাইট ছবি তুলতে সক্ষম। এছাড়াও ৫২ ন্যানোমিটার টেলিফটো লেন্সের মাধ্যমে ৪x ডিজিটাল জুম এর সুবিধা উপভোগ করা যাবে। 

এই ফোন দুটির বেস মডেলে থাকছে ১২৮ জিবি স্টোরেজ । বেস মডেল ছাড়াও ২৫৬ জিবি এবং ৫১২ জিবি স্টোরেজ সংস্করণেও পাওয়া যাবে আইফোন ১২ প্রো এবং আইফোন ১২ প্রো ম্যাক্স মডেল দুইটি। দুটি ফোনই বাজারে পাওয়া যাবে চারটি আলাদা কালার ভ্যারিয়েন্টে- গ্রে, স্টেইনলেস স্টিল, ব্লু, ও গোল্ড। 

আইফোন ১২ লাইন-আপের সব মডেলের ফোনের সাথেই থাকছে “সিরামিক শিল্ড প্রযুক্তি”

আইফোন ১২ এর দাম এবং বাংলাদেশে ফোনটির বিকল্প 

আইফোন ১২ মিনি এর দাম ধরা হয়েছে ৬৯৯ মার্কিন ডলার অপরদিকে ৬.১ ইঞ্চি ডিসপ্লের আইফোন ১২ কিনতে গেলে বাড়তি গুনতে হবে ১০০ ডলার অর্থাৎ আইফোন ১২ এর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৭৯৯ মার্কিন ডলার। আবার ৬.১ ইঞ্চির আইফোন প্রো মডেলের দাম ধরা হয়েছে ৯৯৯ মার্কিন ডলার যেখানে আইফোন ১২ প্রো ম্যাক্স পাওয়া যাবে ১০৯৯ মার্কিন ডলারে। 

অ্যাপল আইফোন ১২ সিরিজের চারটি মডেল উন্মুক্ত করার মাধ্যমে নিজেদের মধ্যেই একক প্রতিযোগী হয়ে উঠেছে। তারা ফোনের ফিচার এবং সেই অনুযায়ী মূল্য নির্ধারণ করার মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন বাজেটে তাদের নিজস্ব ডিভাইস বেছে নেওয়ার একটি সুযোগ করে দিয়েছে।

আমাদের দেশে স্মার্টফোনের গ্রাহকদের একটি বড় অংশ অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেমের সাথে অভ্যস্ত এর কারণ মূলত অ্যান্ড্রয়েড ফোন গুলো মানুষের ক্রয় ক্ষমতা অনুযায়ী ফোন বাজারে আনে এবং ফোনের  যন্ত্রাংশের সহজলভ্যতা।  তবে দামের দিক দিয়ে বিবেচনা করলে আইফোন ১২ মিনির প্রতিযোগী হিসেবে ওয়ান প্লাস ৮, গ্যালাক্সী এস ২০ ফ্যান এডিশন, এবং গুগলের পিক্সেল ৫ উল্লেখ্য। অন্যপ্রান্তে আইফোন ১২ এর প্রতিযোগী হিসেবে বাজারে আসছে ওয়ান প্লাস ৮ প্রো!

যদিও এখনো বাংলাদেশের বাজারে অ্যাপল তাদের আইফোন ১২ সিরিজ অফিসিয়ালি লঞ্চ করেনি তবে বিভিন্ন প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট এবং পত্রিকার মাধ্যমে তাদের দাম সম্পর্কে আঁচ করা যায়। 

মডেল বাংলাদেশে দাম
আইফোন ১২, ৬৪ জিবি৮০,০০০ টাকা 
আইফোন ১২, ১২৮জিবি ৮৫,০০০ টাকা
আইফোন ১২, ২৫৬ জিবি৯৫,০০০ টাকা
আইফোন ১২ প্রো,  ১২৮ জিবি১,২০,০০০ টাকা 
আইফোন ১২ প্রো,  ২৫৬ জিবি১,৩০,০০০ টাকা
আইফোন ১২ প্রো,  ৫১২ জিবি১,৫০,০০০ টাকা 
আইফোন ১২ সিরিজ এর আনুমানিক বাজারমূল্য

বাংলাদেশে কোথায় পাওয়া যাবে আইফোন ১২? 

বাংলাদেশে কিছু বছর আগে অ্যাপল অনুমোদিত আই স্টোর চালু হয়েছে। রাজধানী ঢাকার তিনটি  আইস্টোর আউটলেটে আপনি অফিসিয়ালি আইফোন ১২ সিরিজের যেকোনো ডিভাইস ক্রয় করতে পারেন। এছাড়াও কিছু গ্যাজেট প্রতিষ্ঠান বিক্রি করার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশে অফিসিয়াল আইফোন এনে থাকে। 

আমরা কখনো আনঅফিসিয়াল ফোন ক্রয় করতে ক্রেতাদের উদ্ভুদ্দ করি না তবে যদি একান্তই ক্রয় করে থাকেন সেক্ষত্রে সচেতন থাকা শ্রেয়। 

শেষ কথা  

অ্যাপল প্রকৌশলীদের হাত ধরে আইফোন তার যাত্রা শুরু করে ২০০৭ সালের ২৯ জুন। এর পরের গল্প শুধুই সামনে তাকানোর। গত এক দশক ধরে এতখানি জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পারেনি আর কোন প্রতিষ্ঠান। সেই বিপুল জনপ্রিয়তার হাত ধরেই অ্যাপল উন্মোচন করেছে তাদের আইফোন ১২ সিরিজ। 

আপনিও যদি পৃথিবীর কোটি কোটি অ্যাপল প্রেমীদের একজন হয়ে থাকেন তাহলে নিশ্চিন্তে কিনে ফেলতে পারেন এই আধুনিক ডিজাইন, নিরাপত্তা, আর অভুতপূর্ব প্রযুক্তির মিশ্রনে তৈরি করা অ্যাপলের আইফোন ১২ সিরিজের যে কোন ফোন।

Facebook Comments
সাবস্ক্রাইব করুন

No spam guarantee.

আরও দেখুন

অনুরূপ লেখা গুলো

Back to top button
Close
Close