পেশাদারিত্বে তিন ‘P’

নিয়োগকর্তারা কোন প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ প্রদানের জন্য প্রাধানত নিয়োগপ্রার্থীর (কর্মীর) কোন যোগ্যতাটি দেখেন? সংক্ষেপ করে এক কথায় যদি বলি, তা হচ্ছে পেশাদারিত্ব বা প্রফেশনালিজম।

 

বাংলাদেশের মতো দেশে কাজ করার জন্য প্রধান সমস্যা সম্পর্কে যেকোন উদ্যোক্তা বা বিদেশি বিনিয়োগকারীকে জিজ্ঞেস করুন; তাদের কাছ থেকে আপনি বারংবার একই উত্তর পাবেন সময়, সময় এবং সময়। নিয়োগ পাওয়ার পর কঠোর পরিশ্রম করবে কিংবা দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করবে এমন একজন কর্মচারী খুঁজে পাওয়া খুব কঠিন নয়। কিন্তু এমন একজনকে খুজে পাওয়া অনেক বেশি কঠিন হবে, যে জানে কিভাবে পেশাদারিত্বের মতো কাজ করতে হয়।

 

পেশাদারিত্ব বিষয়টি এমন নয়, যে আপনি সেটি কোন স্কুল কিংবা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শিখতে পারবেন। কোন একজন ব্যক্তি বিশ্বের সবচেয়ে সেরা মেধাবী ছাত্র হতে পারেন, তার শিক্ষা ক্ষেত্রের সবচেয়ে জটিল ও উন্নত ধারণা বা সূত্রগুলো বুঝতে পারেন কিন্তু পেশাদারিত্ব বিষয়টি এখনো একটি জটিল বিষয়।

 

তাহলে কিভাবে একজন ব্যক্তি নিরেট পেশাদার হতে পারবেন? এর জন্য সহজ কোন পদ্ধতি বা উত্তর নেই। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এটি অর্জিত হয় অভিজ্ঞতা এবং বিজ্ঞ পরামর্শদাতাদের (যারা সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে অনেক বেশি অভিজ্ঞ) মাধ্যমে। তবে কিছু কিছু মানুষ রয়েছে যাদের ব্যক্তিত্বের সাথে কখনই পেশাদারিত্ব বিষয়টি খাপ খায় না। কিন্তু কিছু প্রচলিত এবং সাধারণ নিয়ম-নীতি রয়েছে যেগুলো তরুণদের পেশাদারিত্বের পথ দেখাতে পারে। এখানে আমি আপনাদের জন্য কিছু সহজ নিয়ম তুলে ধরছি। পেশাদারিত্বের জন্য তিনটি ‘পি’ অনুসরণ করতে হবে; এগুলো হলো- সময়ানুবর্তিতা, উপস্থাপনা এবং ঐকান্তিকতা বা অধ্যাবসায়।

 

সময়ানুবর্তিতা (Punctuality):

1
সময়ের যথাযথ ব্যবহার পেশাদারিত্বের মূল প্রকৃতি বা বিষয়। কারো সাথে সাক্ষাতের (এ্যাপয়েন্টম্যান্ট) ক্ষেত্রে কখনই বিলম্ব করবেন না। ঢাকার মতো যানজটের শহরে মানুষ প্রায় এ্যাপয়েন্টমেন্টে বিলম্ব করার কারণ হিসেবে যানজটের কথা উল্লেখ করেন এবং প্রত্যাশা করেন যে, তার এই অজুহাতটি অন্যজন বুঝবে। এরকম কখনই করবেন না। যানজট এড়িয়ে সঠিক সময়ে এ্যাপয়েন্টমেন্টস্থলে উপস্থিত হওয়ার জন্য কত আগে বের হতে হবে সেই বিষয়টিকে গুরুত্ব দিন। কোন ধরণের অজুহাত তৈরি করবেন না।
সময়ানুবর্তিতা বলতে শুধু সঠিক সময়ে এ্যাপয়েন্টমেন্টে উপস্থিত হওয়াই নয়, সময়ানুবর্তিতা বলতে আপনার সকল কাজই সঠিক সময়ে সম্পন্ন করা। কাজের ক্ষেত্রে কখনই নির্দিষ্ট সময়সীমা অতিক্রম করবেন না। কোন ই-মেইলের প্রতিত্তোর দিতে খুব বেশি দেরি করবেন না। এজন্য অনেক সময় আপনাকে নির্ধারিত সময়েরও বাইরেও অতিরিক্ত সময়ে কাজ করতে হবে, এটাও ভাল। পেশাদারিত্ব মানে নিজ নিজ কাজের ক্ষেত্রে ভালো ফলাফলের জন্য ৯টা থেকে ৫টার বাইরে কাজ করা। আপনি যদি কোন কাজে বিলম্ব করেন তাহলে কাজের ক্ষেত্রে কোন সাহায্য করতে পারবেন না। তবে সমাধানটা খুব সহজ- যদি কোন কারণে বিলম্ব হয় তাহলে যত দ্রুত সম্ভব আপনার প্রতিষ্ঠান প্রধান/নিয়োগ কর্তা কিংবা ক্লায়েন্টকে অবহিত করুন এবং পুনরায় সময় নির্ধারণ করুন। তাহলে আপনার বিলম্বের কারণে কাজের খুব বেশি ক্ষতি/প্রভাব পড়বে না এবং পিছিয়ে যাবে না।

 

উপস্থাপনা (Presentation):

2
পেশাদারিত্বের ক্ষেত্রে অনেক মূল্যবান এবং গুরুত্বপূর্ণ ক্লায়েন্টকে সময়মত এবং সফলভাবে কার্যকর পদ্ধতিতে জটিল কাজের ফলাফল প্রদান করতে হয়। এর মাধ্যমেই ক্লায়েন্ট আপনার পেশাদারিত্বের বিষয়ে আপনার প্রতি আস্থা এবং বিশ্বাস স্থাপন করে থাকে। দূর্বল ব্যক্তিত্বের উপস্থাপনা হচ্ছে- সেভহীন মুখ (দাঁড়িসহ), অপরিচ্ছন্ন শার্ট, ক্লান্ত ও পরিশ্রান্ত থাকার কারণে চোখ লাল হয়ে থাকা। এসব বিষয় একজন ব্যক্তি সম্পর্কে নিশ্চিত করে যে, পেশাদার কাজের জন্য যেসব গুণাগুণ থাকা দরকার তা ওই ব্যক্তির মধ্যে অনুপস্থিত। আপনি যতই ক্লান্ত থাকুন না কেন, আপনার ক্লায়েন্ট আপনাকে দেখে যেন বুঝতে পারে এবং চিন্তা করে যে, আপনি সারারাত খুব ভালোভাবে ঘুমিয়েছেন, সকালবেলা সময় নিয়ে প্রস্তুত হয়েছেন এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন পোষাক পরিধান করেছেন। একজন পেশাদার হিসেবে এসব বিষয় অবশ্যই আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে।
ক্লায়েন্ট এর সাথে সাক্ষাতের সময় অবশ্যই সুন্দর ড্রেস পরতে হবে। তবে মনে রাখতে হবে তা যেন কোনভাবেই চটকদার বা রুচিহীন না হয়। এজন্য গ্রাফিক্স ডিজাইন এবং চটকদার কাপড়ের শার্ট পরিহার করুন। নারী কর্মীরা নিজেদেরকে পরিচ্ছন্ন এবং পেশাদার দেখানো জন্য কিছুটা ম্যাক আপ (প্রসাধনী) ব্যবহার করতে পারেন। তবে খুব বেশি প্রশাধনী ব্যবহার করলে কাজের পরিবেশের জন্য তা বেমানন হতে পারে।
উপস্থাপনা কেবল আপনার নিজেকে দেখতে কেমন লাগছে এটিই নয়, বরং কিভাবে আপনি কথা বলছেন এবং লেখার মাধ্যমে আপনাকে উপস্থাপন করতে পারছেন সেটিই মূখ্য বিষয়। কথা বলার সময় স্পষ্ট করে এবং নির্দিষ্ট পয়েন্টে কথা বলুন। কখনই খুব বেশি কথা বলে আপনার জ্ঞান ও যোগ্যতা প্রকাশ করার বা বোঝাবার চেষ্টা করবেন না। আর যখন আপনি কোন প্রতিবেদন লিখবেন এবং ই-মেইল করবেন তখন ইংরেজি বানান, গ্রামার এবং যতিচিহ্নের ব্যবহার খুব ভালোভাবে পরীক্ষা করে নিবেন। কেননা ইংরেজি বানান, গ্রামার এবং যতিচিহ্নের ভুল প্রমান করে যে আপনি ইংরেজি ভাষায় অনেক দূর্বল এবং অনেক বড় বা গুরুত্বপূর্ণ কোন লেখার কাজের ক্ষেত্রে আপনার উপর ভরসা করা যায় না।

 

ঐকান্তিকতা (Perseverance):

3
আমার খুব ঘনিষ্ট একজন বন্ধু আমেরিকার একটি বড় ম্যানেজম্যান্ট কনসালটেন্সি প্রতিষ্ঠানে কাজ করতো। সে ক্লায়েন্টদের মনযোগ আকর্ষণের জন্য ডিটেইল রিপোর্ট তৈরি করতে পুরো সপ্তাহ ব্যয় করতো। কিন্তু যখন সে এটি তাদের সামনে উপস্থাপন করতো, উপস্থিত ক্লায়েন্ট এবং প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা বলতেন তার কাজটি মানসম্পন্ন হয়নি এবং গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু নিয়ে খুব বেশি আলোচনাই করতেন না। এমনকি তার স্বামী তার জন্য শত মাইল দুরে তার জন্য অপেক্ষা করেছে। সময় কাটানোর জন্য তারা পরিকল্পনাও করেছিলেন। কিন্তু সে তার এই কাজের জন্য স্বামীর সব পরিকল্পনা বাতিল করে দিয়ে অতিরিক্ত আরও তিন দিন সেখানে অবস্থান করলেন। সারাদিন এবং সারারাত কাজ করে সে একই বিষয়ের উপর আরও নতুন একটি রিপোর্ট তৈরি করলো। অবশেষে তার এই এতো কঠোর পরিশ্রমের পর ক্লায়েন্ট এবং কোম্পানির প্রতিনিধিরা তাকে বললেন তার কাজ সন্তোষজনক হয়েছে। একজন পেশাদার হিসেবে সে তার সর্বোচ্চ কোয়ালিটি এবং ঐকান্তিকতা দেখিয়েছেন। এতো কঠোর পরিশ্রমের পরও তার ওই কাজ অপচয় বা নষ্ট মনে হলেও সে কোন অভিযোগ করেনি। সে বলেনি যে ক্লায়েন্ট ভুল বুঝেছে বা ক্লায়েন্ট বুঝতে পারেনি। সে তাদের সমালোচনা মনোযোগ দিয়ে শুনেছে এবং অতিরিক্ত সময় ধরে কাজ করেছে। তার কাজকে সফল করার জন্য সে যে শপথ বা প্রতিজ্ঞা করেছিলো তার জন্য বিনা পারিশ্রমিকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ধরে কাজ করেছে।

 

একজন পেশাদার ব্যক্তি কেবলই একজন শ্রমিক নন, যে আপনি শুধু আসবেন নির্দিষ্ট কিছু কাজ করবেন এবং সময় শেষ হলে বাড়ি চলে যাবেন। ক্লায়েন্টদের কাছে জটিল কাজের ফলাফল এবং পণ্য প্রদানের জন্য আপনাকে অবশ্যই আপনার মেধা, দক্ষতা এবং উদ্যোগকে কাজে লাগাতে হবে। বিশেষ করে আপনার ক্যারিয়ারের শুরুতে, কোন কাজেই বিলম্ব করবেন না, ব্যর্থরা আপনাকে নিরুৎসাহিত করবে। একটি কাজ করতে গিয়ে আপনি অনেকবার ব্যর্থ হবেন। কিন্তু কখনই অভিযোগ করবেন না। কাজটি পারফেক্ট হচ্ছে না দেখে ছেড়ে দিবেন না। কঠোর পরিশ্রম করুন। অধ্যাবসায় এবং ঐকান্তিকতার সাথে চেষ্টা করুন।

Comments

comments