বাংলাদেশের জনপ্রিয় বাদ্যযন্ত্রসমূহ

যারা বাদ্যযন্ত্র বাঁজায় তাঁদের মধ্যে একটি সৃষ্টিশীল দিক রয়েছে। কিন্তু, বাদ্যযন্ত্র কেনাবেচার জন্য কোনো পরামর্শ থাকলে সেগুলো কী কী? কেনার জন্য আপনাকে দামের পার্থক্য বুঝতে হবে। আপনার যদি গান-বাজনা জানা কোনো বন্ধু থাকে, তবে তাঁদের কাছে পরামর্শ চাইতে পারেন। যেমন ধরুন, পিয়ানো কিনতে গেলে তাঁরা বলতে পারবে কোন পিয়ানোটি দাম অনুযায়ী ঠিক আছে।

তাঁরা কেন সেটি বিক্রি করছেন?
যন্ত্রশিল্পীরা বিভিন্ন কারনে তাঁদের বাদ্যযন্ত্র বিক্রি করতে পারেন। কিন্তু, কিছু সতর্কতা সংকেত আপনাকে বলে দেবে তাঁদের বলা কারণ শুনে টাকা খরচ করা ঠিক হবে না। কিছু কিছু কারণ সম্পর্কে সাবধান হোন, যেমন: “আমার টাকার প্রয়োজন”, এবং “এটি ঘরের অনেক জায়গা নষ্ট করছে”। এই কারণগুলো অবহেলার ইঙ্গিত বহন করে। যদি তাঁদের টাকার দরকার হয় তার মানে হচ্ছে সেটির রক্ষনাবেক্ষনের জন্য তাঁরা টাকা খরচ করেননি। আরও জিজ্ঞেস করুন, তাঁরা যদি আরেকটি পিয়ানো কেনার পরিকল্পনা করে থাকেন তবে তা বর্তমানটির চেয়ে ভালো কেন? পিয়ানো বেসমেন্টে সংরক্ষিত থাকলে সে ব্যাপারে সাবধান থাকুন। এই ধরনের স্থানে জলবায়ুর নিয়ন্ত্রণ থাকে না এবং এর তাপমাত্রা পিয়ানোর বিভিন্ন অংশের জন্য হুমকিস্বরূপ।
কী রকম বিরতিতে পিয়ানো টিউন করা হতো?
বছরে দুইবার পিয়ানো টিউন করা উচিৎ। এর কম হলে আপনাকে বিশেষ টিউনিং এবং অন্যান্য রক্ষণাবেক্ষণের জন্য টাকা খরচ করতে হবে। আপনি যদি বেসুরো পিয়ানো কেনার সিদ্ধান্ত নেন তবে তার ঝুঁকি আপনার নিজের। অভ্যন্তরীণ কোনো কারনে পিয়ানোটি বেসুরো কিনা বা সেটি টিউন করা অসম্ভব কিনা তা আপনার বুঝতে পারার কথা নয়।
কী করে বাদ্যযন্ত্র বিক্রি করবেন?
একটি বাদ্যযন্ত্র বিক্রি করতে প্রথমে আপনাকে একটি বিজ্ঞাপন দিতে হবে। আপনি এখানে একটি বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। অনলাইন বেচাকেনার সাইটে বিজ্ঞাপন দেয়ার খরচ অনেক কম, এবং আপনি বিশদ বর্ণনা দিতে পারবেন। উপরন্তু, আপনি এখানে অনেক বেশী ক্রেতা পাবেন এবং আপনার বাদ্যযন্ত্রটি বিক্রির সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।
কী দামে আপনার বাদ্যযন্ত্রটি বিক্রি করবেন?
বাদ্যযন্ত্রের দাম ঠিক করার সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে কোনো টেকনিশিয়ানের সাথে যোগাযোগ করে তার বিজ্ঞ মতামত নেওয়া। একটি বাদ্যযন্ত্রের মূল্য বিভিন্ন বিষয়ের উপর নির্ভর করে যেমন:
বয়স
অবস্থা
অভ্যন্তরীণ যন্ত্রাংশের গঠন
বিক্রি করা পূর্বে আপনার বাদ্যযন্ত্রটি টিউন করে নিন
নতুনরা যেখানে কোনো বাদ্যযন্ত্রের জটিল প্রকৃতি ও শব্দ বুঝতে পারবে না সেখানে অভিজ্ঞ যন্ত্রশিল্পীরা তা সহজেই পারবে এবং আপনি নিশ্চয়ই চাইবেন আপনার বাদ্যযন্ত্রটি যতটা সম্ভব সুরেলা শব্দে বাজুক। ক্রেতারা সামান্য সমস্যার কারনেই আপনার বাদ্যযন্ত্রটি বাতিল করে দিতে পারেন, তাই আপনাকে বিক্রির আগেই সকল ত্রুটি যতটা সম্ভব দূর করতে হবে। এতে করে আপনি আপনার বাদ্যযন্ত্রটি বেশী দামে বিক্রি করতে পারবেন।
মনোমুগ্ধকর উপস্থাপনা
বাদ্যযন্ত্রের উপর জমে থাকা ধুলো পরিষ্কার করুন এবং সম্ভব হলে পলিশ করান। যথেষ্ট আলোতে বাদ্যযন্ত্রের ছবি তুলবেন যাতে ক্রেতা ভালো করে দেখতে পারেন। এছাড়াও, ঘরটি যতটা সম্ভব আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে। এর জন্য, আপনার বাড়ি পরিষ্কার করুন এবং ছবির তোলার পূর্বে সবকিছু সাজিয়ে গুছিয়ে রাখুন।
পুংখানুপুঙ্খ বিবরণ
পুংখানুপুঙ্খ বিবরণসহ অভিজ্ঞ বিক্রেতা সবসময় ক্রেতা আকৃষ্ট করবে। একজন ক্রেতার বাদ্যযন্ত্র সম্পর্কে খুব একটা ধারণা না থাকলে তিনি যখন দেখবেন বিক্রেতা এ সম্পর্কে অনেক জ্ঞান রাখেন তখন তিনি ভরসা পাবেন। বিক্রেতা যত বেশী জানবেন ক্রেতা ততো বেশী আগ্রহী হবেন। তাছাড়া, আপনাকে আপনার বাদ্যযন্ত্র সম্পর্কে অনেক প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।
গিটার ক্রয়
একটি গিটার কেনার পূর্বে আপনাকে ঠিক করতে হবে আপনি কী ধরনের গানবাজনা করবেন। একেক ধরনের গিটারের শব্দ একেক রকম, এবং একেক ধরনের গিটার একেক ধরনের জিনিসের জন্য ভালো হবে। এদের মধ্যে রয়েছে:

অ্যাকুস্টিক গিটার
ইলেকট্রিক গিটার
টুয়েলভ-স্ট্রিং গিটার
স্টিল গিটার
বেস গিটার
ক্ল্যাসিক্যাল বা স্প্যানিশ গিটার
সেমি-অ্যাকুস্টিক গিটার

এছাড়াও, গিটারের জন্য কোন ধরনের তার ব্যবহার করা হয়েছে তা বিবেচনা করতে হবে। স্টিলের তার নাইলনের তারের চেয়ে হাতে শক্ত অনুভূত হবে। শিশুদের জন্য পরেরটি ভালো হবে।
আপনি ঠিক করুন আপনি কী চান
বিভিন্ন গিটারের আওয়াজ শুনে ঠিক করুন কোনটি আপনার পছন্দ হয়। বিক্রেতাদের ব্যাপারে সতর্ক হোন, কেননা তাঁরা প্রায়শই বাদ্যযন্ত্র সম্পর্কে সত্য গোপন করবেন। বিক্রেতার কথা সমসময় বিশ্বাস করবেন না। বাদ্যযন্ত্রের আওয়াজ এবং অনুভব ব্যক্তিগত পছন্দের উপর নির্ভর করে।
ক্রয়ের ক্ষেত্রে তাড়াহুড়া করবেন না
একটি গিটার ভালোভাবে যাচাই বাছাই করে দেখুন এবং কেনার পূর্বে এর সম্পূর্ণ ইতিহাস জেনে নিন। তাড়াহুড়া করে কিছু কিনবেন না, এবং আপনি যদি চাপ অনুভব করেন তবে সেখান থেকে চলে যান। বাদ্যযন্ত্র সম্পর্কে না জেনে যিনি কিনবেন তাঁর চাইতে একজন অভিজ্ঞ ক্রেতা ভালো সিদ্ধান্ত নেবেন এবং তাঁর পছন্দ নিয়ে সন্তুষ্ট থাকবেন।
ঐতিহ্যবাহী মিউজিক বাজানো
আমাদের দেশের ঐতিহ্যবাহী সঙ্গীতের জন্য আপনি নিশ্চয়ই একতারা, প্লুটং, ঢাক বা বাঁশরীর কথা ভাববেন। এদেশের বাউলদের মধ্যে একতারা ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এটি সাধারণত এক আঙুল দিয়ে বাজানো হয়, কিন্তু এই বাদ্যযন্ত্রটি বো দিয়েও বাজানো যায়। Bikroy-এ অনেক ধরনের বাংলাদেশী বাদ্যযন্ত্র এবং আরও অনেক কিছু পাবেন! এই ওয়েবসাইটটি মানসম্পন্ন জিনিস কেনাবেচার জন্য ক্রেতা-বিক্রেতার সমবেত হওয়ার একটি জায়গা করে দিয়েছে। ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়ই জয়ী হবেন।
একটি দাম প্রস্তাব করুন
আপনি যখন অনলাইনে বিজ্ঞাপন দেখেন তখন আপনি ঠিকই জানেন বিজ্ঞাপনে যে দাম দেয়া আছে সেখান থেকেই দর কষাকষির শুরু হবে। গবেষণায় দেখা যায় যারা আগে দাম বলেন তাঁরা সাধারণত ১৫ ভাগের মতো সাশ্রয় করতে পারেন। সবসময় বাদ্যযন্ত্র কেনার আগে জেনে নেবেন ফেরত দেওয়ার কোনো নীতিমালা আছে কিনা।
ব্যবহার করা পুরনো বাদ্যযন্ত্র
বাদ্যযন্ত্রের সুবিধা হচ্ছে সময় বাড়ার সাথে সাথে সেগুলোর মান কমে না। বরং ভালো ওয়াইনের মতো বাদ্যযন্ত্রের বয়স যত বাড়ে এর মূল্যও ততো বাড়ে। কাঠের তৈরি বাদ্যযন্ত্রের ক্ষেত্রে এই কথাটি বিশেষভাবে সত্যি। উদাহরণস্বরূপ, সময়ের সাথে সাথে গিটারের আওয়াজ ভালো হতে থাকে। কম দামে ভালো মানের কারনে ক্রেতাদের নিকট পুরনো বাদ্যযন্ত্রের আলাদা মুল্য আছে। অনেক ক্ষেত্রে এর মান নতুনের মতোই হয়, আবার কিছু ক্ষেত্রে তা নতুনের চেয়েও ভালো হয়, কেননা বাদ্যযন্ত্রের ভালোভাবে কাজ করতে একটি নির্দিষ্ট ব্রেক-ইন পিরিয়ড প্রয়োজন।
মিউজিক সবসময় একটি সুখী আবহ সৃষ্টি করে ও আমাদের অন্যরকম পরিবেশে নিয়ে যায়। যারা বাদ্যযন্ত্র বাঁজাতে চান তাঁরা শেখার জন্য সময় নষ্ট করবেন না। পুরনো বাদ্যযন্ত্রটি বিক্রি করলে আপনি আপগ্রেড করার সুযোগ পাবেন। আমাদের সাইটে অনেক ধরনের বাদ্যযন্ত্র পাবেন যেখান থেকে আপনি সেরাটি বেছে নিতে পারবেন। ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়েই অবগত থাকলে তা থেকে তাঁরা উপকৃত হতে পারেন। একজন বিক্রেতা, যিনি ক্রেতাকে অবহিত করেন, তবে তিনি অপেক্ষাকৃত বেশী দাম পাবেন।

Comments

comments