২০১৬ হোন্ডা সিআরভি টেস্ট ড্রাইভ রিভিউ

 

বাজারে আসার পর থেকে চারটি বছর ভালই চললো বর্তমান প্রজন্মের হোন্ডা সিআরভি। অবিশ্বাস্যরকম ভাল চলার দুটি কারণ: প্রথমত, এটি হোন্ডার, এবং দ্বিতীয়ত, এই মাঝারি আকারের গাড়িটি দামি হলেও খুব চমৎকার। তাছাড়া বাজার বিবেচনা করলে দেখা যায়, এই দামে সিআরভিকে এমন কিছু একটা দিতে হতো যা এর চেয়ে সস্তা গাড়িতে বা রিকন্ডিশন্ড গাড়িতে পাওয়া যেতো না। এক্ষেত্রে এই দামে এটিই সর্বোচ্চ মানের এবং এর সুবিধাদিও উন্নত।

এটা মাঝারি আকারের শ্রেণিভুক্ত একটি গাড়ি, যেটি নিসান-এর এক্স-ট্রেইল এবং মিটসুবিশি‘র আউটল্যান্ডারের সঙ্গে পাল্লা দিতে পারে। কিন্তু ভেতরের জায়গা হিসেব করলে এটি বড়সড় টয়োটা প্রাডো’র প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারে, যদিও এতে পরেরটির মতো তিন সারিতে আসন নেই। বাইরের দিকে, সিআরভি’র প্রান্তগুলো বৃত্তাকার, সামনের দিকটা ঢালু, এবং পেছনের দিকটা এমন সংহত যে এ গাড়িটিকে তার আকারের চেয়ে অনেক ছোট দেখাবে। বিপরীতে, এক্স-ট্রেইল বা আউটল্যান্ডারকে মনে হবে বিশাল, দৈত্যাকার। হোন্ডার গাড়িগুলোর ডিজাইন অনেক সময়ই অন্য কোম্পানির চেয়ে আলাদা হয়ে থাকে। তবে সিআরভির ক্ষেত্রে অধিকাংশ মানুষই একমত হবেন যে এটি একটি দেখার মতো গাড়ি হয়েছে।

Image 2

এর ভেতরের সবকিছু নরম, তুলতুলে এবং বাহারি রং দিয়ে সাজানো। সবকিছুই খুব কাজের, এবং ব্যবহারও খুবই সহজ। সহজ ব্যবহারের বিষয়টি খুবই প্রশংসার যোগ্য। এর ভেতরে সাত ইঞ্চি পর্দায় খবরাখবর দেখা বা বিনোদনের ব্যবস্থা । আপনার গাড়ি চালানোর সময় যে যে তথ্যের দরকার হতে পারে, তার পুরো তালিকাটি রয়েছে। গাড়ির পিছন দিকে শীতাতপনিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা, যা প্রচণ্ড গরমে, যানজটে আপনাকে স্বস্তি দেবে। মোট কথা, আপনার মনে হবে, আপনি গাড়ি চালাচ্ছেন না, গাড়িই আপনাকে চালিয়ে নিচ্ছে।

Image 1

আপনি যদি বাজারে হোন্ডার যে কোনো গাড়ি ড্রাইভ করে দেখতে চান, তাহলে দেখবেন, এতে সবকিছুই আপনি পাবেন। হোন্ডা কখনোই মানের প্রশ্নে আপোষ করে না। এমনকি বড় গাড়ি, এসইউভি’র ক্ষেত্রেও করে না। এটি চালিয়ে আপনি এত আনন্দ পাবেন যে গাড়িটি যে আপনার আছে সে জন্য আপনি গর্ববোধ করবেন। সিআরভি, তার ২.৪ লিটারের চার সিলিন্ডারের মোটর ১৫৫ অশ্বশক্তি এবং 140 পাউণ্ড-ফুট ঘুর্ণন-সঞ্চারক-বল বা টর্ক চালাতে সক্ষম। তার মানে বড় গাড়ির ভারি ইঞ্জিনের মতো না, কিন্তু টর্কের ক্ষমতা অনেক। আই-ভিটেক ভালভ প্রযুক্তি যে শুধু জ্বালানির সাশ্রয়ে সহায়ক, তা-ই নয়, এটি জ্বালানি প্রবাহও গতিশীল রাখে। ভালভের সুক্ষ্ম ব্যবহারের মাধ্যমে জ্বালানির অপব্যবহার রোধ ও এর দক্ষ ব্যবহার করার পদ্ধতি হোন্ডা ৮০’র দশকেই আয়ত্ত করে। সময়ের সাথে সাথে এ ক্ষেত্রে আরও দক্ষ হয়ে উঠেছে। ফলে অল্প ব্যয়ে, অল্প আয়াসে জোরে ঘোরে এর ইঞ্জিন, এমনকি তা বিজ্ঞাপনে যেভাবে বলা আছে তার চেয়ে ভাল চলে। এর পাঁচটি গিয়ার খুব সহজে ওঠানামা করানো যায়। এর ফোর হুইল ড্রাইভ অযথা ঘর্ষণ ছাড়াই মসৃণ পথচলায় সাহায্য করে।

Image 4

তাই যদি বলা হয় হোন্ডা সিআরভি যতটা স্পোর্টি দেখায় আসলে তা না, তাহলে জানতে হয় এসইউভি’র কী কী উপযোগিতা আছে। এসইউভির একটা বিশাল বুট বা ডালা রয়েছে পেছনে, তারপর পেছনের আসনটিকে ভাঁজ করে গুটিয়ে, শুইয়ে  রাখা যায় যেখানে বেশ কয়েকটি তাবু, ছোট নৌকা, সাইকেল, বা আরো যা যা থাকলে আপনার জীবনধারাকে খুবই সক্রিয় বলা যাবে, তার সবই রাখা যাবে। তাছাড়া এর ভেতরের বিভিন্ন জায়গায় জিনিসপত্র রাখার জন্য ছোট ছোট খোপ আবার কাপহোল্ডার রয়েছে। সে কারণেই ইউটিলিটি বক্সের কথা বলতেই হয়। এখন কথা হচ্ছে, এর মধ্যে কী আছে, যা সিআরভি দিতে পারে না? সিআরভি খুবই আকর্ষণীয় ও নতুন ধরনের। তা সত্ত্বেও যে দিকটি একে এর প্রতিদ্বন্দ্বীদের চেয়ে এগিয়ে রাখে তা হলো এর স্নিগ্ধতা ও নিখুঁত বৈশিষ্ট্যসমূহ।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, যে কারণে এসইউভির চেয়ে ছোট ও দামী হওয়া সত্ত্বেও  অনেক ক্রেতাই রিকন্ডিশন্ড বাজারে টয়োটা হ্যারিয়ারের দিকে ঝুঁকেছিল, সেটি হলো হ্যারিয়ার দেখতে ছিল খুব বাহারি, স্বতন্ত্র। বিশেষ করে এর ব্যাকলাইট আর চাকার ওপর দৃঢ়, সমৃদ্ধ খিলানাকৃতির ঢাকনা। তেমনিভাবে সিআরভি’র সুসংহত ও পরিশীলিত বহির্ভাগ এক কথায় অপ্রতিদ্বন্দ্বী।

পরিশেষে, সিআরভি খুবই কাজের, সে কারণেই মাঝারি আকারের এসইউভির মধ্যে এটি একটি রুচিশীল।

Comments

comments